Karishma Kapoor And Randhir Kapoor

ওয়েবডেস্ক: আবার মেয়ের বিয়ে। তোড়জোড় শুরু করলেই হয়। বিশেষত হবু জামাই সন্দীপ তোশনিওয়ালের প্রথম পক্ষের বিবাহবিচ্ছেদও যখন সরকারি ভাবে মঞ্জুর। তাও কেন হাত-পা গুটিয়ে বসে আছেন শ্বশুর রণধীর কাপুর?

স্রেফ মেয়ের মুখ ফুটে পাকা কথাটা বলার জন্য!

আসলে বলিউডে জোর গুজব – সঞ্জয় কাপুরের সঙ্গে করিশ্মার প্রথম বিয়েটা তেমন সুখের হয়নি বলেই এ বার আর চটজলদি কোনো সিদ্ধান্ত নিতে চাইছেন না কাপুররা। মেয়েও নন, মেয়ের বাবা রণধীর তো ননই! সেই জন্যই যতটা সম্ভব ভেবেচিন্তে সব দিক রক্ষার পরিকল্পনা! তাই সাংবাদিকরা করিশ্মার দ্বিতীয় বিয়ের তারিখ জানতে চাইলেই এক গাল হেসে তাঁদের পাশ কাটাচ্ছেন রণধীর। ঠিক যে হাসিতে একদা ছায়াছবির পর্দায় ভারত মাতাতেন তিনি, সেই মনভেজানো হাসি।

সঙ্গে কী বলছেন তিনি?

এখানেই দেখা দিয়েছে, একটু হলেও, বক্তব্যে গরমিল! প্রথমে যখন করিশ্মা আর সন্দীপের মেলামেশার খবরটা এল, তখন বেশ উদার মনোভাবই দেখা গিয়েছিল রণধীরের বয়ানে। সাংবাদিকদের জানিয়েছিলেন তিনি, “করিশ্মার বয়স এমন কিছু নয়! কেনই বা সে জীবনের সাধ-আহ্লাদ ছেড়ে ঘরে পড়ে থাকবে? সন্দীপের সঙ্গে মেলামেশায় আমার কোনো আপত্তি নেই! তবে মনে হয় না, করিশ্মা আবার বিয়ে করতে চাইবে। সে যথেষ্ট বুদ্ধিমতী মেয়ে, যা করার ভেবেচিন্তেই করবে!”

এ বার কিন্তু হবু শ্বশুরকে বয়ান বদলাতে হল। কারণ তাঁর বুদ্ধিমতী মেয়ের ধাপে ধাপে এগিয়ে যাওয়া। প্রথমে সন্দীপের সঙ্গে মেলামেশা, ছেলেমেয়ের সঙ্গে তাঁর ভাব জমিয়ে নেওয়া, তার পর আর একটু এগিয়ে নিজের বিবাহবিচ্ছেদ পাকাপোক্ত করা, আর এ বার সন্দীপেরও বিবাহবিচ্ছেদ আইনি ভাবে মিটিয়ে নেওয়া। এর পরের ধাপ সে ক্ষেত্রে বিয়ে ছাড়া আর কিছু হতে পারে বলে তো মনে হয় না। আর সেটার আঁচ পেয়েই সাংবাদিকদের সামনে বিয়ের সুর ধরেছেন রণধীর।

“আমি তৈরিই আছি! শুধু করিশ্মা একবার মুখ ফুটে বললেই হয়। তা হলেই বিয়ের বন্দোবস্ত শুরু হবে জোর কদমে। ওদের বিবাহিত জীবন যাতে সুখী হয়, আমি তো তা-ই চাই”, ইদানীং বলছেন রণধীর!

আর কী! এ বার শুধু অপেক্ষা! বিয়ের সানাই তো মনে হয় বাজল বলে!

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here