ওয়েবডেস্ক: নেশাগ্রস্ত যে সন্তানের জন্য আজীবন ভুগতে হয়েছিল নার্গিস আর সুনীল দত্তকে, সেই সঞ্জয় দত্তের জীবনের প্রথম নেশার পথ প্রশস্ত করে দিয়েছিলেন খোদ সুনীলই?

শুনতে খুব অবাক লাগলেও বায়োপিক মুক্তির প্রাক্কালে সম্প্রতি সংবাদমাধ্যমে এই বিস্ফোরক সত্যটি কবুল করেছেন সঞ্জয় দত্ত। যদিও ঘটনাটি বলে দিচ্ছে স্পষ্টতই- ঠিক নেশা ধরানোর জন্য ৬ বছরের ছেলের হাতে সিগারেট তুলে দেননি প্রয়াত সুনীল। তাঁর উদ্দেশ্য ছিল অন্য। কিন্তু তা সম্পূর্ণ ব্যর্থ হয়!

sunil dutt and sanjay dutt

খবর বলছে, ঘটনাটি যখন ঘটেছিল, তখন সঞ্জয় দত্তের বয়স মাত্র ৬ বছর! তখনও ছায়াছবিতে অভিনয় করছেন সুনীল দত্ত। কাশ্মীরে চলছে তাঁর একটি ছবির শুটিং। ছোট্ট সঞ্জয়ও বাবার সঙ্গে উপস্থিত ছিল সেই শুটিংয়ের আউটডোর লোকেশনে।

সেখানে দেখেন সঞ্জয়, সবাই কাজের ফাঁকে ফাঁকে ধূমপান করে চলেছেন! এমনকি সুনীলও! খুব সম্ভবত তা কাশ্মীরের কড়া ঠান্ডার জন্যই! পাশাপাশি, কাজের মাঝে সুখটান দিয়ে নিজেকে একটু ফুরফুরে করে নেওয়ার ব্যাপারটা তো আছেই!

sunil dutt and sanjay dutt

সেই সব দেখতে দেখতেই হঠাৎ বায়নাক্কা জুড়ে দেয় ছেলে- তারও একটা সিগারেট চাই! প্রথমে সবাই হেসে উঠেছিলেন সেই দাবি শুনে। কিন্তু ব্যাপারটা শেষ পর্যন্ত আর হাসির রইল না! কেন না, ততক্ষণে চিল-চিৎকার জুড়ে দিয়েছে ৬ বছরের ছেলেটি- সিগারেট সে খাবেই অন্যদের মতো!

বেগতিক দেখে শেষ পর্যন্ত এগিয়ে আসেন সুনীল। এক কোণে নিয়ে যান ছেলেকে। তার পর একটা সিগারেট ধরিয়ে দেখান, কী ভাবে ধোঁয়া টেনে তা নাক দিয়ে ছাড়তে হয়! তার পর সেই সিগারেটটা তুলে দেন ছেলের হাতে!

sunil dutt and sanjay dutt

“বাবা ভেবেছিলেন, আমি কাশব, সিগারেটের স্বাদ বাজে লাগবে, নাকে-মুখে ধোঁয়া ঢুকে গিয়ে নাকাল হব! এবং পরিণামে পরে আর সিগারেট খেতে চাইব না! কিন্তু ও সব কিছুই হয়নি! বরং বাবা দেখে অবাক হয়ে গিয়েছিলেন, খুব সঠিক ভাবে আমি গোটা সিগারেটটা শেষ করেছিলাম”, দাবি সঞ্জয়ের!

সেই শুরু! নায়ক বলছেন, তার পর আর সিগারেট ছাড়েননি তিনি! পাশাপাশি, নায়কের বোন নম্রতা জানিয়েছেন, এই নেশার জন্য এক বার কী ভাবে বোনের গোড়ালি ভেঙে দিয়েছিলেন সঞ্জয়!

nargis and sanjay dutt

“সঞ্জয় তখন দিন-রাত নেশা করছে! ড্রাগ, অ্যালকোহল- কোনো কিছুই বাদ নেই! এ নিয়ে রোজ আমি ওকে বোঝাবার চেষ্টা করতাম। কিন্তু লাভ হতো না। এক দিন যখন ও নেশা করে বাড়ি ফিরল, আমি আর মাথা ঠিক রাখতে পারিনি। বেশ কিছু কড়া কথা শুনিয়েছিলাম ওকে। তাতে ও রেগে গিয়ে আমায় এমন ধাক্কা মেরেছিল যে পড়ে গিয়ে আমার গোড়ালির হাড় ভেঙে যায়”, বলছেন তিনি!

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here