Connect with us

জলপাইগুড়ি

উত্তরবঙ্গে পাঁচ হাজার গাছ কেটে তৈরি হবে নতুন রাস্তা, ক্ষুব্ধ পরিবেশপ্রেমীরা

বাগরাকোট: উত্তরবঙ্গের বাগরাকোট থেকে চিন সীমান্ত পর্যন্ত তৈরি হবে ২২০ কিমি দীর্ঘ নতুন রাস্তা। এর জন্য পশ্চিমবঙ্গের অংশে কেটে ফেলা হবে পাঁচ হাজার গাছ। এই খবর জানাজানি হতেই বেজায় ক্ষুব্ধ পরিবেশপ্রেমীরা।

চিন সীমান্তে নজরদারি বাড়ানোর জন্য এই নতুন রাস্তা তৈরি করা হচ্ছে। মালবাজার ব্লকের বাগরাকোট থেকে এই রাস্তা চুইখিম, চারখোল, আলগাড়া হয়ে সিকিমের নাথুলা পাস পর্যন্ত যাবে।

সেনা সরঞ্জাম দ্রুত সীমান্তে পৌঁছে দিতে ২২০ কিলোমিটার লম্বা রাস্তা তৈরি হচ্ছে ন্যাশনাল হাইওয়ে ইনফ্রাস্ট্রাকচার ডেভেলপমেন্ট করপোরেশন লিমিটেডের অধীনে।

এর মধ্যে ৬৭ কিলোমিটার রাস্তা পড়ছে পশ্চিমবঙ্গে। পাঁচ ধাপে তৈরি হবে রাস্তা। প্রথম পর্যায়ে তৈরি হচ্ছে ১৩ কিলোমিটার রাস্তা। তার জন্য কাটা পড়ছে ১০৯৮ গাছ। যার মধ্যে ৪৫০ গাছ ইতিমধ্যেই কাটা পড়েছে। বাকি গাছ পরে কাটা হবে। এ ভাবে মোট পাঁচ হাজার গাছ এ রাজ্যে কাটা পড়বে।

আরও পড়ুন সকাল থেকেই ভিজছে কলকাতা-সহ গোটা রাজ্যে, আরও বৃষ্টির সম্ভাবনা

ঠিক এ রকম ভাবে গাছ কাটার জন্য কয়েক মাস আগেই বিতর্ক তৈরি হয়েছিল মুম্বইয়ে। মেট্রোর কার-শেডের জন্য মুম্বইতে ২,৬০০ গাছ কাটার অনুমোদন দেয় বম্বে হাইকোর্ট। এই নির্দেশের পর বিক্ষোভকারীদের গ্রেফতার করে নির্মম ভাবে একের পর এক গাছ কেটে ফেলা হয়। পরে অবশ্য, মহারাষ্ট্রে নতুন সরকার গঠনের পর সেই সিদ্ধান্ত বাতিল করা হয়। বেঁচে যায় বাকি গাছগুলি।

এ ভাবে পরের পর গাছ কাটায় পরিবেশের ভারসাম্য নষ্ট হওয়ার আশঙ্কায় উদ্বিগ্ন পরিবেশপ্রেমিরা। কেন্দ্রীয় পরিবেশ মন্ত্রকের নির্দেশ অনুযায়ী একটি গাছ কাটলে ৫টি গাছ লাগাতে হয়। গাছ লাগানোর খরচ সংশ্লিষ্ট সংস্থাকেই বহন করতে হয়। নতুন রাস্তা তো তৈরি হবে। কিন্তু পরিবেশ বাঁচাতে নতুন করে গাছ লাগানো হবে তো? এখন আপাতত এ প্রশ্নই করছেন মালবাজারের মানুষজন।

জলপাইগুড়ি

মানুষের পাশে ‘অবসর’

জাহির রায়হান

আমরা কখনও ভাবিনি এমন পরিস্থিতির সম্মুখীন হতে হবে কখনও। এক অদৃশ্য জীবাণুর কবলে পড়ে সমগ্র বিশ্ববাসীর পাশাপাশি আমরা সকলেই হয়ে যাব গৃহবন্দি। হঠাৎই থমকে যাবে সভ্যতার চাকা। কিন্তু ভাবনার অতীত সেই পরিস্থিতিটাই আজকের কঠিন বাস্তবতা। স্তব্দ্ধ হয়ে গিয়েছে জাগতিক কলরব। জীবনের আনন্দ আজ দমবন্ধ হয়ে আসছে অজ্ঞাত আতঙ্কের গ্রাসে। সমস্ত বাহুল্য, সব বিলাসিতা ত্যাগ করে বেঁচে থাকাটাই যেন আজ মনুষ্যজীবনের মূল লক্ষ্য। কিন্তু বেঁচে থাকতে গেলে তো জরুরি বেঁচে থাকার রসদ। দীর্ঘ লক ডাউনে যাদের ঘরে রয়েছে অন্ন, তাদের কথা ভিন্ন। যাদের সঞ্চয় রয়েছে তারা রয়েছে নির্ভাবনায়। কিন্তু দিনমজুরির ভিত্তিতে খেটে খাওয়া অসংখ্য সাধারণ মানুষ? যাঁরা অকস্মাৎ কাজ হারিয়েছেন দেশজোড়া সহসা জারি হওয়া এই জরুরি অবস্থায়? অসংগঠিত ক্ষেত্রে খেটে খাওয়া পরিবারের একমাত্র রোজগেরে সদস্যের ওপর নির্ভর করে যে পাঁচ সাতটি পেট? কী হবে তাদের এখন? অনাহার, অর্ধাহারের ভয় তো করোনার আতঙ্কের চেয়েও কম কিছু নয়।

সারা দেশের সঙ্গে তাল মিলিয়ে বন্ধ ডুয়ার্সের চা বাগানগুলি, তাই তালা পড়েছে চা কারখানাগুলিতেও। ফলে বন্ধ শ্রমিকদের রোজগারও। কী ভাবে চলবে তবে চা বাগানের শ্রমিক এবং দিনমজুরির ভিত্তিতে খেটে খাওয়া মানুষদের? অনাহারের আশঙ্কায় দিন কাটছে এমন অনেক পরিবারের যাদের খবর রাখার ফুরসত হয়ত হয়নি কোনো দিন। কিন্তু মানবজীবনের এই ভয়াবহ দুর্দিনে আর বুঝি মুখ ফিরিয়ে থাকা সম্ভব নয়। তাই মুখ ফিরিয়ে থাকেনি ‘অবসর’ও।

ত্রাণ নেওয়ার প্রতীক্ষায়।

অবসরের বৃহৎ চৌহদ্দির ফাঁকা অংশে রকমারি আনাজপাতির চাষ হয় বছরভর। মিষ্টি জলের পুকুরে করা হয় মাছ চাষও। এমনকি কিছু হাঁস-মুরগিও পালন করা হয়। শহরাঞ্চলের পর্যটকেরা টাটকা শাকসবজি ও পুকুরের মাছ পছন্দ করেন খুব, তাই তাঁদের কথা মাথায় রেখেই অবসর করে থাকে ওই আয়োজন। কিন্তু এখন পরিস্থিতি ভিন্ন। অতিথিসেবার জন্য যে ব্যবস্থাপনা করে থাকে ‘অবসর’, সেই ব্যবস্থাপনাকে কাজে লাগিয়েই দেশের এই দুর্দিনে দরিদ্র মানুষের সেবা ও সামাজিক দায়বদ্ধতায় পালন করছে অগ্রণী ভূমিকা। অবশ্য মানুষের সেবা করাই তার প্রধান লক্ষ্য এবং নিরবচ্ছিন্ন ও মসৃণ ভাবে সেই কাজ যাতে চালিয়ে যাওয়া যায় সেই উদ্দেশ্যেই বছর খানেক আগে মাথা তুলেছিল ‘অবসর’। ফ্রি মেডিক্যাল ক্যাম্প দিয়ে তার পথ চলা শুরু, তার পর উৎসবের মরশুমে বস্ত্র বিতরণ, শীতকালে কম্বল বিতরণ সহ নানাবিধ কর্মসূচি পালন করে থাকে সদিচ্ছায় সারা বছর।

সামাজিক দায়বদ্ধতার সেই বাধ্যবাধকতায় ইতিমধ্যেই ‘কোয়ারান্টিন সেন্টার’ হিসেবে গড়ে তোলা হয়েছে ‘অবসর’ হোম-স্টে’র ১২টি ঘরকে। প্রতিটি ঘর আলাদা, ঘর সংলগ্ন বাথরুমের সুবিধা। ডুয়ার্সের গরুমারা অভয়ারণ্য লাগোয়া দক্ষিণ ধুপঝোরা ও তৎসন্নিহিত গ্রামের যে যুবকেরা পরিয়ায়ী শ্রমিক হিসেবে কাজ করতে যায় কেরল-সহ দেশের অন্যান্য রাজ্যে, করোনার প্রাদুর্ভাবে বাড়ি ফিরে তারা ১৪ দিনের হোম কোয়ারান্টিনে থাকতে পারেন এখানে প্রয়োজনে। স্থানীয় পঞ্চায়েতের উদ্যোগে ডাক্তার এবং সহকারীর ব্যবস্থা করা হয়েছে তাদের দেখভালের জন্য। কোয়ারান্টিনে থাকা ব্যক্তিদের পরবর্তী শারীরিক অবস্থা অনুযায়ী নেওয়া হবে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা। ‘অবসর’ এবং ধুপঝোরা গ্রাম পঞ্চায়েত যৌথ উদ্যোগে সম্পূর্ণ নিখরচায় প্রদান করবে এই পরিষেবা।

আরও পড়ুন: নিরন্ন মানুষের পাশে ‘সহমর্মী’ ও ভাঙড় কলেজের এনসিসি শাখা

দ্বিতীয়ত, সরকারি ঘোষণা অনুযায়ী স্থানীয় পঞ্চায়েত ও রেশনিং ব্যবস্থার মাধ্যমেই বিতরণ করা হচ্ছে খাদ্যশস্য ও আলু। সেখানে ‘অবসর’-এর কোনো ভূমিকা নেই। কিন্তু ‘অবসর’-এর তরফ থেকেও গৃহীত হয়েছে পরিবারপিছু প্রতি সপ্তাহে ৫০০ মিলি ভোজ্য তেল এবং সয়াবিন বা ডাল দেওয়ার সিদ্ধান্ত। পাশাপাশি কিছু শাকসবজি এবং হাত ধোয়ার সাবান সরবরাহ করারও সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। করোনা সংক্রমিত হয়ে পড়ার এই ভয়ের পরিবেশে ‘হাত ধোয়ার’ অভ্যেস এবং পরিচ্ছন্নতার সচেতনতা যদি বৃদ্ধি করা যায় মানুষগুলির মধ্যে, সেটাও আগামী দিনে দেশকে বহু রোগভোগ থেকে মুক্তি দেবে বলে আমাদের বিশ্বাস। সেই কর্মকাণ্ডকে সামনে রেখে বহু মানুষের প্রত্যক্ষ সহযোগিতায় গঠিত হয়েছে আপৎকালীন তহবিল। আর সেই তহবিল ব্যবহার করেই সূচিত হয়েছে মানুষের মুখে অন্ন জোগানোর কর্মসূচি।

ত্রাণসামগ্রী।

চলতি মাসের ৫ তারিখে ডুয়ার্সের দক্ষিণ ধুপঝোরা গ্রামের ৫০টি পরিবারের হাতে তুলে দেওয়া হয়েছে সয়াবিন, তেল ও হাত ধোওয়ার সাবান। গ্রামবাসীদের বিশেষ অনুরোধে গত শনিবার দেওয়া হয়েছে চাল, আলু ও সাবান। আমরা আশাবাদী নিরন্ন মানুষের মুখে অন্ন জোগান দেওয়ার এই কাজ আমরা চালাতে পারব আগামী কয়েক সপ্তাহ আরও। আপনাদের আশীর্বাদ ও সর্বাঙ্গীণ সহযোগিতা আমাদের সহায় হোক, বেঁচে থাকি আমরা সকলেই অন্তত এক মুঠো খেয়ে।

Continue Reading

জলপাইগুড়ি

পিকনিক করতে গিয়ে রেলব্রিজে উঠে সেলফি, পরিণতি হল মর্মান্তিক

মালবাজার: বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন ভাবে সচেতনতার বার্তা দেওয়া হয়। কিন্তু তা যে এক শ্রেণির মানুষ কানেও তোলেন না, সেটা ফের একবার প্রমাণিত হল। আর তার জেরে পরিণতিও হল মর্মান্তিক।

সেলফির নেশা প্রাণ কেড়ে নিল এক কিশোরীর, গুরুতর জখম আরও একজন। মালবাজার মহকুমার ওদলাবাড়ি এলাকায় ঘিস নদীর রেলব্রিজ এলাকায় রবিবার ঘটেছে দুর্ঘটনা।

ময়নাগুড়ির একটি কোচিং সেন্টার থেকে রবিবার ১১০ জন মিলে পিকনিক করতে এসেছিল ওদলাবাড়ির ঘিস নদীর পাড়ে। এর পরেই সেলফির নেশায় রেল ব্রিজের ওপরে উঠে পড়ে দু’ জন।

স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, একজন মগ্ন ছিল সেলফি তোলায় অন্য জন টিকটকে ভিডিও তুলছিল। হঠাৎই একটি ট্রেন চলে আসে। সরে যাওয়ার সময় পায়নি ওই দু’জন। ট্রেনের ধাক্কায় ছিটকে নদীতে পড়ে যায় তারা। ঘটনাস্থলেই একজনের মৃত্যু হয়।

আরও পড়ুন অমিত শাহের বিরুদ্ধে চাঞ্চল্যকর অভিযোগ দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়ালের

অন্য কিশোরীকে গুরুতর আহত অবস্থায় প্রথমে ওদলাবাড়ি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে অবস্থার অবনতি হলে মালবাজার হাসপাতালে কিশোরীকে পাঠানো হয়।

Continue Reading

জলপাইগুড়ি

উন্নয়নের জন্য বরাদ্দ টাকা নিয়ে রাজ্যের বিরুদ্ধে নালিশ তৃণমূল পরিচালিত জেলা পরিষদেরই

জলপাইগুড়ি: উন্নয়নের জন্য বরাদ্দ টাকা নিয়ে রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধেই অসহযোগিতার অভিযোগ তুলল তৃণমূল পরিচালিত জেলা পরিষদ। ব্যাপারটি নিয়ে কিছুটা চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।

জলপাইগুড়ি জেলা পরিষদের অভিযোগ, অন্যান্য জেলার তুলনায় এই জেলায় বরাদ্দের টাকা কম দেওয়া হচ্ছে। এই বিষয়ে তৃণমূলের জেলা সভাপতিকে প্রয়োজনীয় হস্তক্ষেপ করতে দাবি জানিয়েছেন জলপাইগুড়ি জেলা পরিষদের সদস্যরা।

দলের জেলা সভাপতি নির্বাচিত হওয়ার পরে মঙ্গলবারই প্রথম জেলা পরিষদে আসেন কৃষ্ণকুমার কল্যাণী। জেলা পরিষদের সভাধিপতি উত্তরা বর্মণ, সহকারী সভাধিপতি দুলাল দেবনাথ ও অন্য সদস্যরা তাঁকে সংবর্ধনা জানান । এর পর জেলা পরিষদের সদস্যদের সঙ্গে বৈঠকে বসেন জেলা সভাপতি। 

ওই বৈঠকেই জেলা পরিষদের সদস্যরা কল্যাণীকে জানিয়েছেন যে উন্নয়নের টাকাকে কেন্দ্র করে রাজ্যের অন্যান্য জেলার তুলনায় জলপাইগুড়ির সঙ্গে বিমাতৃসুলভ আচরণ করা হচ্ছে। পঞ্চায়েতমন্ত্রীর সঙ্গে এই বিষয়ে আলোচনা করারও আশ্বাস দিয়েছেন তিনি।

আরও পড়ুন জার্মানির রাস্তায় বাইকে দেখা গেল হিটলারকে, তীব্র চাঞ্চল্য

এ দিন দলের জেলা সভাপতির কাছে জল্পেশ মেলায় মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে আমন্ত্রণ জানানোর আবেদন করেন পরিষদের সদস্যরা।

জেলা পরিষদের সহকারী সভাধিপতি দুলাল দেবনাথ বলেন, ‘‘আমরা দলের জেলা সভাপতির সঙ্গে আমাদের বিভিন্ন সমস্যা নিয়ে আলোচনা করেছি। জলপাইগুড়ি জেলার উন্নয়নের জন্য বরাদ্দ টাকা অন্য জেলা পরিষদের তুলনায় আমরা কিছু কম পাচ্ছি।”

তবে এই সমস্যার দ্রুত সমাধান হয়ে যাবে বলেও আশা প্রকাশ করেন দুলালবাবু।

Continue Reading
Advertisement
দেশ6 mins ago

কেরল সোনা পাচারকাণ্ড: সিনিয়র আইএএস অফিসারকে বরখাস্ত করলেন মুখ্যমন্ত্রী পিনারাই বিজয়ন

দেশ1 hour ago

জেলবন্দি কবি-সমাজকর্মী ভারাভারা রাও করোনা পজিটিভ

রাজ্য1 hour ago

রেকর্ড সংখ্যক নমুনা পরীক্ষার দিন রাজ্যে আক্রান্তের সংখ্যাতেও রেকর্ড, কমল মৃত্যুহার

বিদেশ2 hours ago

আবুধাবিতে শুরু চিনের করোনা ভ্যাকসিনের চূড়ান্ত পর্যায়ের পরীক্ষামূলক প্রয়োগ

দেশ4 hours ago

নির্দিষ্ট কয়েকটি দেশে ফের আন্তর্জাতিক উড়ান পরিষেবা চালু করছে কেন্দ্র

বিনোদন4 hours ago

অবশেষে নতুন এপিসোড নিয়ে সাব টিভির পর্দায় ফিরছে ‘তারক মেহকা উলটা চশমা’ও, জেনে নিন কবে থেকে

দেশ4 hours ago

অসমে বন্যা পরিস্থিতি ভয়াবহ, বিপন্ন কাজিরাঙার বন্যপ্রাণও

রাজ্য4 hours ago

আরও চার হাজার বেড বাড়ছে রাজ্যে, ঘোষণা মুখ্যমন্ত্রীর

কেনাকাটা

laptop laptop
কেনাকাটা1 day ago

ল্যাপটপ কিনবেন? দেখে নিন ২৫ হাজার টাকার মধ্যে এই ৫টি ল্যাপটপ

খবরঅনলাইন ডেস্ক : কোভিভ ১৯ অতিমারির প্রকোপে বিশ্ব জুড়ে চলছে লকডাউন ও ওয়ার্ক ফ্রম হোম। অনেকেই অফিস থেকে ল্যাপটপ পেয়েছেন।...

কেনাকাটা4 days ago

হ্যান্ডওয়াশ কিনবেন? নামী ব্র্যান্ডগুলিতে ৩৮% ছাড় দিচ্ছে অ্যামাজন

খবরঅনলাইন ডেস্ক : করোনাভাইরাস বা কোভিড ১৯ এর সঙ্গে লড়াই এখনও জারি আছে। তাই অবশ্যই চাই মাস্ক, স্যানিটাইজার ও হ্যান্ডওয়াশ।...

কেনাকাটা7 days ago

ঘরের একঘেয়েমি আর ভালো লাগছে না? ঘরে বসেই ঘরের দেওয়ালকে বানান অন্য রকম

খবরঅনলাইন ডেস্ক : একে লকডাউন তার ওপর ঘরে থাকার একঘেয়েমি। মনটাকে বিষাদে ভরিয়ে দিচ্ছে। ঘরের রদবদল করুন। জিনিসপত্র এ-দিক থেকে...

কেনাকাটা1 week ago

বাচ্চার জন্য মাস্ক খুঁজছেন? এগুলোর মধ্যে একটা আপনার পছন্দ হবেই

খবরঅনলাইন ডেস্ক : নিউ নর্মালে মাস্ক পরাটাই দস্তুর। তা সে ছোটো হোক বা বড়ো। বিরক্ত লাগলেও বড়োরা নিজেরাই নিজেদেরকে বোঝায়।...

নজরে