বেজিং : পূর্ব চিন সাগরের ওপর জ্বালানিবাহী জ্বলন্ত ট্যাঙ্কারটি যে কোনো সময় বিস্ফোরণ ঘটাতে পারে। এমনকি শেষ পর্যন্ত ডুবে যেতেও পারে। এমনটাই আশঙ্কা করছে বিভিন্ন মহল। এমনটা ঘটলে ক্ষতি হবে লক্ষাধিক সামুদ্রিক প্রাণীর। সোমবার ইরানি আর চিনা আধিকারিকরা জানিয়েছেন, নিখোঁজদের মধ্যে এক জনকে উদ্ধার করা গিয়েছে। চিনা বিদেশমন্ত্রকের মুখপাত্র লু কুঙ্গ বলেন, খারাপ আবহাওয়ার দরুণ ব্যাহত হচ্ছে উদ্ধার কার্য।

শনিবার সাংহাইয়ের ১৬০ নটিক্যাল মাইল দূরে সংঘর্ষ হয় ইরানি তেলবাহী ট্যাঙ্কারটির সঙ্গে চিনের একটি শস্যবাহী জাহাজের। তাতেই দুর্ঘটনাটি ঘটে। তার পর থেকেই নিখোঁজ হন ৩২ জন কর্মী। তার মধ্যে ৩০ জন ইরানি আর ২ জন বাংলাদেশি। ইরান থেকে দক্ষিণ কোরিয়ায় যাচ্ছিল তেলবাহী জাহাজটি। তাতে ছিল এক লক্ষ ৩৬ হাজার টন জ্বালানি। মূল্য প্রায় ছয় কোটি ডলার। অপর জাহাজের ২১ জন কর্মীকেই উদ্ধার করা গিয়েছে।

পরিবেশবিদরা মনে করছেন এই বিশাল তেলবাহী ইরানি জাহাজ ডুবে গেলে পরিবেশের যে পরিমাণ ক্ষতি হবে ১৯৯১ সালের অ্যাঙ্গোলান উপকূলের ২ লক্ষ ৬০ হাজার টন তেল লিকের ঘটনাকেও হার মানাবে।

চিনা সংবাদমাধ্যমের সিসিটিভি ফুটেজ থেকে দেখা গেছে ট্যাংকারের নীচে দিয়ে কালো জল, তেল আর ধোঁয়া নির্গত হচ্ছে।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন