Air-pollution

ওয়েবডেস্ক: বায়ুদূষণ নিয়ে সচেতন আর সাবধান হওয়ার সময় মনে হয় এ বার এসে গিয়েছে। বৃহস্পতিবার ‘ইন্ডিয়ান কাউন্সিল অব মেডিক্যাল রিসার্চ’ একটি পরিসংখ্যান বের করেছে। তাতে বলে হয়েছে, ২০১৭ সালে বায়ুদূষণের কারণে মৃত্যুর সংখ্যা ১২ লক্ষ ৪০ হাজার। তার মধ্যে বাইরের দূষণের কারণে মৃত্যু হয়েছে ৬ লক্ষ ৭ হাজার মানুষের। ঘরের ভেতরের দূষণের কারণে মৃত্যু হয়েছে ৪ লক্ষ ৮ হাজার মানুষের। অর্ধেকের বেশি মৃত্যুর ক্ষেত্রেই বয়স ৭০ বছরের কম। রিপোর্ট অনুযায়ী, ভারতীয়দের বয়স কম করে গড়ে ১ বছর ৭ মাস বাড়তে পারে। সেটি তখনই সম্ভব যদি বায়ুদূষণের মাত্রা ন্যূনতম মানের কম থাকে তা হলেই। রিপোর্ট অনুযায়ী দেশের প্রতি আটটি মৃত্যুর মধ্যে একটি মৃত্যুর কারণ বায়ুদূষণ। এটি ধূমপানের ফলাফলের থেকেও সাংঘাতিক।

শুধু বাইরের দূষণ নয়, বায়ু সমান ভাবে দূষিত হচ্ছে ঘরের ভেতরের নানান কাজকর্মের দরুন। ঘরের দূষণের মাত্রা বেশি রাজস্থান, হরিয়ানা, পঞ্জাব, দিল্লি, উত্তরপ্রদেশ, বিহার, ঝাড়খণ্ডে।

রিপোর্টে বলা হয়েছে দেশের ২৬% শিশুমৃত্যু হয় বায়ুদূষণ আর তার থেকে তৈরি রোগের কারণে। এই পরিমাণ বিশ্বের মধ্যে ১৮%।

হু-এর একটি রিপোর্ট অনুযায়ী ২০১৭ সালে বায়ুদূষণের কারণ ভারতে মোট ১ লক্ষ ১০ হাজারটি অপরিণত শিশু মারা গিয়েছে। শিশু মৃত্যুর দিক থেকে বিশ্বের এক নম্বরে রয়েছে ভারত।

বায়ুদূষণ নিয়ে সচেতন করতে মাঠে নেমেছে কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের পাশাপাশি বেশ কয়েকটি সংস্থাও।

আরও পড়ুন – ভারতের সব থেকে ভারী উপগ্রহ জি স্যাট ১১-এর সফল উৎক্ষেপণ, বাড়তে পারে ডেটা সার্ভিসের গতিও

স্বাস্থ্য বিষয়ক গবেষণার প্রধান বলরাম ভার্গভ বলেন, ঘরের বায়ুদূষণের মাত্রা কমাতে সরকার এনেছে ‘প্রধানমন্ত্রী উজ্জ্বলা যোজনা’। এর মাধ্যমে পরিস্থিতি কিছুটা সামলানো যাবে।

রিপোর্টে বলা হয়েছে বাইরের বায়ুদূষণের কারণ বহুমূখী। কলকারখানা থেকে যানবাহন, তাপবিদ্যুৎ উৎপাদন থেকে বিভিন্ন জ্বালানী, রাস্তার ধুলো এই সবই হল বাইরের বায়ুদূষণের কারণ। এই বায়ুদূষণের কারণে তৈরি হচ্ছে নানান রোগ। হৃদ রোগ, ফুসফুসের সমস্যা, শ্বাসযন্ত্রের সমস্যা, ফুসফুসে ক্যানসার ইত্যাদি।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here