Connect with us

পরিবেশ

বরফ গলছে, ১৬ বছরের জন্য মাছ ধরা নিষিদ্ধ হল ন’টি দেশে

ওয়েবডেস্ক: বিশ্ব উষ্ণায়নের ফলে মেরু প্রদেশের বরফ যে ক্রমাগত গলছে, সে তো সবারই জানা। পরিবেশবিদদের আশঙ্কা, বরফ গলা জলে ক’দিনের মধ্যেই শুরু হবে দেদার মাছ শিকার। পরিবেশের ভারসাম্য নষ্ট হওয়ার আশঙ্কা থেকে ন’টি মেরু প্রদেশীয় দেশে বাণিজ্যিক উদ্দেশে মাছ ধরা নিষিদ্ধ হল সম্প্রতি। নিষেধাজ্ঞা আপাতত ১৬ বছরের জন্য জারি থাকবে। এই প্রসঙ্গে মার্কিন সমুদ্র এবং মৎস্যচাষ বিষয়ক দূত ডেভিড বাল্টন বলেছেন, “যাবতীয় যা ক্ষয় ক্ষতি হওয়ার, ঘটে যাওয়ার আগে এই প্রথম সরকার কোনও পদক্ষেপ করল”।

আরও পড়ুন; দক্ষিণ মেরুর লার্সেন সি আইসশেলফের ফাটল সম্পূর্ণ হতে বাকি মাত্র ৩ মাইল

২০১৫ সাল নাগাদ বাণিজ্যিক পদ্ধতিতে মাছ ধরা নিষিদ্ধ করতে চুক্তিবদ্ধ হয়েছিল রাশিয়া, কানাডা, ডেনমার্ক, নরওয়ে এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। দু’বছর ধরে চলা একাধিক বৈঠকের পর ওই একই চুক্তিতে আবদ্ধ হল দক্ষিণ কোরিয়া, চিন, জাপান, আইসল্যান্ড এবং ইওরোপীয় ইউনিয়ন। ২৮ লক্ষ বর্গ কিলোমিটার অঞ্চল জুড়ে জারি হল এই নিষেধাজ্ঞা। ১৬ বছর পেরিয়ে গেলে পরবর্তী পাঁচ বছরের জন্য ফের বাড়ানো যাবে নিষেধাজ্ঞা।

এই খবরে স্বস্তির নিশ্বাস ফেলেছেন পরিবেশবিদরা। তাঁদের অনেকেরই আশঙ্কা ছিল, যে হারে মেরু প্রদেশের বরফ গলতে শুরু করেছে, তাতে খুব শিগগির ওই অঞ্চলের বরফ গলা জলে মাছ ধরা শুরু হবে। কিন্তু না, মেরু দেশের সামুদ্রিক বাস্তুতন্ত্র পর্যবেক্ষণ করার জন্য বিজ্ঞানীরা আপাতত কম করে ১৬ বছর হাতে পাচ্ছেন ।

Advertisement
Click to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

উঃ ২৪ পরগনা

‘পরিবেশ প্রভাব জরিপ ২০২০’ বাতিলের দাবিতে নৈহাটি স্টেশনে ‘ফ্রাইডে ফর ফিউচার’-এর জমায়েত

খবরঅনলাইন ডেস্ক: কোনো বড়ো প্রকল্প স্থাপনের আগে সেখানকার পরিবেশের উপর তার কী প্রভাব পড়বে তা জরিপ করা হয়। একে বলা হয়  এনভায়রনমেন্টাল ইমপ্যাক্ট অ্যাসেসমেন্ট (ইআইএ) (Environmental Impact Assesment, EIA) বা পরিবেশ প্রভাব জরিপ। এটি একটি আইনি বাধ্যবাধকতা।

এই ‘পরিবেশ প্রভাব জরিপ’ এড়িয়ে যাওয়ার জন্য এ সংক্রান্ত পুরোনো আইন সংশোধনের চেষ্টা করছে কেন্দ্রীয় বন ও পরিবেশ মন্ত্রক। এরই বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক পরিবেশ আন্দোলন ‘ফ্রাইডে ফর ফিউচার’-এর (Friday For Future) নৈহাটি শাখার তরফে রবিবার প্রতিবাদ-বিক্ষোভ দেখানো হল নৈহাটি স্টেশন চত্বরে।

যে কোনো বড়ো প্রকল্প স্থাপনের আগে পরিবেশের উপর তার প্রভাব খতিয়ে দেখা বাধ্যতামূলক। এই মূল্যায়ন পদ্ধতির একটা অঙ্গ হল অঞ্চলের অধিবাসীদের নিয়ে গণশুনানি, যা গণতন্ত্রের পক্ষে খুবই স্বাস্থ্যকর। এই পদ্ধতিকে লঘু করার জন্য কেন্দ্রীয় বন ও পরিবেশ মন্ত্রক জোর চেষ্টা চালাচ্ছে বলে পরিবেশবাদীদের অভিযোগ। জনমত সংগ্রহের জন্য ইআইএ ২০২০ নামে একটি প্রস্তাবনা বিভিন্ন গণমাধ্যমে দেওয়া হয়েছে। এ ভাবে কেন্দ্রীয় মন্ত্রক পুরোনো আইনটি সংশোধনের চেষ্টা করছে বলে পরিবেশবাদীরা বলছেন।

তাঁদের বক্তব্য, আইন হিসাবে এই খসড়া কার্যকর হলে পরিবেশ ধ্বংসের কাজ ত্বরান্বিত হবে। তাই এই খসড়া পুরোপুরি বাতিলের দাবি করেছে পরিবেশ সংগঠন ও অন্যান্য সামাজিক সংগঠন। এ নিয়ে লকডাউনের মধ্যেই তারা প্রচার আন্দোলন, গণস্বাক্ষর সংগ্রহ, প্রতিবাদী জমায়েত ইত্যাদি আয়োজন করছে এবং ক্রমশ তা বড়ো প্রতিরোধের রূপ নিচ্ছে।

বড়ো প্রকল্প স্থাপনের আগে এই পরিবেশ প্রভাব জরিপ এড়িয়ে যাওয়ার বিধান প্রস্তাবিত আইনে থাকায় কর্পোরেট সংস্থাগুলি এ দেশেরে জল-জঙ্গল-জমিকে নির্বিচারে লুঠ করবে বলে আশঙ্কা প্রতিবাদীদের।

২৮ জুন রবিবার ফ্রাইডে ফর ফিউচার-এর নৈহাটি শাখার পক্ষ থেকে নৈহাটি স্টেশন চত্বরে প্রতিবাদী জমায়েত করা হয় সকাল ১০টা থেকে ১২টা পর্যন্ত। পোস্টার-ব্যানার নিয়ে যাঁরা সেই জমায়েতে যোগ দিয়েছিলেন তাঁদের বেশির ভাগই বিভিন্ন বিদ্যালয় ও মহাবিদ্যালয়ের ছাত্রছাত্রী। কয়েক জন শিক্ষক-শিক্ষিকাও ওই জমায়েতে যোগ দেন। ‘পরিবেশ প্রভাব জরিপ ২০২০’-এর খসড়াটি সম্পূর্ণ ভাবে অবিলম্বে বাতিলের দাবি ওঠে ওই জমায়েত থেকে।

Continue Reading

দেশ

কেরলে হাতিহত্যা ইচ্ছাকৃত নয়, প্রাথমিক তদন্তের পর বলল কেন্দ্রীয় পরিবেশ মন্ত্রক

খবরঅনলাইন ডেস্ক: ইচ্ছাকৃত নয়, কেরলে (Kerala) হাতিহত্যার ঘটনা দুর্ঘটনাবশত। প্রাথমিক তদন্তের পর এমনই জানিয়েছেন কেন্দ্রীয় পরিবেশ মন্ত্রক (Ministry of Environment)।

প্রথমে শোনা গিয়েছিল, বাজি বোঝাই একটি আনারস খেয়ে ১৫ বছরের ওই হাতিটির মৃত্যু হয়। পরে ময়নাতদন্তে জানা যায়, আনারস নয়, নারকেল খেয়েছিল সে, মৃত্যুর অন্তত দুই সপ্তাহ আগে আহত হয়।

পরিবেশ মন্ত্রক বলেছে, প্রাথমিক তদন্তে জানা গিয়েছে, সম্ভবত ভুল করেই সে বিস্ফোরকঠাসা ফলটি মুখে পুরেছিল।

উল্লেখ্য, কেরলের যে জেলায় এই ঘটনা ঘটেছে, সেই মল্লপুরমের (Mallapuram) চাষিরা বুনো শুয়োর আটকানোর জন্য বেআইনি ভাবে ফলের মধ্যে বিস্ফোরক পুরে রাখে। কেরল সরকারও কিছু দিন আগে দাবি করেছিল যে সম্ভবত দুর্ঘটনাবশত বাজি-ভরতি ওই নারকেল খেয়ে ফেলে হাতিটি। এ বার তাদের সঙ্গেই সহমত হল প্রকাশ জাভড়েকরের মন্ত্রক।

মন্ত্রক জানিয়েছে যে এই বিষয়ে তারা কেরল সরকারের সঙ্গে সারাক্ষণ সম্পর্কে রেখে চলেছে। অপরাধীদের যত দ্রুত সম্ভব গ্রেফতার করা এবং কোনো আধিকারিকের হাত থাকলেও তাঁর বিরুদ্ধে যাতে ব্যবস্থা নেওয়া হয়, সেই দাবিই করেছে পরিবেশ মন্ত্রক। হাতি মৃত্যুর ঘটনায় ইতিমধ্যেই একজনকে গ্রেফতার করেছে কেরল পুলিশ।

এই ঘটনা নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় অনেক ভুয়ো খবর ছড়াচ্ছে। একটা পক্ষের তরফে ঘটনায় ধর্মের রঙও লাগানো হচ্ছে। কিন্তু পরিবেশ দফতরের প্রতিমন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয় (Babul Supriyo) মানুষকে অনুরোধ করেছেন এই ধরনের ভুয়ো খবরে বিশ্বাস না করতে। এমনকি কেরল সরকার এই ঘটনায় সম্পূর্ণ পক্ষপাতহীনভাবে তদন্ত করছে বলে তিনি জানিয়েছেন।

Continue Reading

দেশ

লকডাউনের মধ্যেই গাছ কাটা হয়েছে ব্যাঘ্রপ্রকল্পের কোর এলাকায়, তীব্র চাঞ্চল্য

খবরঅনলাইন ডেস্ক: লকডাউনের (Lockdown) মধ্যেই বেআইনি ভাবে গাছ কাটা হয়েছে মহারাষ্ট্রের নাগজিরা ব্যাঘ্র প্রকল্পের (Nagzira Tiger Reserve) কোর অঞ্চলের একটা বড়ো অংশে। এমনই অভিযোগ করল পিপলস ফর অ্যানিম্যালস (পিএফএ) নামক একটি স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা।

শুধু গাছ কাটাই নয়, ওই সংস্থার আরও অভিযোগ যে কোর এলাকার মধ্যে দিয়ে রাস্তা তৈরির কাজও শুরু হয়েছে।

এই অভিযোগ জানিয়ে পরিবেশকর্মী তথা কেন্দ্রীয় মন্ত্রী মানেকা গান্ধীর (Maneka Gandhi) কাছে চিঠিও দিয়েছেন পিএফএর সম্পাদক সচিন রঙ্গরি। তিনি বলেন, “আমরা জানতে পেরেছি যে নাগজিরা ব্যাঘ্রপ্রকল্পের কোর এলাকায় রাস্তা তৈরির কাজ হচ্ছে। এর জন্য গাছ কেটে বুলডোজার দিয়ে মাটিও খোঁড়া হচ্ছে।”

তাঁর অভিযোগ, কোর এলাকায় অন্তত চারশোটি গাছ কেটে ফেলা হয়েছে। এই অঞ্চলে তিনটে বাঘের বাস। এ ছাড়া অন্তত সাতশো থেকে আটশো হরিণ থাকে ওই অঞ্চলে।

ওই চিঠিতে রঙ্গরি প্রস্তাব দিয়েছেন, “এই কাজ যাঁরা করেছেন, তাঁদের অবিলম্বে সাসপেন্ড করা উচিত। ঘটনার তদন্তের জন্য একটি কমিটি গঠন করা হোক, যে কমিটিতে পিএফএর একজন সদস্যকেও রাখতে হবে।”

যদিও বেআইনি ভাবে গাছ কাটা হয়েছে, এই অভিযোগ মানতে চাননি নাগজিরা ব্যাঘ্রপ্রকল্পের প্রধান সংরক্ষক এবং ফিল্ড ডিরেক্টর। তিনি বলেন, “প্রাথমিক তদন্তে মনে হয়েছে বেআইনি ভাবে কাটা নয়, ঝড়ের কারণেই ওই অঞ্চলে গাছ পড়ে গিয়েছে। তবে পুরো তদন্তটা শেষ হতে সাত থেকে দশ দিন সময় লাগবে। তার পরেই ব্যাপারটা পরিষ্কার হবে।”

Continue Reading
Advertisement

কেনাকাটা

কেনাকাটা2 days ago

হ্যান্ডওয়াশ কিনবেন? নামী ব্র্যান্ডগুলিতে ৩৮% ছাড় দিচ্ছে অ্যামাজন

খবরঅনলাইন ডেস্ক : করোনাভাইরাস বা কোভিড ১৯ এর সঙ্গে লড়াই এখনও জারি আছে। তাই অবশ্যই চাই মাস্ক, স্যানিটাইজার ও হ্যান্ডওয়াশ।...

কেনাকাটা5 days ago

ঘরের একঘেয়েমি আর ভালো লাগছে না? ঘরে বসেই ঘরের দেওয়ালকে বানান অন্য রকম

খবরঅনলাইন ডেস্ক : একে লকডাউন তার ওপর ঘরে থাকার একঘেয়েমি। মনটাকে বিষাদে ভরিয়ে দিচ্ছে। ঘরের রদবদল করুন। জিনিসপত্র এ-দিক থেকে...

কেনাকাটা7 days ago

বাচ্চার জন্য মাস্ক খুঁজছেন? এগুলোর মধ্যে একটা আপনার পছন্দ হবেই

খবরঅনলাইন ডেস্ক : নিউ নর্মালে মাস্ক পরাটাই দস্তুর। তা সে ছোটো হোক বা বড়ো। বিরক্ত লাগলেও বড়োরা নিজেরাই নিজেদেরকে বোঝায়।...

কেনাকাটা1 week ago

রান্নাঘরের টুকিটাকি প্রয়োজনে এই ১০টি সামগ্রী খুবই কাজের

খবরঅনলাইন ডেস্ক : লকডাউনের মধ্যে আনলক হলেও খুব দরকার ছাড়া বাইরে না বেরোনোই ভালো। আর বাইরে বেরোলেও নিউ নর্মালের সব...

নজরে