গ্লোবাল ওয়ার্মিং-এর অর্থাৎ বিশ্ব জুড়ে উষ্ণায়ণের ফলে গত কয়েক বছর ধরেই ক্রমশ বাড়ছে পৃথিবীর গড় তাপমাত্রা। ওয়ার্ল্ড মেটেরোলজিক্যাল অর্গানাইজেশনের পক্ষ থেকে নভেম্বরের মাঝামাঝি জানানো হয়েছিল, এটাই উত্তর মেরুর উষ্ণতম শীত। সম্প্রতি ন্যাশনাল স্নো অ্যান্ড আইস ডেটা সেন্টার (এনএসআইডিসি) প্রকাশ করল আরও একটি ভয়াবহ তথ্য। গত মাসে উত্তর এবং দক্ষিণ মেরুর গলে যাওয়া বরফের পরিমাণ প্রায় গোটা ভারতবর্ষের আয়তনের সমান।

এনএসআইডিসি-র হিসেব বলছে, মেরু প্রদেশের সমুদ্রের বরফের পরিমাণ এখন স্বাভাবিকের চেয়ে সাড়ে আটত্রিশ লক্ষ বর্গ কিলোমিটার কম। ২০১৬ সালে উত্তর মেরুর গড় তাপমাত্রাও স্বাভাবিকের চেয়ে ২০ ডিগ্রি সেলসিয়াস ওপরে। পরিবেশবিদরা মনে করছেন, এখন নিষিদ্ধ করা হলেও একটা সময় প্রচুর পরিমাণে রাসায়নিকের ব্যবহারের ফলে, ওই অঞ্চলের ওজোন স্তর নষ্ট হয়ে যায়। সার্বিক তাপমাত্রার বৃদ্ধি হয়তো তারই ফল।


ব্রিটিশ অ্যান্টার্কটিক সারভে-র পক্ষ থেকে জন টারনার জানিয়েছেন, জীবাশ্ম জ্বালানির ব্যবহার বন্ধ না করলে তাপমাত্রা বৃদ্ধির হার কমানো যাবে না। পরিস্থিতি কী হবে, তার অনেকটাই নির্ভর করেছে ভাবী মার্কিন প্রেসিডেন্টের মর্জির ওপর। প্যারিস জলবায়ু চুক্তির শর্ত তিনি কতটা মানবেন, আদৌ মানবেন কিনা সেটাই দেখার।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here