Jessore Road
প্রতীকী ছবি

ওয়েবডেস্ক: ওভারব্রিজ নির্মাণের তাগিদে যশোহর রোডের গাছ কাটা সংক্রান্ত কলকাতা হাইকোর্টের শর্তসাপেক্ষ অনুমতির উপর অনির্দিষ্টকালের স্থগিতাদেশ দিল সুপ্রিম কোর্ট। বৃহস্পতিবার সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি এম বি লকুড় ও বিচারপতি দীপক গুপ্তের ডিভিশন বেঞ্চে এই নির্দেশ দেয়।

উত্তর ২৪ পরগনায় ৩৫ নাম্বার জাতীয় সড়কে পাঁচটি ওভারব্রিজ তৈরির পরিকল্পনা নিয়েছে রাজ্য সরকার। আপাতত স্থির হয়েছে বারাসত ও বনগাঁর মাঝামাঝি স্থানে ওই পাঁচটি ওভারব্রিজ নির্মাণ হবে। কিন্তু এই পরিকল্পনা বাস্তবায়িত করতে হলে ৩৬৫টি গাছ কাটার প্রয়োজন পড়বে। এ ভাবে ওভারব্রিজ তৈরির তাগিদে বহু বছরের পুরনো গাছগুলিকে কেটে ফেলার সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে সরব হয়েছেন স্থানীয় মানুষ এবং এপিডিআর-সহ আরও বেশ কয়েকটি মানবাধিকার সংগঠন। তাদের তরফে কলকাতা হাইকোর্টে দায়ের হয় জনস্বার্থ মামলা। গত মাসে সেই মামলার শুনানিতে হাইকোর্ট জানায়, উন্নয়ন মূলক কাজের তাগিদে গাছ কাটা সম্ভব , তবে তা শর্তসাপেক্ষ।

হাইকোর্টের তরফে রাজ্য সরকারকে নির্দেশ দেওয়া হয়, ওভারব্রিজ তৈরির কাজে যে সংখ্যক গাছ কাটা পড়বে, ঠিক তার পাঁচগুণ গাছ লাগাতে হবে। অর্থাৎ, প্রতি একটি গাছ কাটা পড়লে নতুন পাঁচটি গাছ লাগাতে হবে।

যদিও হাইকোর্টের এহেন নির্দেশের পরই নিজেদের আশাহত উল্লেখ করে সুপ্রিম কোর্টে যাওয়ার চিন্তাভাবনা শুরু করেন মানবাধিকার সংগঠনগুলি। গাছ লাগানো ভালো, কিন্তু কোনো একটি শতাব্দীপ্রাচীন স্মৃতিবিজড়িত গাছ কাটার বিরু্দ্ধে তারা হাইকোর্টের এমন নির্দেশকে চ্যালেঞ্জ করে দ্বারস্থ হয় সুপ্রিম কোর্টের। বৃহস্পতিবার দেশের সর্বোচ্চ আদালত ওই মামলার শুনানিতে হাইকোর্টের অনুমতির উপর স্থগিতাদেশ জারি করে।


আরও পড়ুন: সেতুতে ফাটল? ছবি-সহ হোয়াটসঅ্যাপ করুন এই নাম্বারে

উল্লেখ্য, যশোহর রোডের দু’পাশে রয়েছে রেইনট্রি, মেহগনি, বাবলা, খয়ের, কড়ই, আকাশমণি, বট, শিশু, ঝাউ, আম, কাঁঠাল, সেগুন, শিমুল ও দেবদারু-সহ অসংখ্য গাছ।। এর মধ্যে অনেকেরই বয়স কয়েকশো বছর।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন