প্যারিস চুক্তি নিয়ে ট্রাম্পের অবস্থানে ক্ষতি হবে বিশ্বের, বললেন স্টিফেন হকিং

0
1365
stephen hawkins passes away

কেমব্রিজ: মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের প্যারিস জলবায়ু চুক্তি থেকে বেরিয়ে আসার সিদ্ধান্তের সমালোচনা করলেন প্রবাদপ্রতিম বিজ্ঞানী স্টিফেন হকিং। তাঁর মতে, এর ফলে বিশ্বের জলবায়ু পরিবর্তনের সমস্যা এমন জায়গায় পৌঁছোবে যেখান থেকে আর ফিরে আসা সম্ভব নয়।

৭৫তম জন্মদিন পালন উপলক্ষে কেমব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়ে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে বিবিসিকে একটি সাক্ষাৎকার দেন এই বিজ্ঞানী। সেখানে তিনি বলেন, ট্রাম্পের এই সিদ্ধান্তের ফলে পৃথিবী কোনো একদিন শুক্রের মতো গরম গ্রহে পরিণত হয়ে যাবে।

ওই সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, “আমরা জলবায়ু পরিবর্তনের চরম পর্যায় এসে পৌঁছেছি। এই পর্যায় অতিক্রম করলে সেখান থেকে ফিরে আসা সম্ভব নয়। ট্রাম্পের এমন ধ্বংসাত্মক সিদ্ধান্ত পৃথিবীকে আরেকটি শুক্র গ্রহে রূপান্তরিত করতে পারে, যেখানে তাপমাত্রা উঠে যাবে দুশো পঞ্চাশ ডিগ্রিতে এবং শুধু সালফিউরিক অ্যাসিডের বৃষ্টি হবে।”

জলবায়ু পরিবর্তনকে এই মুহূর্তের বিশ্বের সব থেকে বড়ো বিপদ বলে হুশিয়ারি দেন হকিং। তাঁর কথায়, “জলবায়ু পরিবর্তন এই মুহূর্তে আমাদের অন্যতম বড়ো বিপদ। এখনই কার্যকর পদক্ষেপ নিলে আমরা এর ক্ষতি রোধ করতে পারি।” ট্রাম্পের উদ্দেশে তিনি বলেন, “জলবায়ু পরিবর্তনের প্রমাণ অস্বীকার করে এবং প্যারিস জলবায়ু চুক্তি থেকে নিজেদের প্রত্যাহার করে ডোনাল্ড ট্রাম্প পরিবেশের ক্ষতি তো করছেনই, তার সঙ্গে আমাদের ভবিষ্যত প্রজন্মের জন্য সুন্দর পৃথিবীটাকে বিপজ্জনক করে তুলেছেন।”

এ দিকে পৃথিবীতে তাপমাত্রা বৃদ্ধির হার এবং জলবায়ু পরিবর্তনের সম্ভাব্য ঝুঁকির কথা তুলে ধরা হয়েছে জলবায়ু বিষয়ক আলোচকদের নিয়ে তৈরি রাষ্ট্রপুঞ্জের প্যানেল আইপিসিসিতে। জলবায়ু পরিবর্তন নিয়ে প্রকাশিত তাদের পঞ্চম মূল্যায়ন রিপোর্টে আইপিসিসির লেখকরা বলেছেন, “জলবায়ু পরিবর্তনের সুনির্দিষ্ট মাত্রাটি (অচলাবস্থান বা অপরিবর্তনীয় অবস্থার সর্বোচ্চ মান) এখনও নিশ্চিত করা যায়নি। কিন্তু মনুষ্য এবং প্রাকৃতিক কারণে পৃথিবীর তাপমাত্রা ক্রমে বৃদ্ধি পাচ্ছে এবং একটা অচলাবস্থার দিকে যাচ্ছে।”

পরিবেশগত সমস্যা ও মানুষের মধ্যে সংঘাতের সমস্যার কি কোনো দিনও সমাধান হবে? এই প্রশ্ন করা হলে হকিং বলেন, “আমার মনে হয়, বিবর্তন মানুষের মনে লোভ এবং হিংসা জাগিয়ে তুলছে। সংঘাত কমার কোনো লক্ষণ নেই। যুদ্ধক্ষেত্রে প্রযুক্তির বিকাশ এবং মারাত্মক অস্ত্রগুলো মানুষের জন্য ধ্বংসাত্মক হতে পারে যে কোনো সময়।” মানুষের বেঁচে থাকার সহজ উপায় হল ছড়িয়ে ছিটিয়ে মহাকাশে স্বাধীন ভাবে উপনিবেশ তৈরি করা, এমনই মত পোষণ করেন হকিং।

এক ক্লিকে মনের মানুষ,খবর অনলাইন পাত্রপাত্রীর খোঁজ

মতামত দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here