ocean

ওয়াশিংটন: আগে যা ধারণা করা হয়েছিল তার থেকে অনেক বেশি পরিমাণে বাড়ছে মহাসাগরের উষ্ণতা – বলছে একটি নতুন গবেষণা। সম্প্রতি সায়েন্স পত্রিকায় প্রকাশিত তথ্য থেকে জানা গিয়েছে ১৯৫০ সালের পর থেকে সমুদ্রের তাপমাত্রা ক্রমশ বাড়ছে। ১৯৬০ সালের পর থেকে উষ্ণতা বাড়ার হার আরও বেড়েছে। ২০১৪ সালের রাষ্ট্রপুঞ্জের রিপোর্টে যা বলা হয়েছিল তার থেকেও দ্রুত বাড়ছে মহাসাগরের তাপমাত্রা।

এই গবেষণাটি করতে গিয়ে নতুন ধরনের উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন প্রযুক্তি ব্যবহার করা হয়েছে। তাতে পৃথিবীময় সমুদ্রের তাপমাত্রা আর লবণাক্ততা মেপে চলেছে প্রায় তিন হাজার স্বয়ংক্রিয় যন্ত্র।

গবেষণার স্বার্থে গবেষকরা আগের বিভিন্ন তথ্যের সঙ্গে এই বারে প্রাপ্ত তথ্যের তুলনামূলক বিচার করেছেন।

বিশ্ব উষ্ণায়ণ আর তাপমাত্রার পরিবর্তনের ক্ষেত্রে বড়ো প্রভাব পড়ে মহাসাগরের ওপরে। সেখানে বরফ গলার পরিমাণ বাড়ে। ফলে বদলে যায় পারিপার্শ্বিক অনেক কিছুই। পৃথিবী ভারসাম্য হারায়, বলেন গবেষক কেভিন ট্রেনব্রিথ। তিনি ‘ইউএস ন্যাশনাল সেন্টার ফর অ্যাটমোসফিয়ারিক রিসার্চে’র ‘ক্ল্যাইমেট অ্যানালিসিস সেকশনে’র অন্যতম গবেষক।

আরও পড়ুন – ২০২১ সালের মধ্যেই মহাকাশচারী পাঠাবে ভারত, জানালেন ইসরো চেয়ারম্যান

তিনি বলেন, বিশ্ব উষ্ণায়ণের সঙ্গে মহাসাগর উষ্ণায়ণের একটি সংযোগ রয়েছে। ২০১৮ সাল হল সর্বাপেক্ষা গরম একটি বছর। ২০১৭ রয়েছে তার পর, আর তার পর রয়েছে ২০১৫ সালের উষ্ণতার রেকর্ড।

উষ্ণতা বাড়ার ফলে সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা বাড়ছে, হঠাৎ হঠাৎ জলস্ফীতি আর বন্যার সৃষ্টি হচ্ছে, তার সঙ্গে হ্যারিকেনের মতো বড়ো ধরনের ঝড়বৃষ্টি। সমুদ্রের গরম হয়ে ওঠার ফলে বাড়ে বৃষ্টিপাতের পরিমাণও। এর পাশাপাশি গলে যাচ্ছে বরফ। ফলে বিপন্ন হয়ে পড়ছে পেঙ্গুইন, সাদা ভাল্লুকের জীবনযাত্রা।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here