ওয়েবডেস্ক: বোস্টনের জীব্বিদ্যার এক অধ্যাপক ড্যানিয়েল স্নেইডার সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করেন ছবিটি। ক্রমশ ভাইরাল হতে থাকা ছবি থেকেই বিশ্ববাসী জানল এটি পৃথিবীর শেষতম পুরুষ শ্বেত গণ্ডার। এর আয়ুকাল শেষ হলেই বিলুপ্ত হয়ে যাবে একটা গোটা প্রজাতি। স্ত্রী শ্বেত গণ্ডারের সঙ্গে একাধিকবার সঙ্গমে লিপ্ত হওয়ার পরেও শাবকের জন্ম দিতে পারেনি ৪৪ বছরের সুদান।

কেনিয়ার এক সংরক্ষণাগারে বৈজ্ঞানিক উপায়ে সন্তানের জন্ম দেওয়ার চেষ্টা হয়েছিল। ব্যর্থ হয় সব চেষ্টা। আপাতত আইভিএফ  প্রযুক্তির সাহায্যে শ্বেত গণ্ডারের প্রজাতিকে বাঁচিয়ে রাখার চেষ্টা করছেন বিজ্ঞানীরা।

২০০৯ সালে জাহাজে চেপে আরও কয়েক সঙ্গীকে নিয়ে চেক প্রজাতন্ত্র থেকে কেনিয়া পাড়ি দিয়েছিল সুদান। জীববিজ্ঞানীরা আশা করেছিলেন আফ্রিকার মাটি সুদানদের বংশবৃদ্ধির পক্ষে সহায়ক হবে। বাস্তবে তা হয়নি। পৃথিবীর মাটি থেকে হারিয়ে যেতে বসেছে সুদান আর সুদানের মতো কত কত প্রজাতি। অদূর ভবিষ্যতে অন্য কোনও প্রজাতির সুদানরাও হয়তো এ ভাবেই বিলুপ্ত হয়ে যাবে, চোখের সামনেই। সভ্যতার এ কোন মোড়ে দাঁড়িয়ে আমরা, যেখানে আমাদের সহজীবীদের বিলুপ্তির সাক্ষী থাকছি নীরব দর্শক হয়ে?

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here