ganet bird passes away

ওয়েবডেস্ক: ৮০টা পাথরের গ্যানেট পাখির মধ্যে নাইজেলই একমাত্র গ্যানেট যার প্রাণ ছিল। নিউজিল্যান্ডের মানা দ্বীপে ৮০ জনের মধ্যে থাকত সে। সেই নাইজেলের আকস্মিক মৃত্যু হল। ৮০ জনের মধ্যে যাকে সে ভালোবাসত তার পাশেই মৃত্যু হল নাইজেলের।

ব্যাপারটা একটু খুলে বলা যাক।

সত্তরের দশকের পর থেকে নিউজিল্যান্ডের মানা দ্বীপে গ্যানেট পাখির আগমন বন্ধ হয়ে গিয়েছিল। কিন্তু ওই দ্বীপে গ্যানেটদের একটি কলোনি করতে চেয়েছিল বনদফতর। আসল গ্যানেটদের দ্বীপে নিয়ে আসার জন্য ওই দ্বীপে বসানো হয়েছিল গ্যানেটের ৮০টি পাথরের মূর্তি। সেই সঙ্গে বিভিন্ন জায়গায় সাউন্ডবক্সে গ্যানেটদের আওয়াজ চালানো হত। এই আওয়াজের প্রলুব্ধ হয়ে বনদফতরের আমন্ত্রণ স্বীকার করে পাঁচ বছর আগে মানা দ্বীপে হাজির হয়েছিল নাইজেল। কিন্তু তার কোনো ভাই বা বোন আসেনি। ৮০টা পাথরের গ্যানেটের সঙ্গে একটি আসল গ্যানেট থাকতে শুরু করে।

ganet bird passes away
প্রেমিকার সঙ্গে নাইজেল

এরই মধ্যে একটি মূর্তিকে নিজের প্মিরেকা বানিয়ে ফেলে নাইজেল। ওর সঙ্গেই দিন কাটাত সে। একজন আসল এবং নকর পাখির মধ্যে কী কথা হত সেটা তো কখনই বলা যাবে না, কিন্তু নাইজেল যে তার প্রেমিকার সঙ্গে বেশ আনন্দেই থাকত তেমনটাই জানিয়েছেন বনদফতরের আধিকারিকরা। তবে ওই কলোনির পাহারাদারদের সঙ্গে বেশ ভাব জমিয়ে ফেলেছিল নাইজেল।

গত মাসে তিনটে গ্যানেট পাখির আগমন ঘটেছে মানা দ্বীপে। কিন্তু নিজের ভালোবাসাকে ছেড়ে নাইজেল ওই তিনজনের প্রতি কোনোভাবেই আকর্ষিত হয়নি। নাইজেলের মৃত্যুতে শোকাহত ওই কলোনির পাহারদাররা। পাঁচ বছর আগে তাঁদের আমন্ত্রণে নাইজেল এসেছিল বলে, নাইজেলকে অসংখ্য ধন্যবাদ জানিয়েছেন তাঁরা।

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন