Connect with us

কলকাতা

ঐতিহ্যের হৈমন্তীপর্ব: বটকৃষ্ণ পাল পরিবারের জগদ্ধাত্রীপুজোর ১২১ বছর

পাল পরিবারের জগদ্ধাত্রী প্রতিমার বিশেষত্ব হল, বাহন সিংহের পিঠে মা দু’ পা মুড়ে বাবু হয়ে বসে আছেন। মায়ের সঙ্গে রয়েছেন তাঁর চার সখী।

Published

on

পালবাড়িতে জগদ্ধাত্রী পুজো।

শুভদীপ রায় চৌধুরী

কলকাতার বেনিয়াটোলা স্ট্রিটে পাল পরিবারের জগদ্ধাত্রীপুজো ১২১ বছরে পড়ল। ১৩০৭ বঙ্গাব্দে তথা ১৯০০ খ্রিস্টাব্দে এই পুজো শুরু করেছিলেন এই পরিবারের বিখ্যাত মানুষ বটকৃষ্ণ পাল।      

Loading videos...

পাল পরিবারের আদি নিবাস হাওড়া শিবপুরে। ১৮৩৫ খ্রিস্টাব্দে বটকৃষ্ণ পাল সেখানে জন্মগ্রহণ করেন। পরবর্তী কালের প্রথিতযশা এই পুরুষটি ১২ বছর বয়সে কলকাতায় মামার বাড়িতে চলে আসেন। একটু বড়ো হয়ে ব্যবসা শুরু করেন। কালক্রমে সেই ব্যবসা বৃহৎ মহীরুহের আকার ধারণ করে। প্রখ্যাত ওষুধ ব্যবসায়ী ও প্রস্তুতকারক হিসাবে তাঁর নাম ও যশ দিকে দিকে ছড়িয়ে পড়ে। তিনি প্রতিষ্ঠা করেন ‘বটকৃষ্ণ পাল অ্যান্ড কোং’।

পালবাড়িতে চলছে পুজোর আয়োজন।

বটকৃষ্ণ পাল মহাশয় ১৮৯৩ খ্রিস্টাব্দে ৭৭ বেনিয়াটোলা স্ট্রিটে জমি কিনে তাঁর সুবৃহৎ বসতবাড়ি নির্মাণ করেন। ওই বাড়িতে এক সুরম্য সুন্দর কারুকার্যখচিত ঠাকুরদালান তৈরি করেন। এই ঠাকুরদালানেই ১৩০৭ বঙ্গাব্দে মহাসমারোহে জগদ্ধাত্রীমাতার পুজো শুরু হয়।

এই পুজো করার আগে শিবপুরে বটকৃষ্ণ পালের পরিবারে অভয়া দুর্গামাতার পুজো হত। বটকৃষ্ণবাবুর ইচ্ছা ছিল বেনিয়াটোলার বসতবাড়িতে শিবপুরের অভয়া মায়েরই পুজো করার। কিন্তু তাঁর উত্তরপুরুষদের মুখে জানা যায়, বটকৃষ্ণ পালের স্ত্রীকে মা স্বপ্নাদেশে জানান, তিনি শিবপুরের আদি বাড়িতেই পুজো পেতে চান এবং আদেশ করেন বেনিয়াটোলার বাড়িতে মা দুর্গার আরও এক রূপ পদ্মাসীনা জগদ্ধাত্রীর পুজো করতে।

মায়ের আদেশে বটকৃষ্ণ পাল মহাশয় আজীবন ৭৭ বেনিয়াটোলা স্ট্রিটের বসতবাড়িতে জগদ্ধাত্রীপুজো করে গেছেন। পরবর্তী প্রজন্মও নিষ্ঠাভরে সেই ঐতিহ্য ধরে রেখে পুজো করে আসছে। এ বছর এই পুজো ১২১ বছরে পদার্পণ করল।

পাল পরিবারের জগদ্ধাত্রী প্রতিমার বিশেষত্ব হল, বাহন সিংহের পিঠে মা দু’ পা মুড়ে বাবু হয়ে বসে আছেন। মায়ের সঙ্গে রয়েছেন তাঁর চার সখী। মাকে স্বর্ণালংকারে ভূষিত করা হয়। মায়ের সাজসজ্জা আগে ঢাকা থেকে শিল্পী এনে তৈরি করানো হত। এখন কলকাতার শিল্পীরাই তৈরি করেন। আকন্দ তুলোর ছোটো ছোটো আঁশ বের করে মায়ের বাহন সিংহের সর্বাঙ্গে আঠা দিয়ে গায়ের লোম হিসাবে লাগানো হয়, যা শৈল্পিক সুষমামণ্ডিত। ঠাকুরের পিছনে থাকে ধাতুনির্মিত বাহারি পাতা ও দৃষ্টিনন্দন ফল-শোভিত এক অনন্য চালচিত্র।

চার সখী পরিবৃতা মা জগদ্ধাত্রী সিংহের পিঠে দু’ পা মুড়ে বাবু হয়ে বসে।

দিনে তিন বার পুজো ছাড়াও হয় সন্ধিপুজো। তাতে আধ মণ চালের নৈবেদ্য, গোটা ফল, ১০৮ পদ্ম ও প্রদীপ নিবেদন করা হয়। দেবীর নিরঞ্জনের সময় লরিতে চৌকির ওপর চালচিত্র সমেত সখী-সহ মাকে অধিষ্ঠিত করা হয়। বিসর্জনের সময় শোভাযাত্রা আরও এক ঐতিহ্য। এই ভাবে পালবাড়িতে প্রাচীন ধারামতেই আজও পুজো পেয়ে আসছেন মা জগদ্ধাত্রী ।

তবে এ বছর করোনা ভাইরাসের কারণে সাধারণ দর্শনার্থী থেকে শুরু করে আত্মীয়স্বজনকেও আমন্ত্রণ জানানো হচ্ছে না। এ বছর দেবীপ্রতিমার উচ্চতাও কমানো হচ্ছে বলে জানিয়েছেন পরিবারের সদস্য অভিরূপ পাল। এমনকি কুমারীপুজোয় যিনি সংকল্প করবেন তিনিই কেবলমাত্র পুজোর নিয়ম পালন করবেন।

ঠাকুরদালানে দূরত্ববিধি মেনে চলতে হবে এবং মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক। মহামারির কারণে এ বছর সিঁদুরখেলা ও দশমীর শোভাযাত্রা বন্ধ থাকছে। মায়ের পুজোর সামগ্রী এবং ফুল-সহ সমস্ত দ্রব্য জীবাণুমুক্ত করা হবে। তবে সব প্রাচীন রীতিনীতি মেনেই পুজোর আয়োজন করা হবে জানিয়েছেন পালবাড়ির সদস্যরা।

খবরঅনলাইনে আরও পড়ুন

ঐতিহ্যের হৈমন্তীপর্ব: শান্তিপুরের ব্রহ্মচারী পরিবারের সোয়া শ’ বছরের জগদ্ধাত্রীপুজো

কলকাতা

Bengal Polls 2021: মঙ্গলবার নিজাম প্যালেসে যাচ্ছেন না, সিবিআইয়ের কাছে আরও কিছুদিন সময় চাইলেন অনুব্রত মণ্ডল

ভোট না কি শরীর খারাপ? কী কারণে হাজিরা এড়ালেন অনুব্রত?

Published

on

খবরঅনলাইন ডেস্ক: গরু পাচার-কাণ্ডে বীরভূমের তৃণমূল সভাপতি অনুব্রত মণ্ডলকে সিবিআই তলব করলেও, মঙ্গলবার তিনি নিজাম প্যালেসে হাজিরা দিচ্ছেন না। কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থার থেকে আরও কিছুদিনের জন্য তিনি সময় চেয়েছেন বলে জানা গিয়েছে।

অনুব্রতবাবুর ঘনিষ্ঠ মহল সূত্রে খবর, কোভিডের সংক্রমণ বৃদ্ধি পাওয়ায় আপাতত বাইরে যেতে ভয় পাচ্ছেন তিনি। তাঁর শরীরও খুব একটা ভালো যাচ্ছে না বলে জানানো হয়েছে দলের তরফে।

Loading videos...

তবে অন্য একটি মহলের ধারণা অনুব্রতবাবুর নিজাম প্যালেসে না যাওয়ার সিদ্ধান্তের পেছনে দলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নির্দেশ থাকতে পারে। সোমবারই মিনার্ভা থিয়েটারের সভায় মমতা অনুব্রতকে যেতে নিষেধ করেন। তিনি বলেন, ‘‘২৯-এ ওদের ওখানে ভোট। আমি বলে দিয়েছি, একদম যাবি না। স্ট্রেট বলবি, ইলেকশন প্রসিডিউর ওভার হবে। তার পর যাব।’’ সেই কারণেই হয়তো নিজাম প্যালেসে হাজিরা এড়ালেন কেষ্ট।

এর আগে, শুক্রবার আয় বহির্ভূত সম্পত্তি মামলায় অনুব্রতকে নোটিস ধরায় আয়কর দফতর। নোটিস পাঠানো হয় তাঁর কয়েক জন আত্মীয়কেও। আয়কর দফতরের আধিকারিকদের অভিযোগ, আসানসোল, পুরুলিয়া এবং বাঁকুড়ায় হিসেব বহির্ভূত সম্পত্তি রয়েছে অনুব্রতর। এর পরেই কেষ্টকে তলব করে সিবিআই।

আরও পড়তে পারেন Bengal Polls 2021: শীতলকুচির সেই বুথে ভোট বৃহস্পতিবার

Continue Reading

কলকাতা

Bengal Polls 2021: ‘নোটা’য় ভোট দেওয়ার সিদ্ধান্ত কলকাতার বাড়িওয়ালা সংগঠনের

বঞ্চনার জবাব দিতে নোটা চিহ্নে ভোট দেওয়ার সিদ্ধান্ত।

Published

on

শৈবাল বিশ্বাস      

কলকাতার বাড়িওয়ালা সংগঠন দ্য ক্যালকাটা হাউস ওনার্স অ্যাসোসিয়েশন এ বার বঞ্চনার জবাব দিতে নোটা চিহ্নে ভোট দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক সুকুমার রক্ষিত জানিয়েছেন, রেন্ট কন্ট্রোল দফতরে কলকাতার বাড়িওয়ালাদের ৪০০ কোটি টাকা আটকে রয়েছে। বারবার চেয়েও এই টাকা পাওয়া যাচ্ছে না। নানা অজুহাতে বাড়িওয়ালাকে ঘোরানো হচ্ছে। অথচ কলকাতা হাইকোর্টের মাননীয় রেজিস্ট্রার এক নোটিফিকেশনে বলেছিলেন, রেন্ট কন্ট্রোল নয়, বিতর্কিত ভাড়া জমা দিতে হবে বাড়িওয়ালাদের ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে। রেন্ট কন্ট্রোলে জমা দেওয়া যাবে না। এই নির্দেশ সত্ত্বেও রাজ্য সরকার রেন্ট কন্ট্রোল বাতিল করেননি। এর প্রতিবাদ হওয়া প্রয়োজন।

Loading videos...

জোর করে কলকাতায় ইউনিট এরিয়া অ্যাসেসমেন্ট চালু করা হয়েছে। এর ফলে পুরোনো বাড়ির মালিকরা সংকটে পড়েছেন। এই আইন অনুযায়ী, বাড়ির মূল্যায়ন করা হবে তার অবস্থান এবং এলাকা বিচার করে। এ ভাবে কর নির্ধারণ করলে বহু পুরোনো বাড়ির ট্যাক্স চার-পাঁচশো গুণ বেড়ে যাবে। ফলে কলকাতার মধ্যবিত্ত বাড়িওয়ালারা বাড়ি বিক্রি করে দিতে বাধ্য হবেন। বারবার এই নিয়ে রাজ্য সরকার ও পুরসভার কাছে দরবার করা সত্ত্বেও সমস্যার সুরাহা হয়নি। প্রোমোটারের করাল গ্রাস থেকে পুরোনো বাড়ি রক্ষা করা যাচ্ছে না।

শুধু তা-ই নয়, পুরোনো বাড়ির ভাড়া বাড়ানোরও কোনো উপায় নেই। ১৯৯৭ সালের প্রেমিসেস টেনেন্সি অ্যাক্টে বলা হয়েছিল, পর্যায়ক্রমে পরিস্থিতি বিচার করে সরকার ভাড়া বৃদ্ধির হার ঘোষণা করবে। বছরের পর বছর কেটে গেলেও ভাড়া বৃদ্ধি হয়নি।

অন্য দিকে, বাড়ির মালিককে সম্পূর্ণ বঞ্চিত করে তা প্রোমোটারদের হাতে তুলে দেওয়ার ব্যবস্থা হচ্ছে সরকারি মদতে। মুখ্যমন্ত্রী ঘোষণা করেছিলেন, জরাজীর্ণ বাড়ির মালিক বাড়ি সারাতে না পারলে তা সরকার অধিগ্রহণ করে প্রোমোটারদের হাতে তুলে দেবে। বাড়িওয়ালা পাবে শুধুমাত্র বসবাসের অধিকার। মুখ্যমন্ত্রীর ইচ্ছেকে মর্যাদা দিতে কলকাতা পুরসভা আইনের প্রয়োজনীয় সংশোধনও করিয়ে নিয়েছে।

সুকুমারবাবুর বক্তব্য, বস্তাপচা বাড়িভাড়া আইনের জন্য বাড়িওয়ালারা ভাড়া বাড়াতে পারেন না। তারা মেরামতের জন্য কোনো আলাদা টাকাও ভাড়াটিয়ার কাছ থেকে আদায় করতে পারেন না। এই পরিস্থিতিতে বাড়ির সংস্কার হবে কী করে? সংবিধানের তোয়াক্কা না করে ব্যক্তিসম্পত্তি নিয়ে ছেলেখেলা করলে অজস্র মামলায় সরকার জেরবার হয়ে যাবে। এই পরিস্থিতির হাত থেকে উদ্ধার পেতে সরকারের উচিত ছিল সহজ শর্তে বাড়িওয়ালাকে ঋণের ব্যবস্থা করে দেওয়ার।

নির্বাচন কমিশন বারবার সতর্ক করে দেওয়া সত্ত্বেও দেওয়ালে লেখা কোনো রাজনৈতিক দলই বন্ধ করছে না। বাড়িওয়ালার অনুমতিরও তোয়াক্কা করছে না। এই পরিস্থিতিতে নোটা ভোটের মাধ্যমে বাড়িওয়ালারা প্রতিবাদ জানানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

Continue Reading

কলকাতা

Weather Update: কালবৈশাখী এল কলকাতায়, কিন্তু মন ভরল না দক্ষিণের

বৃহস্পতিবারও ঝড়বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে।

Published

on

thunderstorm in kolkata

খবরঅনলাইন ডেস্ক: চলতি মরশুমে প্রথম বার পুরোদমে একটি কালবৈশাখী ঝড় হানা দিল কলকাতা শহরে। মাঝারি বৃষ্টি দিল সে। আবহাওয়া ঠান্ডাও করল। কিন্তু মধ্যে এবং উত্তর কলকাতাতেই তার দাপট বেশি ছিল। দক্ষিণ শহরতলিতে মন ভরাতে পারেনি সে।

বুধবার রাতে এই ঝড়ের কারণে যখন কলকাতার অধিকাংশ এলাকার মানুষ হাঁফ ছেড়ে বেঁচেছেন, তখন যাদবপুর, গড়িয়া, পাটুলির বাসিন্দারা হাপিত্যেশ করেছেন। একটু ঠান্ডা হাওয়া এবং মেঘের গর্জন ছাড়া বেশি কিছুই জোটেনি তাঁদের জন্য। অবশ্য বৃহস্পতিবারও ঝড়বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে।

Loading videos...

ঝাড়খণ্ডে তৈরি হওয়া বজ্রগর্ভ মেঘপুঞ্জ রাজ্যের পশ্চিমাঞ্চলের পাশাপাশি মুর্শিদাবাদ, মালদায় ব্যাপক ঝড়বৃষ্টি নামিয়ে বুধবার রাত ১০টা নাগাদ পৌঁছে যায় কলকাতায়। সারা দিন প্রবল গরমে হাপিত্যেশ করা কলকাতাবাসীর মনে তখন কিছুটা শান্তি আসতে শুরু করে। প্রথম দমকা হাওয়া দিয়ে শুরু, তার পর নামে স্বস্তির বৃষ্টি।

আলিপুরের রেকর্ডই জানিয়ে দিচ্ছে যে মোটামুটি ভালোই বৃষ্টি পেয়েছে কলকাতা। বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ৮টা পর্যন্ত গত ২৪ ঘণ্টায় এখানে বৃষ্টি হয়েছে ১২ মিলিমিটার। তবে বুধবারের ঝড়বৃষ্টির ব্যাপক প্রভাব পড়েছিল বাঁকুড়ায়। সেখানে বৃষ্টি হয়েছে ৪০ মিলিমিটারেরও বেশি। এপ্রিলে মাত্র কয়েক ঘণ্টায় ৪০ মিলিমিটার বৃষ্টি হওয়া কম কথা নয়।

এ ছাড়াও, দক্ষিণবঙ্গের প্রায় সর্বত্র বৃষ্টি হয়েছে মোটামুটি ভালোই। বৃহস্পতিবারও সকাল থেকে দক্ষিণবঙ্গের আকাশ জুড়ে মেঘের আনাগোনা। অনেক জায়গায় ফের ঝড়বৃষ্টি শুরু হয়েছে। দুপুরের দিকে কলকাতার ভাগ্য কিছু জোটে কী না, সেটাই দেখার।

খবরঅনলাইনে আরও পড়তে পারেন

Coronavirus Second Wave: সংক্রমণ থিতু হলেও কমার লক্ষ্মণ এখনও নেই, কড়াকড়ি আরও বাড়াল মহারাষ্ট্র

Continue Reading
Advertisement
Advertisement
বাংলাদেশ1 hour ago

Bangladesh Covid Vacination: টিকা ট্রায়ালে চিন অর্থ চাওয়ায় রাজি হয়নি বাংলাদেশ

বাংলাদেশ2 hours ago

Bangladesh-China Relation: চিনের এমন আচরণ আশা করেনি বাংলাদেশ

দেশ4 hours ago

G-7 Summit: পর্তুগালের পর ইংল্যান্ড যাচ্ছেন না প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী

বিজ্ঞান5 hours ago

জানেন কি, কোভিড থেকে সুস্থ হওয়ার পর অ্যান্টিবডিগুলি কত দিন পর্যন্ত রক্তে থেকে যায়

রাজ্য5 hours ago

Bengal Corona Update: কুড়ি হাজারের গণ্ডি পেরোল দৈনিক সংক্রমণ, প্রচুর টেস্টর ফলে সংক্রমণের হার ৩০ শতাংশের নীচে

coronavirus test
দেশ6 hours ago

আক্রান্তদের ফের আরটি-পিসিআর নয়, কোভিড টেস্টে নয়া নির্দেশ কেন্দ্রের

বিনোদন7 hours ago

‘রাধে’র বক্স অফিস কালেশন হতো ‘জিরো’, হল মালিকদের কাছে ক্ষমাপ্রার্থী সলমন খান

দেশ7 hours ago

Vaccination Drive: জোগান নেই, মহারাষ্ট্রে বন্ধ হয়ে গেল কমবয়সিদের টিকাকরণ

বিজ্ঞান2 days ago

কোভিডের ভাইরাস বায়ুবাহিত, ৬ ফুট পর্যন্ত ছড়াতে পারে, দাবি শীর্ষ মার্কিন সংস্থার

রাজ্য2 days ago

Bengal Corona Update: নতুন করে আক্রান্তের সংখ্যা প্রায় একই, রাজ্যে বাড়ল সুস্থতা

ক্রিকেট2 days ago

বিরাট-রোহিত ছাড়াই এক নতুন ভারতীয় দলকে জুলাইয়ে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলতে দেখা যাবে!

প্রবন্ধ3 days ago

এমনই বৈশাখের একটি দিনে মুখোমুখি হয়েছিলেন রবীন্দ্রনাথ ও শ্রীরামকৃষ্ণ

দেশ17 hours ago

Covid Crisis: অক্সিজেনের অভাবে ১১ কোভিডরোগীর মৃত্যু অন্ধ্রপ্রদেশের হাসপাতালে

দেশ2 days ago

ভ্যাকসিন এবং কোভিডের চিকিৎসা সরঞ্জামে ট্যাক্স কেন? মমতার চিঠির পর ১৬টা টুইট কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রীর

Madhyamik examination west bengal
শিক্ষা ও কেরিয়ার9 hours ago

Madhyamik 2021: আপাতত সম্ভব নয় মাধ্যমিক পরীক্ষা, সরকারের সিদ্ধান্তের অপেক্ষায় পর্ষদ

রাজ্য2 days ago

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের তৃতীয় মন্ত্রীসভায় একাধিক নতুন মুখ

ভিডিও

কেনাকাটা

কেনাকাটা2 months ago

বাজেট কম? তা হলে ৮ হাজার টাকার নীচে এই ৫টি স্মার্টফোন দেখতে পারেন

আট হাজার টাকার মধ্যেই দেখে নিতে পারেন দুর্দান্ত কিছু ফিচারের স্মার্টফোনগুলি।

কেনাকাটা3 months ago

সরস্বতী পুজোর পোশাক, ছোটোদের জন্য কালেকশন

খবরঅনলাইন ডেস্ক: সরস্বতী পুজোয় প্রায় সব ছোটো ছেলেমেয়েই হলুদ লাল ও অন্যান্য রঙের শাড়ি, পাঞ্জাবিতে সেজে ওঠে। তাই ছোটোদের জন্য...

কেনাকাটা3 months ago

সরস্বতী পুজো স্পেশাল হলুদ শাড়ির নতুন কালেকশন

খবরঅনলাইন ডেস্ক: সামনেই সরস্বতী পুজো। এই দিন বয়স নির্বিশেষে সবাই হলুদ রঙের পোশাকের প্রতি বেশি আকর্ষিত হয়। তাই হলুদ রঙের...

কেনাকাটা4 months ago

বাসন্তী রঙের পোশাক খুঁজছেন?

খবরঅনলাইন ডেস্ক: সামনেই আসছে সরস্বতী পুজো। সেই দিন হলুদ বা বাসন্তী রঙের পোশাক পরার একটা চল রয়েছে অনেকের মধ্যেই। ওই...

কেনাকাটা4 months ago

ঘরদোরের মেকওভার করতে চান? এগুলি খুবই উপযুক্ত

খবরঅনলাইন ডেস্ক: ঘরদোর সব একঘেয়ে লাগছে? মেকওভার করুন সাধ্যের মধ্যে। নাগালের মধ্যে থাকা কয়েকটি আইটেম রইল অ্যামাজন থেকে। প্রতিবেদন লেখার...

কেনাকাটা4 months ago

সিলিকন প্রোডাক্ট রোজের ব্যবহারের জন্য খুবই সুবিধেজনক

খবরঅনলাইন ডেস্ক: নিত্যপ্রয়োজনীয় বিভিন্ন সামগ্রী এখন সিলিকনের। এগুলির ব্যবহার যেমন সুবিধের তেমনই পরিষ্কার করাও সহজ। তেমনই কয়েকটি কাজের সামগ্রীর খোঁজ...

কেনাকাটা4 months ago

আরও কয়েকটি ব্র্যান্ডেড মেকআপ সামগ্রী ৯৯ টাকার মধ্যে

খবরঅনলাইন ডেস্ক: আজ রইল আরও কয়েকটি ব্র্যান্ডেড মেকআপ সামগ্রী ৯৯ টাকার মধ্যে অ্যামাজন থেকে। প্রতিবেদন লেখার সময় যে দাম ছিল...

কেনাকাটা4 months ago

রান্নাঘরের এই সামগ্রীগুলি কি আপনার সংগ্রহে আছে?

খবরঅনলাইন ডেস্ক: রান্নাঘরে বাসনপত্রের এমন অনেক সুবিধেজনক কালেকশন আছে যেগুলি থাকলে কাজ অনেক সহজ হয়ে যেতে পারে। এমনকি দেখতেও সুন্দর।...

কেনাকাটা4 months ago

৫০% পর্যন্ত ছাড় রয়েছে এই প্যান্ট্রি আইটেমগুলিতে

খবরঅনলাইন ডেস্ক: দৈনন্দিন জীবনের নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসগুলির মধ্যে বেশ কিছু এখন পাওয়া যাচ্ছে প্রায় ৫০% বা তার বেশি ছাড়ে। তার মধ্যে...

কেনাকাটা4 months ago

ঘরের জন্য কয়েকটি খুবই প্রয়োজনীয় সামগ্রী

খবরঅনলাইন ডেস্ক: নিত্যদিনের প্রয়োজনীয় ও সুবিধাজনক বেশ কয়েকটি সামগ্রীর খোঁজ রইল অ্যামাজন থেকে। প্রতিবেদনটি লেখার সময় যে দাম ছিল তা-ই...

নজরে