cow

ওয়েবডেস্ক: বিভিন্ন মহল থেকে চাপ। চাপ অ-বিজেপি রাজ্য্যগুলি থেকেও। এই চাপের মুখেই গবাদি পশু বিক্রি সংক্রান্ত বিতর্কিত নির্দেশিকা প্রত্যাহার করতে চলেছে কেন্দ্র।

গত ২৩ মে, পশুদের ওপর হিংসারোধী আইন সংশোধন করে কেন্দ্র। এর পর থেকেই নিধনের উদ্দেশে পশুমেলা থেকে গবাদি পশুর কেনাবেচার ওপরে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়। শুরু হয়ে যায় বিতর্ক। জোর করে নিজের মতাদর্শ, গোটা দেশে ছড়িয়ে দিতে চাইছে বিজেপি, এই অভিযোগও করা হয়।  এই নির্দেশিকার সুবিধা নিয়ে দেশ জুড়ে দাপাদাপি বাড়ে গোরক্ষা বাহিনীর।

আরও পড়ুন গোরক্ষার নীতিতে উত্তরপ্রদেশে চাষিদের শত্রু হয়ে উঠেছে গবাদি পশু

এর পরেই শুরু হয় প্রতিবাদ। পশ্চিমবঙ্গ, কেরল এবং মেঘালয়ের মতো রাজ্যগুলি সাফ জানিয়ে দেয় যে এই নির্দেশ মানা সম্ভব নয়। তার পরেই সিদ্ধান্ত বদল নিয়ে ভাবনাচিন্তা শুরু করে কেন্দ্র। নির্দেশিকা প্রত্যাহারের ব্যাপারে কেন্দ্রের এক আধিকারিক বলেন, “আমরা গত সপ্তাহে আইনমন্ত্রকের কাছে একটা ফাইল পাঠাই। সেখানে জানানো হয়, যে বিভিন্ন কারণে এই নির্দেশিকা প্রত্যাহার করে নেওয়া হচ্ছে।” তবে কী সেই কারণ, সেই ব্যাপারে বেশি কিছু বলেননি ওই আধিকারিক।

কেন্দ্রের এই নির্দেশিকার বিরোধিতা করেছিলেন কৃষকরাও। তাঁরা তাঁদের অপ্রয়োজনীয় গবাদিপশুগুলি পশুবাজারগুলিতে নিয়ে যেতেন। সেখান ক্রেতারা সেগুলি কিনে নিয়ে কসাইখানায় নিয়ে যেতেন। কিন্তু নতুন নির্দেশিকার ফলে সেটি সম্পূর্ণ বন্ধ হয়ে যায়। অপ্রয়োজনীয় গবাদিপশুগুলিকে নিয়ে কী করা যায়, সে চিন্তাতেই মাথায় হাত ওঠে কৃষকদের।

উল্লেখ্য, এই নির্দেশিকা যে প্রত্যাহার করে নেওয়া হতে পারে, সে ব্যাপারে সেপ্টেম্বরে প্রথম বার ইঙ্গিত দিয়েছিলেন কেন্দ্রীয় পরিবেষমন্ত্রী হর্ষ বর্ধন। মে’মাসেই এই নির্দেশিকার ওপরে স্থগিতাদেশ দিয়েছিল মাদ্রাজ হাইকোর্ট। তার পর জুলাইয়ে সুপ্রিম কোর্টও এই নির্দেশের ওপরে স্থগিতাদেশ দিয়ে দেয়।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here