winter

ওয়েবডেস্ক: নিম্নচাপ চলে গিয়েছে দিন পাঁচেক হল। তবুও সে ভাবে শীতের দেখা নেই। কিছুটা যেন অধৈর্য হয়ে পড়েছিলেন দক্ষিণবঙ্গবাসী। অবশেষে অপেক্ষার অবসান হতে চলেছে। ৪৮ ঘন্টা পর থেকে প্রবল ঠান্ডার কবলে পড়তে পারে দক্ষিণবঙ্গ। পারদের পতন ব্যাপক হতে পারে কলকাতাতেও।

গত সোমবারই পশ্চিমবঙ্গকে রেহাই দিয়ে সমুদ্রে বিলীন হয়ে গিয়েছিল নিম্নচাপ। আকাশ পরিষ্কার হয়ে রোদ উঠলেও তাপমাত্রা নামার কোনো নাম গন্ধই ছিল না। বরং রোদ উঠে যাওয়ায় কলকাতায় দিনের তাপমাত্রা ছুঁয়েছিল তিরিশ ডিগ্রি। সর্বনিম্ন তাপমাত্রাও স্বাভাবিকের থেকে অনেকটাই বেশি ছিল। ১৯-২০ ডিগ্রির আশেপাশে ঘোরাফেরা করেছিল তাপমাত্রা। এর কারণ উত্তর ভারতের ওপরে অবস্থান করা একটি পশ্চিমী ঝঞ্ঝা।

আরও পড়ুন বরফে ঢাকল কাশ্মীর, হিমাচল, উত্তরাখণ্ড, দেখে নিন কিছু ছবি

শক্তিশালী এই পশ্চিমী ঝঞ্ঝাটির প্রভাবে কাশ্মীর, হিমাচল এবং উত্তরাখণ্ডের বিভিন্ন জায়গায় তুষারপাত হয়েছে। এর ফলেই বন্ধ হয়ে গিয়েছিল উত্তুরে হাওয়া। এখন সেই ঝঞ্ঝাটি চলে যাওয়ায় ফের ঢুকতে শুরু করেছে উত্তুরে হাওয়া। ইতিমধ্যেই শৈত্যপ্রবাহের কবলে পড়তে শুরু করেছে উত্তর ভারত। উত্তর ভারত থেকে এই শৈত্যপ্রবাহ চলে আসবে পূর্ব ভারতে, এমনই জানিয়েছেন বেসরকারি আবহাওয়া সংস্থা ওয়েদার আল্টিমার কর্ণধার রবীন্দ্র গোয়েঙ্কা।

হালকা হলেও উত্তুরে হাওয়া যে ঢুকছে তার প্রমাণ মিলেছে বৃহস্পতিবারের সর্বনিম্ন তাপমাত্রাটি দেখে। এ দিন কলকাতার সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ১৮.৬ ডিগ্রি। তাপমাত্রাটি স্বাভাবিকের থেকে বেশি হলেও, এটা যে শীত পড়ার ইঙ্গিত, তা জানিয়েছেন রবীন্দ্রবাবু।

রবীন্দ্রবাবুর কথায়, “শুক্রবার থেকে রবিবার পর্যন্ত কলকাতার সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ১৪ থেকে ১৬ ডিগ্রির মধ্যে ঘোরাফেরা করবে। রবিবারের পর তাপমাত্রা ১২ ডিগ্রির কাছাকাছি পৌঁছে যেতে পারে।” কলকাতায় বারো ডিগ্রি হলে পশ্চিমাঞ্চলের জেলাগুলিতে তাপমাত্রা যে ৯-১০ ডিগ্রির কাছাকাছি পৌঁছে যাবে তা বলাই বাহুল্য।

তবে ঠান্ডার পাশাপাশি কলকাতা ও তার পার্শ্ববর্তী অঞ্চলে কুয়াশার সম্ভাবনার কথাও জানিয়েছেন রবীন্দ্রবাবু। সপ্তাহান্তের তিনটে দিন সকালে দু’এক ঘন্টায় ঘন কুয়াশার কবলে পড়তে পারে কলকাতা, এমনই জানিয়েছে রবীন্দ্রবাবু।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here