job

ওয়েবডেস্ক: বেকারত্বের সমস্যা কমানোর প্রতিশ্রুতি দিয়েই সাড়ে তিন বছর আগে ক্ষমতা দখল করেছিল বিজেপি সরকার। কিন্তু পরিস্থিতির উন্নতি তো হয়ইনি, উপরন্তু বিমুদ্রাকরণের পরে তা আরও খারাপ হয়েছে।

সেন্টার ফর মনিটরিং ইন্ডিয়ান ইকোনমি (সিআইএমই) থেকে পাওয়া নতুন তথ্যে জানা গিয়েছে, এ বছর জানুয়ারি থেকে এপ্রিলের মধ্যে কাজ হারিয়েছেন পনেরো লক্ষ মানুষ। বিভিন্ন সংস্থার থেকে পাওয়া কর্মসংস্থান বিষয়ক তথ্যে দেখা যাচ্ছে আগের বছরের তুলনায় ২০১৬-১৭ অর্থবর্ষে কর্মী ছাঁটাইয়ের সংখ্যা অনেকটাই বেশি।

সিআইএমইয়ের থেকে পাওয়া তথ্যে দেখা যাচ্ছে, ২০১৬-এর সেপ্টেম্বর থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত এই চার মাসে মোট চাকুরিজীবীর সংখ্যা ছিল ৪০ কোটি ৬৫ লক্ষ। পরের চার মাসে, অর্থাৎ ২০১৭-এর জানুয়ারি থেকে এপ্রিল পর্যন্ত তা কমে দাঁড়ায় সাড়ে ৪০ কোটিতে। ১,৬১, ১৬৭টি গৃহস্থ বাড়িতে ৫,১৯,২৮৫ জন মানুষের ওপরে সমীক্ষা করে এই তথ্য প্রকাশ করেছে সিআইএমই। পনেরো লক্ষ মানুষ কাজ হারানোর পাশাপাশি বেড়েছে মোট বেকারের সংখ্যাও। আগের চার মাসের তুলনায় পরবর্তী চার মাসে বেকারের সংখ্যা বাড়ে প্রায় ৯৬ লক্ষ।

চাকরির বাজারের এই করুণ ছবি প্রতিফলিত হয়েছে মানুষকে কর্মদক্ষ করার জন্য কেন্দ্রের নিজস্ব প্রকল্প প্রধানমন্ত্রী কৌশল বিকাশ যোজনাতেও। এ বছর জুলাই পর্যন্ত পাওয়া তথ্যে দেখা গিয়েছে, মোট প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত প্রার্থীর সংখ্যা যেখানে তিরিশ লক্ষ ৬৭ হাজার, কিন্তু চাকরির চিঠি পেয়েছেন মাত্র দু’লক্ষ ৯০ হাজার প্রার্থী। এই তথ্য পাওয়া গিয়েছে দক্ষতা উন্নয়ন মন্ত্রকের তরফ থেকে।

ইংরেজি দৈনিক ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসের করা একটি সমীক্ষায় দেখা গিয়েছে বেসরকারি সংস্থাতেও কর্মসংস্থানের ছবিটা আদৌ ভালো নয়। মোট ১০৭টি বেসরকারি সংস্থায় সমীক্ষা করা হয়েছে। ২০১৫-এর মার্চে মোট কর্মীর সংখ্যা ছিল ৬,৮৪,৪৫২, পরের বছর মার্চে তা কমে দাঁড়ায় ৬,৭৭,২৯৬-তে। তার পরের বছর অর্থাৎ ২০১৭-এর মার্চে সেই সংখ্যাটা পৌঁছেছে ৬,৬৯,৭৮৪-এ। অনেক নামী সংস্থাও কর্মী ছাঁটাই করেছে। তবে ওষুধপত্র এবং গাড়ি শিল্পে কর্মসংস্থানের ছবিটা ভালো। সেখানে কর্মীর সংখ্যা বেড়েছে।

আরও জানা গিয়েছে গত বছর অক্টোবর থেকে ডিসেম্বরের মধ্যে, অর্থাৎ যে সময়ে বিমুদ্রাকরণ ঘোষণা করা হয়, প্রায় ১ লক্ষ ৫২ হাজার জন অস্থায়ী এবং ৪৬,০০০ জন অল্প সময়ের কর্মী কাজ হারান। এর মধ্যে সব থেকে বেশি কর্মী ছাঁটাই হয় উৎপাদন শিল্পে, তার পরেই রয়েছে তথ্যপ্রযুক্তি শিল্প। কর্মী ছাঁটাই হয়েছে শিক্ষা, স্বাস্থ্য, পরিবহণ এবং বাণিজ্য সেক্টরেও।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here