rahul gandhi narendra modi

ওয়েবডেস্ক: রাজনীতির ময়দানে নরেন্দ্র মোদীকে কবে তিনি ধরাশায়ী করতে পারবেন, বা আদৌ করতে পারবেন কি না সে ব্যাপারে এখনও কোনো নিশ্চয়তা নেই। কিন্তু ইতিমধ্যেই সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং সাইটের যুদ্ধে মোদীকে অনেকটাই পেছনে ফেলে দিয়েছেন কংগ্রেসের সহ-সভাপতি।

রাজনীতিক হিসেবে জনপ্রিয়তার নিরিখে টুইটারে এই মুহূর্তে প্রথম এবং দ্বিতীয় স্থানে রয়েছেন নরেন্দ্র মোদী এবং অরবিন্দ কেজরিওয়াল। কিন্তু ইংরেজি দৈনিক হিন্দুস্তান টাইমসের একটি সমীক্ষায় জানা গিয়েছে, সাম্প্রতিককালে রাহুল গান্ধীর করা টুইটগুলোই সব থেকে বেশি ‘রিটুইট’ করা হয়েছে। রাহুলের টুইট যত ‘রিটুইট’ করা হয়েছে, তার ধারে কাছেও নেই মোদী এবং কেজরি।

কিছু দিন আগে পর্যন্ত টুইটার এবং সমগ্র সোশ্যাল মিডিয়া জগতে ব্যঙ্গ এবং কৌতুকের পাত্র ছিলেন রাহুল। সেই ছবিটা এখন আমূল বদলে গিয়েছে। গত জুলাই থেকে সেপ্টেম্বরের মধ্যে প্রায় দশ লক্ষ ভক্ত সংখ্যা (ফলোয়ার্স) বেড়েছে রাহুলের।

গত ১৫ অক্টোবর, মোদী এবং মার্কিন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পকে নিয়ে টুইট করেছিলেন রাহুল। সেটি ১৯,৭০০ বার রিটুইট করা হয়। ওই টুইটে ট্রাম্পের পাকিস্তান-স্তুতি তুলে ধরেছিলেন রাহুল। সেই সঙ্গে টুইটে তিনি লিখেছিলেন, “মোদীজি, প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প বোধহয় আপনার আরও একটি করমর্দন চান।”

২০১৫ থেকে এই মাসের প্রথম পনেরো দিনের তথ্য পর্যালোচনা করলে দেখা যাবে টুইটারের যুদ্ধক্ষেত্র কী ভাবে বারবার রঙ বদলেছে। ২০১৫ সালের প্রথম তিন মাস টুইটারের হাওয়া ছিল পুরোপুরি অরবিন্দ কেজরিওয়ালের পক্ষে। দিল্লি বিধানসভা নির্বাচনে বিপুল জয়ের পরিপ্রেক্ষিতেই কেজরির অনুকূলে ছিল হাওয়া। ওই সময়ে কেজরির টুইট গড়ে ১৬৬৫ বার রিটুইট হত, অন্য দিকে মোদীর ক্ষেত্রে রিটুইটের সংখ্যা ছিল গড়ে ১৩৪২টি।

এর পরেই অবশ্য চড়চড় করে ওপরে উঠতে শুরু করেন মোদী। তবে এই সেপ্টেম্বরে পরিস্থিতি আবার কিছুটা মোদীর বিপক্ষে যেতে শুরু করে। গড়ে ২৭৮৪ বার রিটুইট হয়েছে রাহুলের হয়েছে। এই সময়ে মোদীর টুইট গড়ে ২৫০৬ বার এবং কেজরির টুইট গড়ে ১৭২২ বার রিটুইট করা হয়েছে।

অক্টোবরের প্রথম পনেরো দিনে রাহুলের টুইটের রিটুইটের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে গড়ে ৩৮১২ বার। রিটুইটের সংখ্যায় মোদীর দু’টো শ্রেষ্ঠ মাসের কাছাকাছি প্রায় পৌঁছে গিয়েছেন রাহুল। উল্লেখ্য, গত বছর নভেম্বরে মোদী যখন বিমুদ্রাকরণ ঘোষণা করলেন, সেই মাসে তাঁর রিটুইটের সংখ্যা ছিল গড়ে ৪,০৭৪। তার পর এল এ বছরের জুলাই, যখন এনডিএতে যুক্ত হওয়ার কথা ঘোষণা করলেন নীতীশ কুমার। সেই সময়ে রিটুইটের সংখ্যা ছিল গড়ে ৪,০৫৫।

বিশেষজ্ঞদের মতে, সাম্প্রতিক কালে নিজের করা টুইটে কিছু পরিবর্তন এনেছেন রাহুল। হিন্দি বেশি ব্যবহার করার পাশাপাশি কৌতুক মিশ্রিত শব্দ ব্যবহার করছেন, যার ফলে রাহুলের টুইটগুলো পাঠকদের কাছে আরও বেশি করে সহজবোধ্য হচ্ছে। তাঁদের মতে, কোনো রাজনৈতিক নেতার টুইট বেশি করে রিটুইট করার অর্থ তাঁর রাজনৈতিক মতাদর্শের সঙ্গে সহমত পোষণ করা।

যদিও রাহুলের এই জনপ্রিয়তা বেড়ে যাওয়াকে বিশেষ আমল দিতে রাজি নয় বিজেপি। অন্য দিকে আম আদমি পার্টির ধারণা ভুয়ো প্রোফাইল তৈরি করে রিটুইটের সঙ্গে বাড়িয়ে দেওয়া কংগ্রেস এবং বিজেপি, উভয়েরই চাল।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here