indoor pollution

ওয়েবডেস্ক: বাইরের নয়, শুধুমাত্র ঘরের ভেতরের দূষণের জন্য ২০১৫ সালে ভারতে মৃত্যু হয়েছে প্রায় এক লক্ষ ২৪ হাজার মানুষের। এমনই তথ্য পেশ করল চিকিৎসা বিষয়ক জার্নাল ল্যান্সেট। কয়লাখনি থেকে নির্গত দূষণ বা বিভিন্ন কারখানা থেকে নির্গত দূষণের ফলে যত মানুষের মৃত্যু হয়েছে, তার থেকে অভ্যন্তরীণ দূষণে মৃতের সংখ্যা উল্লেখযোগ্য ভাবে বেশি।

৬ নভেম্বর থেকে জার্মানির বনে উষ্ণায়ন বিষয়ক সম্মেলন শুরু হতে চলেছে। তার আগে এই রিপোর্ট প্রকাশ করল ল্যান্সেট। মানুষের ওপরে জলবায়ু পরিবর্তনের কী প্রভাব পড়েছে সে সবই বলা হয়েছে এই রিপোর্টে। সেই রিপোর্টে জ্বরের ব্যাপারেও যেমন আলোচনা করা হয়েছে, তেমনই বলা হয়েছে আবহাওয়া পরিবর্তনের ফলে রোগভোগের কথাও।

রিপোর্টে বলা হয়েছে, অভ্যন্তরীণ দূষণের ফলে প্রতি বছর সারা বিশ্বে গড়ে প্রায় চার কোটি ৩০ লক্ষ মানুষের মৃত্যু হয়ে, যা সবই এড়ানো যায়। এই সব মৃত্যু হয়েছে নিমোনিয়া, স্ট্রোক, লাং ক্যানসার, হৃদরোগ এবং শ্বাসকষ্টজনিত রোগের থেকে। ভারতে অভ্যন্তরীণ দূষণ গ্রামের দিকেই বেশি করে হয়। ঘরের ভেতরে কাঠ, কয়লা, গোবর পড়ানোর ফলেই এই দূষণ ছড়ায়। উল্লেখ্য, শীতের জায়গার মানুষদের এই অভ্যন্তরীণ দূষণের বিপদ অনেক বেশি। গার্হস্থ্য-দূষণে মহিলাদের বিপদ অনেক বেশি বলেও জানানো হয়েছে এই রিপোর্টে।

কী ভাবে এই অভ্যন্তরীণ দূষণ থেকে মুক্তি পাওয়া যাবে সেই উপায়ও বলে দেওয়া রয়েছে এই রিপোর্টে। “মানুষ পরিষ্কার জ্বালানির ব্যবহার যত বাড়াবে এবং সেই সঙ্গে নতুন প্রযুক্তির সঙ্গে মানিয়ে নেবে, ততই বাতাসে দূষণের মাত্রা অনেকটাই কমে যাবে। কমবে গ্রিনহাউস গ্যাসের মাত্রাও।”

উল্লেখ্য, বিশ্ব আবহাওয়া সংস্থা তাদের গ্রিনহাউস গ্যাস বুলেটিনে জানিয়েছিল, ৮০০০ হাজার বছরের মধ্যে গত বছরেই বাতাসে কার্বন ডাইঅক্সাইডের পরিমাণ সব থেকে বেশি ছিল।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here