italy

সান সিরো: অঘটনের বিশ্বকাপ-যোগ্যতা অর্জনকারী পর্বে আরও এক অঘটন। সুইডেনের বিরুদ্ধে গোলশূন্য ড্র করে সামনের বছরের রাশিয়া বিশ্বকাপের যোগ্যতা অর্জনে ব্যর্থ হল চার বারের চ্যাম্পিয়ন ইতালি। এই ফলের পরে ফুটবল মাঠকে বিদায় জানালেন কিংবদন্তি গোলকিপার জিয়ানলুইগি বুফোঁ।

প্রথম প্লে-অফে সুইডেনের বিরুদ্ধে ১-০ গোলে হেরে গিয়ে বিশ্বকাপে যাওয়ার আশা প্রায় শেষ হয়ে গিয়েছিল ইতালির। তবুও একটা আশা ছিল যাতে অন্তত দু’গোলের ব্যবধান রেখে তারা জিততে পারে, তা হলে সামগ্রিক হিসাবের বিচারে বিশ্বকাপে চলে যাবে তারা। কিন্তু সেটা হল না। বল দখলের লড়াইয়ে অনেক এগিয়ে থাকলেও, কাজের কাজটি করতে ব্যর্থ হল আজ্জুরিরা। ১৯৫৮-এর পরে এই পরে বিশ্বকাপে যোগ্যতা অর্জনে ব্যর্থ ইতালি।

ইতালিকে বিশ্বকাপে পাঠাতে এ দিন মাঠে গলা ফাটিয়ে যান ৭৪ হাজার দর্শক। কিন্তু তাতেও কোনো লাভ হয়নি। ইতালির সর্বনাশে পৌষমাস হল সুইডেনের। ২০০৬-এর পরে বিশ্বকাপের টিকিট জুটল তাদের।

গোটা ম্যাচে সাদামাঠা প্রদর্শন করলেও ইতালির দাবি বেশ কিছু ন্যায্য পেনাল্টি তাদের দেয়নি ম্যাচের রেফারি। ম্যাচের অন্তিম লগ্নে যে কোনো অর্থে গোল করার জন্য বুফোঁকেও কর্নার কিক নিতে দেখা যায়।

এ দিকে এই ম্যাচের পরেই আন্তর্জাতিক ফুটবলকে বিদায় জানিয়ে দেন কিংবদন্তি গোলকিপার জিয়ানলুইগি বুফোঁ। ১৭৫টি ম্যাচের অভিজ্ঞতাসম্পন্ন ৩৯ বছরের বুফোঁ ছ’নম্বর বিশ্বকাপটি খেলে ফেলতে পারতেন। কিন্তু সেই সুযোগ আর না আসায় অবসর ঘোষণা করতে এক মুহূর্তও দেরি করেননি তিনি।

ম্যাচের পরে ইতালির স্থানীয় সংবাদমাধ্যমকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে বুফোঁ বলেন, “আমি আজ নিজের জন্য দুঃখিত নই, আমি আজ ইতালির ফুটবলের জন্য দুঃখিত। আমরা আজ এমন ব্যর্থ হয়েছি, যাকে একটা সামাজিক ব্যর্থতাও বলা যায়।”

তিনি আরও বলেন, “জীবনে একটা দুঃখই থেকে যাবে। তা হল আমার জীবনের শেষ ম্যাচে আমরা বিশ্বকাপের যোগ্যতা অর্জনের লড়াই থেকে ছিটকে গেলাম।” তবে ইতালি ফুটবলের ভবিষ্যৎ প্রজন্ম যে খুব প্রতিভাবান, সে কথাও বলেন বুফোঁ।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here