manmohan singh and narendra modi

নয়াদিল্লি: পাকিস্তান প্রসঙ্গে আর চুপ থাকলেন না প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিংহ। কংগ্রেসকে তিনি  যেন জাতীয়তাবাদ না শেখাতে আসেন, এ ভাবেই বর্তমানকে তীব্র কটাক্ষ করলেন প্রাক্তন। পাশাপাশি তাঁর দাবি, ভিত্তিহীন মন্তব্যের জন্য দেশের কাছে মোদীকে ক্ষমা চাইতে হবে।

গত কয়েক দিন ধরেই গুজরাতে নির্বাচনী প্রচারে বারবার পাকিস্তান প্রসঙ্গ নিয়ে আসেন মোদী। এর শুরু হয়েছিল মণিশঙ্কর আয়ারকে ঘিরে। মোদী অভিযোগ করেছিলেন আয়ারের বাসভবনে মনমোহনের নেতৃত্বে পাকিস্তানের কয়েক জন প্রতিনিধির সঙ্গে বৈঠকে গুজরাত নির্বাচন নিয়ে আলোচনা করা হয়ছিল। মনমোহন এ দিন দ্বার্থহীন ভাবে মোদীর সেই অভিযোগ খারিজ করে দিলেন। সাফ জানিয়ে দিলেন শুধুমাত্র রাজনৈতিক স্বার্থ চরিতার্থের জন্যই এই মন্তব্য করেছেন মোদী।

সোমবার একটি বিবৃতিতে প্রকাশ করে মোদীর সব অভিযোগ খারিজ করার পাশাপাশি সাংবিধানিক পদকে অসম্মান করার অভিযোগ আনেন মনমোহন। তিনি বলেন, “শুধুমাত্র রাজনৈতিক স্বার্থ চরিতার্থ এবং গুজরাতে হারানো জমি ফিরে পাওয়ার জন্য প্রধানমন্ত্রী শ্রী নরেন্দ্র মোদী যে মন্তব্য করছেন তার আমি তীব্র বিরোধিতা করছি। এই মন্তব্যের মাধ্যমে তিনি একজন প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী এবং সেনাপ্রধানের পদকে অসম্মান করছেন।”

এরপর জাতীয়তাবাদ প্রসঙ্গে প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী বলেন, “কংগ্রেসের জাতীয়তাবাদ নিয়ে প্রশ্ন তোলার কোনো অধিকার এমন একটা দলের নেই যারা জঙ্গি হামলা বন্ধ করতে ব্যর্থ। নরেন্দ্র মোদীকে একটা কথা মনে করিয়ে দিতে চাই, উনি বিনা নিমন্ত্রণে পাকিস্তান গিয়েছিলেন। তাও এমন একটা সময়ে যখন উধমপুর এবং গুরদাসপুরে জঙ্গি হামলা ঘটেছে। পাঠানকোটের বায়ুসেনা ঘাঁটিতে পাকিস্তানি জঙ্গি হামলার তদন্ত করতে কে পাকিস্তানের আইএসআইকে ভারতে আমন্ত্রণ জানিয়েছিল?”

বিবৃতিতে মনমোহন বলেছেন, “পাঁচ দশক ধরে দেশকে আমি কী দিয়েছি সেটা সবাই জানে। দয়া করে এই ব্যাপারে নরেন্দ্র মোদী কোনো প্রশ্ন না তুললেই আমি বাধিত থাকব।” এ বার মোদীর অভিযোগের জবাবে মনমোহন জানিয়েছেন, “গুজরাত নির্বাচন নিয়ে অভিযোগ করা হচ্ছে তা ভিত্তিহীন। মণিশঙ্কর আয়ারের বাড়ি বৈঠকে গুজরাত নির্বাচন নিয়ে কোনো আলোচনাই হয়নি। শুধুমাত্র ভারত এবং পাকিস্তানের দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের ব্যাপারেই আলোচনা হয়েছে। কেউ অভিযোগ করতে পারবে না যে ওই বৈঠকে কোনো দেশ বিরোধী কার্যকলাপ হয়েছে।” ওই বৈঠকে কে কে উপস্থিত ছিলেন, তারও তালিকা এই বিবৃতির শেষে দিয়ে দেন মনমোহন।

মন্তব্যের জন্য মোদীর থেকে ক্ষমাপ্রার্থনার আশা করে মনমোহন বলেন, “যে সাংবিধানিক পদের মোদী রয়েছেন, সেখানে থেকে ওনার থেকে আর একটু পরিণতিবোধ আশা করা যায়। এই মন্তব্যের দেশবাসীর কাছে মোদী ক্ষমা চাইবেন, সেই ব্যাপারে আমি আশাবাদী।”

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here