modi huges trudeau

নয়াদিল্লি: সব জল্পনার অবসান, চিরাচরিত আলিঙ্গনের মাধ্যমে, কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডোকে স্বাগত জানালেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। সন্ত্রাসবাদ থেকে বাণিজ্য, সব বিষয়েই দুই রাষ্ট্রপ্রধানের কথা হল। ছ’টি মউ স্বাক্ষরিত হল। দুই প্রধানের বৈঠকের পর যৌথ বিবৃতিও প্রকাশ হল।

শুরু থেকেই খালিস্তানি ছায়া ছিল ট্রুডোর সফরকে ঘিরে। প্রথম দিকে তাঁর সফরের ব্যাপারে মোদীকেও বিশেষ আমল দিতে দেখা যায়নি। কিন্তু বৃহস্পতিবার রাত থেকে পরিস্থিতি কিছুটা সহজ হতে শুরু করে। ট্রুডোর ব্যাপারে বৃহস্পতিবার রাতেই প্রথম টুইট করেন মোদী। টুইটে তিনি বলেন, “আমি আশা করছি খুব সুন্দর ভারত সফর কাটিয়েছেন কানাডার প্রধানমন্ত্রী। আগামীকাল (শুক্রবার) জাস্টিন ট্রুডো এবং তাঁর পরিবারের সঙ্গে দেখা করার জন্য মুখিয়ে রয়েছি।”

শুক্রবার সকালে রাষ্ট্রপতি ভবনে আলিঙ্গনের মাধ্যমে ট্রুডোকে স্বাগত জানান মোদী। এ দিনই প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক বসেন ট্রুডো। সেই বৈঠকে উঠে আসে ব্যবসা, প্রতিরক্ষা, পরমাণু সহযোগিতা, জলবায়ু পরিবর্তন, শিক্ষা-সহ আরও অনেক বিষয়ই। সন্ত্রাসবাদ মোকাবিলায় পদক্ষেপের ব্যাপারও আলোচনায় হয়। ইতিমধ্যে, বিদেশমন্ত্রী সুষমা স্বরাজের সঙ্গে বৈঠকও করেছেন ট্রুডো। যৌথ বিবৃতি প্রকাশ করে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী বলেন, সন্ত্রাসবাদ ও উগ্রপন্থার বিরুদ্ধে দুই দেশকে এক যোগে লড়তে হবে।

উল্লেখ্য, খালিস্তানি জঙ্গির সঙ্গে সখ্যতা বজায় রাখার ‘অপরাধেই’ ট্রুডোকে এড়িয়েই চলেছিলেন কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব। সেই খালিস্তানি বিতর্কে নতুন মাত্রা যোগ করে ট্রুডোর নৈশভোজে খালিস্তানি জঙ্গি জসওয়াল অটওয়ালের উপস্থিতি। ঘটনায় বিব্রিত ট্রুডো বিবৃতি দিয়ে বলেন, যার মারফত নিমন্ত্রণ দেওয়া হয়েছিল অটওয়ালকে, তাঁর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

গত রবিবার থেকে ভারতে রয়েছে্ন ট্রুডো। কিন্তু তাঁকে স্বাগত জানিয়ে মোদী কোনো টুইট না করায়, জল্পনা বাড়ছিল, খালিস্তানি ছায়ার জন্যই এড়িয়ে যাওয়া হচ্ছে কানাডার প্রধানমন্ত্রীকে। আপাতত সেই জল্পনায় জল পড়ল।

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন