winter

ওয়েবডেস্ক: আকাশ এখনও মেঘমুক্ত না হলেও সোমবার থেকে কিছুটা উন্নতি হতে শুরু করেছে আবহাওয়ার। মাঝেমধ্যে রোদের দেখা মিলেছে, তবে ছিটেফোঁটা বৃষ্টিও হয়েছে কোথাও কোথাও।

শনিবার এবং রবিবার দক্ষিণবঙ্গের বিভিন্ন জায়গায় বৃষ্টি দিয়ে অবশেষে দুর্বল হয়েছে নিম্নচাপ। আবহাওয়া দফতর সূত্রে জানানো হয়েছে, স্থলে ঢোকার আগেই উত্তর বঙ্গোপসাগরে দুর্বল হয়েছে সে। সেই নিম্নচাপের অবশিষ্ট জলীয় বাষ্পের প্রভাবেই সোমবারও মেঘের আনাগোনা শহরের আকাশে। মঙ্গলবার থেকে আকাশ পুরোপুরি পরিষ্কার হয়ে যেতে পারে।

তবে আকাশ পরিষ্কার হলেই শীত ফিরবে, এমন সম্ভাবনা নেই। এর পেছনে রয়েছে উত্তর ভারতে হানা দেওয়া একটি পশ্চিমী ঝঞ্ঝা। বেসরকারি আবহাওয়া সংস্থা ওয়েদার আল্টিমার কর্ণধার রবীন্দ্র গোয়েঙ্কার মতে, মঙ্গলবার থেকে কাশ্মীর এবং হিমাচলের বিভিন্ন জায়গায় ভারী তুষারপাত হতে পারে। সমতলে হতে পারে ভারী বৃষ্টি। সাম্প্রতিক কালে এটিই সব চেয়ে শক্তিশালী পশ্চিমী ঝঞ্ঝা বলে জানাচ্ছেন রবীন্দ্রবাবু। তাঁর কথায়, “এই পশ্চিমী ঝঞ্ঝাকে ইন্ধন জোগাবে রাজস্থানের কাছে তৈরি হওয়া একটি ঘূর্ণাবর্তও।” এই পশ্চিমী ঝঞ্ঝাটি ধীরে ধীরে নেপাল, সিকিম হয়ে অরুণাচলেও প্রভাব ফেলতে পারে। যার ফলে বিক্ষিপ্ত তুষারপাত হতে পারে এই সব রাজ্যেও।

যত দিন এই পশ্চিমী ঝঞ্ঝা থাকবে, বন্ধ থাকবে উত্তুরে হাওয়া। তাই আপাতত কলকাতায় রাতের তাপমাত্রা বিশেষ কমবে না। অন্য দিকে আকাশ পরিষ্কার হয়ে যাওয়ায় দিনের তাপমাত্রা বেড়ে ২৮ ডিগ্রির কাছাকাছি চলে যেতে পারে। তা হলে শীত ফিরবে কবে?

রবীন্দ্রবাবু বলেন, ১৪ ডিসেম্বরের পর থেকে পশ্চিমী ঝঞ্ঝার প্রভাব থেকে মুক্ত হবে উত্তর ভারত। তার পর ধীরে ধীরে উত্তর ভারতকে গ্রাস করবে বরফশীতল উত্তুরে বাতাস। শৈত্যপ্রবাহের কবলে পড়বে উত্তর ভারত। সেই শীতল বাতাস নেমে আসবে এ রাজ্যে। তাঁর কথায়, “আগামী বৃহস্পতিবার থেকে কমতে শুরু করবে কলকাতা-সহ সমগ্র দক্ষিণবঙ্গের তাপমাত্রা। শনিবারের পর কলকাতার তাপমাত্রা নেমে যেতে পারে বারো ডিগ্রির কাছাকাছি।”

আপাতত তাই জব্বর শীতের প্রহর গোনা শুরু।

 

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here