নয়াদিল্লি: সব কিছু ঠিকঠাক চললে আর দিন পনেরোর মধ্যেই কংগ্রেসের সভাপতি পদে উত্তীর্ণ হয়ে যেতে পারেন কংগ্রেসের সহ-সভাপতি রাহুল গান্ধী। সোমবার সভাপতি পদে নির্বাচনের দিনক্ষণ ঘোষণা করল কংগ্রেস।

আগামী ১৬ ডিসেম্বর সভাপতি নির্বাচন হওয়ার কথা কংগ্রেসের। এর জন্য ১ ডিসেম্বর নির্দেশিকা জারি করবে কংগ্রেস। ৪ ডিসেম্বর পর্যন্ত মনোনয়ন পেশ করা যাবে। ১১ ডিসেম্বর মনোনয়ন জমে দেওয়ার শেষ দিন। যদি নির্বাচন হয় তা হলে ১৯ ডিসেম্বর ফল প্রকাশ করা হবে।

তবে পরিস্থিতি যা তাতে নির্বাচন হওয়ার কোনো সম্ভাবনা নেই। কারণ সভাপতি পদে রাহুলের বিরুদ্ধে কেউ দাঁড়াবে বলে মনে হয় না। সুতরাং রাহুলের বিরুদ্ধে যদি কেউ নির্বাচনে না দাঁড়ান তা হলে স্ক্রুটিনির দিন অর্থাৎ ৫ ডিসেম্বর সভাপতি ঘোষিত হতে পারেন রাহুল। ২০১৩-এর ১৯ জানুয়ারি থেকে কংগ্রেসের সহ-সভাপতি পদে রয়েছেন রাহুল।

সোমবার এই বিষয়ে বৈঠক করে কংগ্রেসের ওয়ার্কিং কমিটি। দল যদি চায়, তা হলে সনিয়া গান্ধীর জায়গায় তিনি সভাপতির পদে বসতে রাজি বলে আগে জানিয়েছিলেন রাহুল। কংগ্রেসের ভিতরের মত হল, গুজরাত নির্বাচনের আগেই যদি রাহুল গান্ধীকে সভাপতি ঘোষণা করা হয়, তা হলে বাড়তি অক্সিজেন পেয়ে যাবে কংগ্রেস।

উল্লেখ্য, ৩১ ডিসেম্বরের মধ্যে দলীয় নির্বাচন আয়োজন করার জন্য কংগ্রেসকে নির্দেশ দিয়েছিল নির্বাচন কমিশন। ১৯৯৮-এর ১৪ মার্চ থেকে দলের সভাপতি পদে রয়েছেন সনিয়া গান্ধী। টানা ১৯ বছর এই পদে রয়েছেন তিনি। কংগ্রেসের ইতিহাসে যা রেকর্ড। তবে ২০০০ সালের নির্বাচনে সভাপতি পদে সনিয়ার বিরুদ্ধে দাঁড়িয়েছিলেন জিতেন্দ্র প্রসাদ। তার পর থেকে সভাপতি পদে কোনো নির্বাচন হয়নি।

উল্লেখ্য, গত ২২ বছরের মধ্যে এ বারই গুজরাতে নিজেদের সম্ভাবনা দেখতে পাচ্ছে কংগ্রেস। পাতিদারদের সমর্থন নিয়ে রাহুলের আগ্রাসী প্রচার চলছে রাজ্য জুড়ে। কংগ্রেসের সভাতে ভিড়ও হচ্ছে চোখে পড়ার মতো। এই আবহে গুজরাত নির্বাচনের ঠিক আগেই রাহুলের সভাপতি হয়ে যাওয়া মাস্টারস্ট্রোক প্রমাণিত হতে পারে।

ছবি: আইএনসি টুইট থেকে নেওয়া

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here