emergency in maldives

মালে: সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতিও গ্রেফতার হতে পারেন, এটা দেখিয়ে দিল মলদ্বীপ সরকার। সারা দেশে জরুরি অবস্থা জারি করে গ্রেফতার করা হল তাঁকে। সেই সঙ্গে গ্রেফতার হলেন সুপ্রিম কোর্টের আরও এক বিচারক।

সোমবার গভীর রাতে মলদ্বীপে পনেরো দিনের জন্য জরুরি অবস্থা জারি করেন সে দেশের প্রেসিডেন্ট আবদুল্লাহ ইয়ামিন। এর কয়েক ঘণ্টা পরেই সুপ্রিম কোর্টে হানা দিয়ে প্রধান বিচারপতি আবদুল্লাহ সঈদ, বিচারক আলি হামিদ এবং আদালতের প্রশাসক হাসান সঈদকে গ্রেফতার করে মলদ্বীপ পুলিশ। দুর্নীতির কারণ দেখিয়ে এই তিন জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

সুপ্রিম কোর্টের সঙ্গে মলদ্বীপ সরকারের বিবাদ বেশ কিছু দিন ধরেই চরমে উঠেছিল। এর মূল কারণ ছিল শীর্ষ আদালতের একটি নির্দেশিকা, যেখানে বলা হয়েছিল ন’জন রাজনৈতিক বন্দিকে মুক্তি দিতে হবে। সেই সঙ্গে বারো জন বরখাস্ত হওয়া সাংসদককেও পুনরায় বহাল করার নির্দেশ দিয়েছিল সুপ্রিম কোর্ট। সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশিকা পালন করলে বিরোধীরাই মলদ্বীপের সাংসদে সংখ্যাগরিষ্ঠ হয়ে যেতে পারত। তার পরেই জরুরি অবস্থা জারি করার ঘোষণা করে মলদ্বীপ।

এর আগে সোমবারই মলদ্বীপের প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট মাউমুন আল গায়ুমকে গ্রেফতার করেছে মলদ্বীপ পুলিশ। গায়ুমের কন্যা অভিযোগ করেছেন, তাঁদের বাড়ির দরজা ভেঙে গায়ুম এবং তাঁর জামাইকে ধরে নিয়ে গিয়েছে পুলিশ।

মলদ্বীপের এই ঘটনার পরে বিশ্ব জুড়ে নিন্দার ঝড় বয়ে গিয়েছে। ভারতও তাদের নাগরিকদের এই মুহূর্তে মলদ্বীপ এড়িয়ে চলার নির্দেশ দিয়েছে।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন