jahan-hadiya

নয়াদিল্লি: আর বন্দিদশা নয়, হাদিয়ার আর্জি মেনে তাকে কলেজে পাঠানোর নির্দেশ দিল সুপ্রিম কোর্ট। কোনো ভাবেই যেন তাকে বাড়িতে না আটকে রাখা হয়, সে নির্দেশও দিয়েছে আদালত। আপাতত মঙ্গলবার পর্যন্ত এই শুনানি স্থগিত রাখা হয়েছে।

সোমবার পূর্ব নির্ধারিত সূচি অনুযায়ী হাদিয়ার কথা শোনে প্রধান বিচারপতি দীপক মিশ্রর ডিভিশন বেঞ্চ। প্রায় ১০৫ মিনিট ধরে হাদিয়ার কথা শোনে কোর্ট। বিকেল পাঁচটায় কোর্টের কাজের সময় শেষ হওয়ার কথা থাকলেও তা চলে ৫টা ২০ পর্যন্ত। শেষে মঙ্গলবার পর্যন্ত শুনানি স্থগিত করার সিদ্ধান্ত নেয় আদালত।

আরও পড়ুন লাভ জেহাদ: চাপে নয় নিজের ইচ্ছেতেই বিয়ে করেছে হাদিয়া, সুপ্রিম কোর্টে বলল এনআইএ

হাদিয়া এ দিন ডিভিশন বেঞ্চকে বলে, “আমি আমার স্বামীর সঙ্গে দেখা করতে চাই। আমি পড়াশোনা শেষ করতে চাই। আমি নিজের ধর্ম মেনে এবং ভালো নাগরিক হিসেবে নিজের জীবন ধারণ করতে চাই।” হাদিয়া আরও বলে, “আমি স্বাধীনতা চাই। গত ১১ মাস ধরে আমাকে অবৈধ ভাবে আটকে রাখা হয়েছে।”

কেরল লাভ জেহাদ মামলা নিয়ে সোমবার শুরু হয়েছিল সুপ্রিম কোর্টের শুনানি। তবে দীপক মিশ্রর বেঞ্চ আগেই জানিয়ে দিয়েছিল, হাদিয়া নিজের ইচ্ছেয় ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেছে কি না, সে ব্যাপারকেই বেশি গুরুত্ব দেওয়া হবে। উল্লেখ্য, কিছু দিন আগেই সুপ্রিম কোর্টে জমা দেওয়া স্ট্যাটাস রিপোর্টে জাতীয় তদন্তকারী সংস্থা (এনআইএ) জানিয়ে দেয়, হাদিয়া নিজের ইচ্ছে থেকেই ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করছে, তার ওপরে কোনো চাপ সৃষ্টি করা হয়নি।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here