spring in kolkata

কলকাতা: বিসর্জনের সুর সব সময়েই বিরহের, সে দুর্গাপুজো হোক বা শীত। দু’টোর মধ্যে মিলও রয়েছে বিস্তর। দু’টির জন্যই অধীর আগ্রহে অপেক্ষায় থাকে মানুষজন। দেবী দুর্গা তো আমাদের থেকে বিদায় নিয়েছেন মাস চারেক হয়ে গেল, এ বার শীতের বিদায় নেওয়ার পালা, পাকাপাকি ভাবেই।

তা-ও তো এই মরশুমে জব্বর ঠান্ডা উপভোগ করলেন আসমুদ্রহিমালয় রাজ্যবাসী। উপকূলবর্তী দিঘা হোক, বা হিমালয়ের পাদদেশে শিলিগুড়ি, ঠান্ডায় থরহরিকম্প সবাই। শীতের রূপ এ বার এমনই ছিল যে গোটা জানুয়ারিতে এখনও পর্যন্ত মাত্র একদিন স্বাভাবিকের ওপরে উঠেছিল সর্বনিম্ন তাপমাত্রা।

শীতের প্রভাব এখনও রয়েছে। সোমবার কলকাতার সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল সাড়ে ১৩ ডিগ্রি, স্বাভাবিকের থেকে যা দু’ডিগ্রি সেলসিয়াস কম। দক্ষিণবঙ্গের বাকি অঞ্চলেও তাপমাত্রা ঘোরাফেরা করেছে ৯ থেকে ১১ ডিগ্রির আশেপাশে। যদিও ক্রমশ বাড়তে শুরু করেছে সর্বোচ্চ তাপমাত্রা। কলকাতার সর্বোচ্চ তাপমাত্রা এখন ২৭ থেকে ২৮ ডিগ্রির আশেপাশে রয়েছে। তাপমাত্রার এই পরিস্থিতি বজায় থাকবে আগামী চার দিন, তার পরেই ক্রমশ ঊর্ধ্বমুখী হবে সে।

আগামী কয়েক দিনের তাপমাত্রার পরিস্থিতির ব্যাপারে একটি বিশ্লেষণ করেছেন বেসরকারি আবহাওয়া সংস্থা ওয়েদার আল্টিমার কর্ণধার রবীন্দ্র গোয়েঙ্কা। তিনি বলেন, “দক্ষিণবঙ্গে শীত এ বার বিদায়ের মুখে বললেই চলে। বৃহস্পতিবার পর্যন্ত কলকাতা-সহ সমগ্র দক্ষিণবঙ্গের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ১৩ থেকে ১৫ ডিগ্রি এবং সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ২৬ থেকে ২৮ ডিগ্রির আশেপাশে থাকবে। শুক্রবার থেকে তাপমাত্রা বাড়বে। সর্বোচ্চ তাপমাত্রা তিরিশ ডিগ্রি ছুঁতে পারে, সর্বনিম্ন তাপমাত্রা থাকবে ১৭ থেকে ১৯ ডিগ্রির আশেপাশে।” তবে আগামী সপ্তাহদুয়েক দক্ষিণবঙ্গের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা সমগ্রিক ভাবে ষোলো ডিগ্রির ওপরে থাকবে বলে মনে করছেন তিনি। শনিবার থেকে দক্ষিণবঙ্গে শুরু হয়ে যেতে পারে দখিনা বাতাস।

তবে দক্ষিণবঙ্গে শীতের বিদায়ঘণ্টা বাজলেও উত্তরবঙ্গে এখনও জারি থাকবে জব্বর ঠান্ডা, এমনই জানিয়েছেন রবীন্দ্রবাবু। সোমবারও সমগ্র উত্তরবঙ্গের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ৬ থেকে ৮ ডিগ্রির আশেপাশে ছিল। উত্তরবঙ্গে এই পরিস্থিতি এখনও চলবে বলে জানিয়েছেন তিনি।

তবে, আবহাওয়ার সাম্প্রতিক ইতিহাস বলে ফেব্রুয়ারিতেও কখনও কখনও বৃষ্টির হাত ধরে শীত ঘুরে দাঁড়িয়েছে। হতেও পারে এমনই কোনো বৃষ্টির পেছন পেছন ফের এক দফা শীতের ছোঁয়া পেল দক্ষিণবঙ্গ। তবে আগামী দু’সপ্তাহে এই রকম কিছু হওয়ার আশা করছেন না রবীন্দ্রবাবু।

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন