hardik patel

অমদাবাদ: অবশেষে নিজের অবস্থান পরিষ্কার করলেন পাটিদার নেতা হার্দিক পটেল। গুজরাত নির্বাচনে তিনি যে কংগ্রেসকেই সমর্থন করবেন তা সাফ জানিয়ে দিলেন ২৪ বছর বয়সি এই তরুণ নেতা।

হিন্দুস্তান টাইম্‌সকে দেওয়া একান্ত সাক্ষাৎকারে হার্দিক বলেছেন, ক্ষমতায় এলে পাটিদারদের ওবিসি শ্রেণিভুক্ত করার ব্যাপারে আশ্বাস দিয়েছেন কংগ্রেস নেতারা। পাটিদার অনামত আন্দোলন সমিতির (পাস) নেতা হার্দিক বলেন, আগামী ১ অথবা ৩ নভেম্বর কংগ্রেসের সহ-সভাপতি রাহুল গান্ধীর সঙ্গে দেখা করবেন তিনি। নির্বাচনী প্রচারে তখন গুজরাতে আসার কথা রাহুলের।

হার্দিকের কথায়, “আমি নিশ্চিত, ক্ষমতায় এলে পাটিদারদের ওবিসি শ্রেণিভুক্ত করার ব্যাপারে ওই বৈঠকে আশ্বাস দেবে কংগ্রেস। তার পরেই কংগ্রেসকে সমর্থন করার ব্যাপারে সরকারি ভাবে সিদ্ধান্ত নেবে পাস।”

উল্লেখ্য, গুজরাতের ১৪৬টি জাতকে ওবিসি শ্রেণিভুক্ত করা হয়েছে। গুজরাতের মোট জনসংখ্যার ৪০ শতাংশই ওবিসি শ্রেণিভুক্ত। চাকরি এবং শিক্ষাক্ষেত্রে ওবিসিদের ২৭ শতাংশ সংরক্ষণ রয়েছে। তফশিলি জাতি এবং উপজাতিদের ক্ষেত্রে সেই সংরক্ষণ রয়েছে যথাক্রমে ৭ এবং ১৫ শতাংশ। অর্থাৎ রাজ্যে সব মিলিয়ে ৪৯ শতাংশ সংরক্ষণ রয়েছে।

কংগ্রেস ক্ষমতায় এলে পাটিদারদের সংরক্ষণের ব্যবস্থা হয়ে যাবে, এই ব্যাপারে কী ভাবে এতটা নিশ্চিত হলেন তিনি, হার্দিককে এই প্রশ্ন করা হলে তিনি কংগ্রেসের গুজরাত-ইনচার্জ অশোক গেহলতের কথা বলেন। গেহলত এবং আরও প্রবীণ কংগ্রেস নেতা নাকি এই ব্যাপারে তাঁকে আশ্বস্ত করেছেন।

আরও পড়ুন: গুজরাতে বিজেপিকে ধাক্কা: ‘টাকার খেলা’র অভিযোগ সদ্য যোগ দেওয়া পাটিদার নেতার, আরেক নেতার ১৫ দিনেই ইস্তফা

যদিও হিন্দুস্তান টাইম্‌সকে গেহলত বলেন, সরকারি ভাবে নির্বাচনী ইস্তেহার ছাপা না হওয়া পর্যন্ত এখনই কিছুই বলা যাবে না। তবে প্রদেশ কংগ্রেসের প্রধান ভরতসিংহ সোলাঙ্কি বলেন, গত বছর নাকি ‘উচ্চ জাতের’ জন্য কুড়ি শতাংশ সংরক্ষণের কথা ঘোষণা করেছে কংগ্রেস। সোলাঙ্কি বলেন, “আমাদের সরকার গঠন হলেই এই মর্মে প্রস্তাব পেশ করব বিধানসভায়। তার পর সেটা সংসদে নিয়ে যাওয়া হবে।”

তবে এই সংরক্ষণের দাবি যে বাস্তবসম্মত নয়, সে কথা বলেছেন রাজ্য বিজেপির মুখপাত্র জয়নারায়ণ ব্যাস। তাঁর কথায়, “কংগ্রেসের আশ্বাস শুধুমাত্র নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি ছাড়া আর কিছুই নয়। কারণ সাংবিধানিক ভাবে এটা সম্ভব নয়।” তিনি আরও যোগ করেন, “পাসের মধ্যে বিভাজন তৈরি হয়েছে। সব পাটিদারই কংগ্রেসকে সমর্থন করবে এটা কখনোই বলা যায় না।”

তবে হার্দিক নিশ্চিত যে সংবিধান মেনেই পাটিদারদের সংরক্ষণের ব্যাপারটা দেখবে কংগ্রেস। কিছু দিন আগেই কংগ্রেসে যোগ দিয়েছেন ওবিসি নেতা অল্পেশ ঠাকুর। এ বার হার্দিক পটেল কংগ্রেসের প্রতি সমর্থন ঘোষণা করায় নির্বাচনের আগে বাড়তি অক্সিজেন পেয়ে গিয়েছে কংগ্রেস। যদি সরাসরি কংগ্রেসের টিকিটে নির্বাচন লড়ার যাবতীয় জল্পনা নস্যাৎ করেছেন হার্দিক।

উল্লেখ্য, রাজ্যের জনসংখ্যার প্রায় বারো শতাংশই পাটিদার শ্রেণিভুক্ত। রাজ্যের ১৮২টি বিধানসভা আসনের মধ্যে ৬০টির ভাগ্য নির্ধারণ পাটিদাররাই করতে পারেন। ঐতিহাসিক ভাবে বিজেপির বড়ো ভোটব্যাঙ্ক এই পাটিদাররা। কিন্তু গত বেশ কয়েক বছর ধরেই আর্থিক ভাবে অনেকটাই দুর্বল হয়ে পড়েছেন পাটিদাররা।

এখন দেখার হার্দিকের এই ঘোষণায় ভর করে কংগ্রেসকে কতটা সমর্থন করেন পাটিদাররা।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here