ওয়েবডেস্ক: উত্তর ও পশ্চিম ভারতে শ্রীকৃষ্ণের লীলা ছড়িয়ে আছে। রয়েছে বৃন্দাবন, মথুরা আর দ্বারকা। সেখানে রয়েছে প্রচুর প্রাচীন রাধাকৃষ্ণ মন্দির। সেই মন্দিরগুলি ছাড়াও ভারতের অন্যান্য রাজ্যেও ছড়িয়ে রয়েছে কৃষ্ণমন্দির। কোথায় কৃষ্ণের সঙ্গে রয়েছেন শ্রীরাধিকা, কোথাও রয়েছেন পত্নী রুক্মিণী। দেখে নেওয়া যাক তেমনই কয়েকটি মন্দির।

অন্ধ্রপ্রদেশ

তিরুমালা বেঙ্কটেশ্বর মন্দিরে রয়েছে কৃষ্ণ বিগ্রহ। এই বিগ্রহের নাম তিরুমালা কৃষ্ণ বিগ্রহ। এই মন্দিরটিতে বিষ্ণুর বেঙ্কটেশ্বর রূপের আরাধনা করা হলেও বিষ্ণুর দুই অবতার রাম ও কৃষ্ণের বিগ্রহও পূজিত হয়। এখানে কৃষ্ণের সঙ্গে পুজো পান কৃষ্ণপত্নী রুক্মিণী।

কেরল

কেরলের গুরুভায়ুর মন্দির ভূলোকা টেম্পল নামেও পরিচিত। আবার বিশ্বের দরবারে এটি স্নেক টেম্পল নামে খ্যাত। একে দক্ষিণ ভারতের দ্বারকা বলা হয়। কথিত আছে এখানে স্বয়ং ব্রহ্মা বিষ্ণুর পুজো করেন।

কর্নাটক

এই রাজ্যের উদুপি কৃষ্ণমঠ একটি প্রসিদ্ধ কৃষ্ণ মন্দির। মন্দিরটি প্রতিষ্ঠা করেন শ্রীমধ্যাচার্য।

কর্নাটক

এই রাজ্যের বালকৃষ্ণ মন্দিরটি ইউনেসকোর ওয়ার্ল্ড হেরিটেজের মর্যাদা লাভ করেছে। এর স্থাপত্যশৈলী অসাধারণ সুন্দর।

ওড়িশা

পুরীর জগন্নাথ মন্দিরের কৃষ্ণমূর্তি তৈরি নিমকাঠে। এখানে কৃষ্ণ জগন্নাথ রূপে পূজিত হন। সঙ্গে পুজো হয় দাদা বলরাম ও বোন সুভদ্রাও। রত্নবেদিতে একই সঙ্গে পূজিত হন লক্ষ্মী-সরস্বতীও।

শিখে নিন – জন্মাষ্টমীতে বানান ক্ষীর-তাল

পশ্চিমবঙ্গ

পশ্চিমবঙ্গের হুগলি জেলায় বাঁশবেড়িয়ায় অবস্থিত একটি প্রাচীন কৃষ্ণমন্দির। এটি হংসেশ্বরী কালীমন্দির সংলগ্ন। এটি স্থাপিত হয় ১৬৭৯ সালে রাজা রামেশ্বর দত্তের হাতে। এটি অনন্ত বাসুদেব মন্দির। দারুণ কারুকার্যের জন্য মন্দিরটি খ্যাত। মন্দিরের গায়ে টেরাকোটায় রামায়ণ মহাভারত ও কৃষ্ণলীলা খোদিত। মন্দিরচূড়াটি অষ্টভূজাকার।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here