প্রতি মাসেই পূর্ণিমা আসে, তবে শারদীয় পূর্ণিমার গুরুত্ব আরও বিশেষ বলে ধারণা করা হয়। বছরে ১২টি পূর্ণিমার মধ্যে সেরা বলে মনে করা হয়। হিন্দু ধর্মীয় গ্রন্থেও এই পূর্ণিমাকে বিশেষ বলে বর্ণনা করা হয়েছে। আশ্বিন মাসের শুক্লপক্ষের পূর্ণিমাকে রাস পূর্ণিমা বা শারদ পূর্ণিমা (Sharad Purnima) অথবা শরৎ পূর্ণিমা বলা হয়।

শারদ পূর্ণিমার রাতে চাঁদ পৃথিবীর সবচেয়ে কাছে থাকে। এই দিনে চাঁদ নিজের ষোলটি দশায় পূর্ণ থাকে। চাঁদের কিরণে অমৃত বৃষ্টি। এ ছাড়াও, এই পূর্ণিমায় ভগবান শ্রীকৃষ্ণ ব্রজ মণ্ডলে গোপীদের সঙ্গে রাসলীলা করেন। তাই একে রাস পূর্ণিমা বলা হয়। এ বছর শারদ পূর্ণিমা পড়ছে রবিবার, ৯ অক্টোবর।

শারদ পূর্ণিমার তিথি ২০২২

আশ্বিন শুক্লপক্ষের পূর্ণিমা অর্থাৎ শারদ পূর্ণিমা তিথি ৯ অক্টোবর ২০২২ রবিবার ভোররাত ৩.৪১ মিনিট থেকে শুরু হবে। পূর্ণিমা তিথি শেষ হবে পরের দিন সোমবার, ১০ অক্টোবর ২০২২ রাত ২:২৫ মিনিটে।

পৌরাণিক মতে শারদ পূর্ণিমা

শাস্ত্র অনুসারে, শারদ পূর্ণিমায়, দেবী লক্ষ্মী তার পেঁচার উপর চড়ে পৃথিবীতে ভ্রমণ করেন এবং নিজের ভক্তদের সমস্যা দূর করার জন্য বর দেন। পৌরাণিক বিশ্বাস অনুযায়ী, এই দিনে মা লক্ষ্মীর জন্ম হয়েছিল। তাই এই তিথিকে অর্থ লাভের জন্যও শ্রেষ্ঠ বলে মনে করা হয়।

এমনটা বিশ্বাস করা হয় যে শারদীয় পূর্ণিমায় চাঁদের কিরণে রাখা ক্ষীর খেলে রোগ থেকে মুক্তি পাওয়া যায়। চর্মরোগে আক্রান্ত ব্যক্তিদের জন্যও এই ক্ষীরকে কার্যকরী বলে মনে করা হয়। চোখের রোগে আক্রান্তদেরও এই ক্ষীর উপকার করে। এ ছাড়া এটিকে নানা ভাবে বিশেষ কাজে ব্যবহার করা হয়।

কোজাগরী লক্ষ্মী

শাস্ত্রে বলা হয়, বিষ্ণুর শক্তির উৎসও মা লক্ষ্মী। বিভিন্ন অঞ্চলে অনেকেই সেই ছয় গুণের অধিকারী লক্ষ্মীদেবীকে শারদ পূর্ণিমায় কোজাগরী লক্ষ্মী হিসাবে পুজো করেন। বলা হয়, শারদ পূর্ণিমায় কোজাগরী লক্ষ্মীপুজো (Kojagori Lakshmi Puja) সন্ধ্যার সময় করাই শুভ।

কোজাগরী লক্ষ্মীপুজো শরৎকালের লক্ষ্মীপুজো নামেও খ্যাত। এই পুজোয় রাত জাগার নিয়ম রয়েছে। ‘কঃ’ শব্দের অর্থ হল কে, আর ‘জাগর’ শব্দের অর্থ হল জেগে আছে। অর্থাৎ ‘কে জেগে আছে’? অর্থাৎ, লক্ষ্মীপুজোর দিন রাত পর্যন্ত জাগলে সেই বাড়িতে লক্ষ্মীদেবী প্রবেশ করেন। আর যে বাড়ির গৃহস্থ ঘুমিয়ে থাকেন, সেখান থেকে মুখ ফেরান দেবী।

dailyhunt

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন