ওয়েবডেস্ক : সাদা-কালো বা খয়েরির (ব্রাউন) প্রতিযোগিতা বহু দিনের। ইতিহাস সাক্ষী। কখনও কালো সাদাকে হারিয়েছে। কখনও বা সাদা কালোকে। চিরন্তন এই যুদ্ধের প্রতিদ্বন্দ্বী কখনও মানুষ, কখনও বা পশু পাখি, আবার কখনও ডিম।

ডিম! হ্যাঁ ডিম।

অনেকেই এই দু’ রকম ডিমের গোলকধাঁধায় ধাঁধিয়ে যান। ভেবে পান না। আসলে কে ভালো? মানে পুষ্টিকর।

কেউ মনে করেন ব্রাউন এগ বেশি পুষ্টির অধিকারী। কেউ মনে করেন, না সাদা। কারোর মত আবার দু’টিই সমান উপাদেয় আর সুস্বাদু।

এই নিয়ে তরজা বহু দিনের। আর বহু জনেরও।

এক দল গবেষক বলেন, এদের মধ্যে পুষ্টি বা খাদ্যগুণের মূলগত কোনো পার্থক্যই নেই। সাদা ডিম পারে সাদা মুরগি। আর ব্রাউন ডিম পারে খয়েরি পালকের মুরগি। তাই এদের রঙ আলাদা হয়। বাকি ব্যাপারটা পুরোটাই একই।

কারো মতে আবার, সাদার চেয়ে খয়েরির স্বাদ বেশি। তাই খেতেও ভালো। এ ক্ষেত্রে কারণ হল সাদা মুরগিরা যা খায়, খয়েরিরা তা খায় না। একটু অন্য ধরনের খাবার খেতে পছন্দ করে। তাই একটু বেশি স্বাদ হয়। যদি সাদা আর খয়েরি দু’ রকম মুরগিকেই একই খাবার একই পরিমাণে খাওয়ানো হয় তা হলে দু’ জনেরই পারা ডিমের স্বাদ একই হবে।

এক দলকে যখন এই প্রশ্নের উত্তর দিয়ে ক্ষান্ত করা গেল ঠিক তখনই আর এক দল বলে উঠবে, তা হলে খয়েরি ডিমের কুসুমটা অত গাঢ় হয় কেন? কারণ ওরা কর্ন জাতীয় খাবার বেশি খায়। আর এক সঙ্গে অনেকটা করে কর্ন জাতীয় খাবার খায়। তাই।

আকারে বড়ো নিয়েও তরজা আছে। এর পেছনে যে কারণটা রয়েছে তা হল খয়েরি মুরগি তো আকারে বড়ো হয়। তাই ডিমের আকারও বড়ো হয়। এটাই তো স্বাভাবিক নাকি?

বাজার দরের দিক থেকে খয়েরি ডিমের দাম কিন্তু সাদা ডিমের থেকে একটু বেশিই। ভাবছেন তো এর পেছনে আবার কারণটা কী? কারণ খয়েরি মুরগির দাম বেশি। পালন করতে খরচও বেশি। তাই ডিমের দামও বেশি।

নিউট্রিশনিস্ট নীহারিকা আলুওয়ালিয়া বলেন, সাদা আর খয়েরি ডিমের মধ্যে সত্যিই আসলে কোনো পার্থক্য নেই। তবে হ্যাঁ, খয়েরি মুরগিরা ভালো খাবার খায়। ওরা অর্গানিক খাবার বেশি খায়। তাই স্বাদ একটু বেশি হয়। আর যে টুকু পার্থক্য আছে সেটা শুধু এই কারণেই। এরাও যদি সাদাদের মতো খাবার খায় তা হলে একই হবে খেতে।

আবার ওয়েট ম্যানেজমেন্ট এক্সপার্ট গার্গী শর্মা মনে করেন, প্রোটিন, কোলেস্টেরল, ক্যালোরির দিক থেকে যাঁরা সচেতন তাঁদের জন্য ব্রাউন এগই ঠিক পছন্দ।

অন্যদিকে আবার কর্নেল উইনিভার্সিটির পশু বিজ্ঞান বিশেষজ্ঞ ট্রো ভি বুই বলেন, খয়েরি ডিমে ওমেগা থ্রি বেশি থাকে। তবে এটা এতটাও বেশি নয় যে সাদা ডিম খেলে ক্ষতি হয়ে যাবে। এই পার্থক্য গুরুত্বহীন।

তা হলে জানলেন সবটাই। এ বার নিজেরাই ঠিক করুন কাকে বেছে নেবেন আর কাকে নেবেন না।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here