কমলিকা ভৌমিক

এটি একটি ভিন্ন ধরনের লাড্ডু। খেতে খুব ভালো হয়। এবং খুব অল্প জিনিস দিয়ে চট জলদি বানিয়ে ফেলা যায়।

কী কী লাগবে

১.গাজর – ৫০০ গ্রাম

২.দুধ – ১.৫ কাপ

৩.চিনি – ১/৩ কাপ

৫.কাঠ বাদাম কুচি – ১  বড়ো চামচ

৬.পেস্তা কুচি – ১  বড়ো চামচ

৭.ঘি – ৫ বড়ো চামচ

৮.কনডেন্সড মিল্ক – ২ বড়ো চামচ

৯.গুঁড়ো দুধ -১/৩ কাপ

১০.এলাচ গুঁড়ো – ১/৪  চামচ

১১.খোয়া ক্ষীর  (মিষ্টি) – পরিমাণমতো (পুরের জন্য)

আরও পড়ুন: রেসিপি: কাঁচা আমের জেলি

কীভাবে বানাবেন

১.প্রথমে গাজর ধুয়ে ভালো করে কুড়িয়ে নিন।

২.কড়াইতে ২ বড়ো চামচ ঘি গরম করে তাতে কুড়িয়ে রাখা গাজর দিয়ে হালকা করে ভেজে নিতে হবে।

৩.ভাজা হলে তাতে দুধ দিতে হবে।

৪.১৫-২০মিনিট ঢাকা চাপা দিয়ে (মাঝে মধ্যে ঢাকা সরিয়ে নাড়িয়ে নিতে হবে) দুধ পুরো টেনে যাওয়া পর্যন্ত রান্না করতে হবে।

৫.এরপর চিনি  এবং কনডেন্সড মিল্ক দিয়ে ভালো করে মিশিয়ে নিতে হবে।

৬.চিনির জল বেরোতে শুরু করলে অনবরত নাড়াতে হবে।

৭.চিনির জল পুরো টেনে গেলে তাতে বাকি ঘি দিয়ে অল্প ভেজে নিতে হবে।

৮.মিশ্রণটিতে কাঠবাদাম কুচি, পেস্তা কুচি, দিয়ে ভালো করে মিশিয়ে নিন।

৯.এবার গুঁড়ো দুধ এবং এলাচ গুঁড়ো দিতে হবে।

১০.সব ভালো করে মিশে গেলে গ্যাস থেকে একটি পাত্রে ঢেলে ঠান্ডা করতে দিন।

১১.খোয়া ক্ষীর দিয়ে ছোট ছোট বল বানিয়ে নিতে হবে।

১২.গাজরের মিশ্রণটি হাতে ধরার মতো ঠান্ডা হয়ে গেলে সেটা থেকে লাড্ডুর আকারে বল বানিয়ে নিতে হবে।

১৩.গাজরের বলগুলির মাঝখানে  আঙুলের সাহায্যে চেপে খোয়া ক্ষীরের বল দিয়ে ভালো করে লাড্ডু বানিয়ে নিন।(আলুর পরোটাতে যেমন ভাবে পুর ভরে)

১৪.এভাবেই সব লাড্ডু বানিয়ে নিয়ে ১ থেকে ২ ঘন্টার জন্য ফ্রিজে রেখে সেট করুন।

১৫.১ থেকে ২ ঘন্টা পর লাড্ডুর ওপরে গুঁড়ো দুধ এবং পেস্তা কুচি ছড়িয়ে পরিবেশন করুন গাজরের ক্ষীর লাড্ডু।

ছবি: লেখক

(আপনিও পাঠাতে পারেন রেসিপি। পাঠান [email protected]এ। সঙ্গে নিজের পরিচয়, ঠিকানা, ছবি পাঠাতে ভুলবেন না। সঙ্গে যে রেসিপিটি পাঠাচ্ছেন, সেটির আড়াআড়ি ছবি। ছবিটি অবশ্যই নিজের রান্না করা পদের হতে হবে। দয়া করে রেসিপিটি অভ্রয় বাংলা টাইপ করে পাঠাবেন।)

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here