Connect with us

খাওয়াদাওয়া

রেসিপি: কাঁকরোলের দোরমা

kankrol's dorma
অনন্যা মল্লিক

কাঁকরোল অনেকেই খেতে চায় না। আজ রইল কাঁকরোলের এমন এক রেসিপি যা বাচ্চা থেকে বয়স্ক, সকলেই চেটেপুটে খাবে।

উপকরণ

কাঁকরোল ৬টা, তেল, জল

পুরের জন্য

১. পেঁয়াজ ১টা ছোটো করে কাটা

২. কাঁকরোলের মাঝের অংশটা

৩. পনির কুরোনো ১/২ কাপ

৪. আদা ১ ইঞ্চি

৫. রসুন ২-৩ কোয়া

৬. কাঁচা লঙ্কা ২-৩টে

৭. নুন পরিমাণমতো

৮. চিনি পরিমাণমতো

৯. গরম মশলাগুঁড়ো ১/২ চা-চামচ

১০. কিশমিশ ১০-১২ টা

গ্রেভির জন্য

১. ছোটো এলাচ ২টো

২. লবঙ্গ ২টো

৩. দারচিনি ছোটো টুকরো

৪. গোটা গোলমরিচ ৩-৪ টে

৫. গোটা জিরে ১/২ চা-চামচ

৬. পেঁয়াজ টমেটোর পেস্ট ১/২ কাপ

৭. আদা-রসুনবাঁটা ১ চামচ

৮. লঙ্কাগুঁড়ো ১/২ চা-চামচ

৯. জিরেগুঁড়ো ১/২ চা-চামচ

১০. ধনেগুঁড়ো ১/২ চা-চামচ

১১. হলুদগুঁড়ো ১/২ চা-চামচ

১৩. নুন পরিমাণমতো

১৪. চিনি পরিমাণমতো

১৫. ফেটানো টক দই ১/৪ কাপ

১৬. পোস্ত কাজুবাদামের পেস্ট ২ চা-চামচ

১৪. গরম মশলা ১/২ চা-চামচ

আরও পড়ুন বর্ষার রেসিপি: ইলিশ মাছের মাথা দিয়ে কচুশাক

কী ভাবে বানাবেন

১. কাঁকরোলগুলোর গা ভালো করে ঘষে নিতে হবে, যাতে কাঁটাগুলো না থাকে।

২. কাঁকরোলের দু’ দিক অল্প করে কেটে নিতে হবে।

৩. এ বার একটা দিক ভালো করে কেটে চামচের পিছন দিয়ে ভিতরের বীজ, শাঁস সব বার করে নিতে হবে।

৪. কড়াইয়ে তেল গরম করতে হবে।

৫. কাঁকরোলগুলো ৬-৭ মিনিট ভেজে নিতে হবে।

কী ভাবে পুর তৈরি করবেন

১. কিশমিশগুলো জলে ভিজিয়ে রাখতে হবে।

২. কাঁকরোলের মাঝের অংশ, আদা, রসুন, লঙ্কা, পনির সব মিক্সিতে পেস্ট করে নিতে হবে।

৩. কড়াইয়ে অল্প তেল গরম করতে হবে।

৪. কুচিয়ে রাখা পেঁয়াজ ভাজতে হবে।

৬. পেঁয়াজ ভাজা হয়ে গেলে তাতে পেস্টটা দিতে হবে।

৭. পরিমাণমতো নুন, চিনি, গরম মসলা, কিশমিশ দিয়ে ভালো করে নাড়তে হবে।

৮. মাখামাখা হয়ে গেলে নামাতে হবে।

হয়ে গেল পুর তৈরি। এ বার ভেজে রাখা কাঁকরোলগুলোর ভিতর পুরটা ভালো করে ভোরে দিন।

কী ভাবে গ্রেভি তৈরি করবেন

১. কড়াইয়ে তেল গরম করতে হবে।

২. ছোটো এলাচ, লবঙ্গ, দারচিনি, গোটা গোলমরিচ, গোটা জিরে ফোঁড়ন দিতে হবে।

৩. পেয়াঁজ টমেটোর পেস্টটা দিতে হবে।

৪. আদা-রসুনবাঁটা দিতে হবে।

৫. লঙ্কাগুঁড়ো, জিরেগুঁড়ো, ধনেগুঁড়ো, হলুদগুঁড়ো, নুন, চিনি দিয়ে অল্প জল দিয়ে ভালো করে কষতে হবে।

৬. তেল ছাড়লে ফেটানো টক দই, কাজু-পোস্ত পেস্টটা দিতে হবে।

৭. ভালো করে কষিয়ে তেল ছাড়লে জল দিতে হবে।

৮. এ বার কাঁকরোলগুলো দিয়ে ঢাকা দিতে হবে।

৯. ১৫ মিনিট পর ঢাকা খুলে একটু নাড়িয়ে আরও ৫ মিনিট ঢাকা দিতে হবে।

১০. এ বার গরম মশলাগুঁড়ো ছড়িয়ে দিতে হবে।

১১. ভালো করে ফুটিয়ে গা মাখা পছন্দ হলে গা মাখা করে, না হলে অল্প গ্রেভি রাখলেও হবে।

গরম গরম পরিবেশন করতে হবে কাঁকরোলের দোরমা।

খাওয়াদাওয়া

করোনা থেকে রূপচর্চা, কী ভাবে উপকার করে তুলসী পাতা? ১৪টি গুণ

খবরঅনলাইন ডেস্ক : তুলসী পাতার উপকারিতার কোনো অন্ত নেই। বিশেষ করে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে এর তুলনা নেই। তাই করোনা-কালে এর চাহিদা ও কদর দুই-ই বেড়েছে। সকলেই শুনে শুনে তুলসী পাতার ব্যবহার শুরু করেছেন। কিন্তু রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধির পাশাপাশি ঠিক আর কী কী উপকার হয় এর থেকে, তা অনেকেই বিস্তারে জানেন না। সে সবই এখন জেনে নেওয়া যাক –

১। শ্বাস-প্রশ্বাস

ঠান্ডা লাগলে  শ্বাস-প্রশ্বাসের সমস্যা হয় অনেকেরই। এই সময় তুলসী পাতা ম্যাজিকের মতো কাজ করে। গলার সংক্রমণ বা অন্য সমস্যা- সবেতেই তুলসী পাতা উপকারী।

২। হৃদযন্ত্রের অসুখ

তুলসী পাতায় আছে প্রচুর  ভিটামিন সি ও অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট। এই উপাদান হৃদযন্ত্রকে বহু সমস্যা থেকে মুক্ত রাখে। হৃদযন্ত্রের কর্মক্ষমতা বাড়ায় ও স্বাস্থ্য ভালো রাখে।

৩। মানসিক চাপ

তুলসীর ভিটামিন সি ও অন্যান্য অ্যান্টিঅক্সিডেন্টগুলো মানসিক চাপ কমাতে সহায়তা করে। এই উপাদানগুলো নার্ভকে শান্ত করে। কর্টিসল হরমোনের সঙ্গে স্ট্রেস-এর সরাসরি সম্পর্ক রয়েছে। এটি খেলে কর্টিসল হরমোনের ক্ষরণ কমে যেতে শুরু করে। ফলে স্ট্রেস লেভেলও কমতে শুরু করে। ডিপ্রেশন বা মানসিক অবসাদের প্রকোপ কমাতেও দারুণ ভাবে সাহায্য করে। এ ছাড়াও পাতার রস শরীরের রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখে।

৪। মাথা ব্যথা

মাথা ব্যথা ও শরীর ব্যথা কমাতে তুলসী খুবই উপকারী। এর বিশেষ উপাদান মাংশপেশীর খিঁচুনি রোধ করতে সহায়তা করে।

৫। রোগ নিরাময় ক্ষমতা

ঔষধি-গুণাবলি সমৃদ্ধ গাছ এটি। তুলসীকে কেউ কেউ ‘নার্ভের টনিক’ বলে থাকেন। এটি স্মরণশক্তি বাড়ানোর জন্য বেশ উপকারী। এটি শ্বাসনালী থেকে শ্লেষ্মাঘটিত সমস্যা দূর করে। তুলসী পাতা পাকস্থলীর ও কিডনির স্বাস্থ্যের জন্য অত্যন্ত ভালো।

৬। রক্ত পরিশুদ্ধ হয়

প্রতিদিন সকালে খালি পেটে ২-৩টি তুলসী পাতা খাওয়ার অভ্যাস করলে রক্তে উপস্থিত ক্ষতিকর উপাদান এবং টক্সিন শরীরের বাইরে বেরিয়ে যায়। ফলে শরীর ভিতর থেকে চাঙ্গা হয়।

৭। ডায়াবেটিস দূরে থাকে

নিয়মিত এই পাতা খেলে রক্তে শর্করার মাত্রা কমতে শুরু করে। সেই সঙ্গে ইনসুলিনের কর্মক্ষমতাও বাড়ে। ফলে শরীরে সুগারের মাত্রা বেড়ে যাওয়ার কোনও সম্ভাবনাই থাকে না। প্রসঙ্গত, মেটাবলিক ড্যামেজের হাত থেকে লিভার এবং কিডনি-কে বাঁচাতেও দারুণ ভাবে সাহায্য করে তুলসী।

৮। ক্যান্সার রোধে

পাতায় উপস্থিত ফাইটোনিউট্রিয়েন্ট শরীরের ভেতরে ক্যান্সার সেল যাতে কোনো ভাবেই জন্ম নিতে না পারে, সে দিকে খেয়াল রাখে। ফলে ক্যান্সার হওয়ার সুযোগই পায় না। এটি ফুসফুস, লিভার, ওরাল এবং স্কিন ক্যান্সার প্রতিরোধে বিশেষ ভূমিকা পালন করে।

৯। দৃষ্টিশক্তি

একাধিক পুষ্টিগুণে ভরপুর তুলসী, দৃষ্টিশক্তি বাড়ানোর পাশাপাশি ছানি এবং গ্লুকোমার মতো চোখের রোগকে দূরে রাখতেও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা নেয়। সেই সঙ্গে ম্যাকুলার ডি-জেনারেশন আটকাতেও সাহায্য করে।

১০। সর্দি–জ্বরে

তুলসী পাতা প্রাকৃতিক অ্যান্টিবায়োটিক। জ্বর এবং সর্দি-কাশি সারাতে এই প্রাকৃতিক উপাদানটির বিকল্প হয় না। এই পাতা শরীরে প্রবেশ করা মাত্র যে যে ভাইরাসের কারণে জ্বর হয়েছে, সেই জীবাণুগুলোকে মারতে শুরু করে। ফলে শরীর ধীরে ধীরে চাঙ্গা হয়ে ওঠে।

১১। পোকার কামড়ে

তুলসী পাতা হল প্রোফাইল্যাক্টিভ। এটি পোকামাকড় কামড়ে দিলে উপশম করতে সক্ষম। পোকার কামড়ে আক্রান্ত স্থানে পাতার রস লাগিয়ে দিলে পোকার কামড়ের ব্যথা ও জ্বালা থেকে কিছুটা মুক্তি পাওয়া যায়।

১২। বয়স রোধে

ভিটামিন সি, ফাইটোনিউট্রিয়েন্টস ও এসেন্সিয়াল অয়েল চমৎকার অ্যান্টিঅক্সিডেন্টের হিসেবে কাজ করে। বয়সের ছাপ কমায়।

১৩। ত্বকের সমস্যায়

তুলসী পাতার রস ত্বকের জন্য খুবই উপকারী। তুলসী পাতা বেটে সারা মুখে লাগিয়ে রাখলে ত্বক সুন্দর ও মসৃণ হয়। এ ছাড়াও তিল তেলের মধ্যে তুলসী পাতা ফেলে হালকা গরম করে লাগালে ত্বকের যে কোনও সমস্যায় উপকার পাওয়া যায়। এ ছাড়াও কোনও অংশ পুড়ে গেলে তুলসীর রস এবং নারকেলের তেল ফেটিয়ে লাগালে জ্বালা কমবে এবং সেখানে কোনও দাগ থাকবে না।

১৪। ব্রণের প্রকোপে

তুলসী পাতায় উপস্থিত অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল এজেন্ট শরীরে প্রবেশ করে ক্ষতিকর ব্যাকটেরিয়া এবং জীবাণু মেরে ফেলে। ফলে ব্রণের প্রকোপ কমতে শুরু করে। সেই সঙ্গে নানাবিধ সংক্রমণে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কাও হ্রাস পায়। ব্রণের সমস্যায় এই পাতা খেতে পারেন অথবা সরাসরি মুখে পেস্ট বানিয়ে লাগাতেও পারেন। দুই ক্ষেত্রেই সমান উপকার পাওয়া যায়।

পরুন – ব্রকলি খাবেন কেন? তার ২২টি কারণ জেনে নিন

Continue Reading

খাওয়াদাওয়া

মা-ঠাকুমার হেঁশেল থেকে রইল ৩টি দারুণ রেসিপি, বাড়িতে ট্রাই করতে পারেন

খবর অনলাইন ডেস্ক : মা-ঠাকুমার ঝুলিতে কতই না রেসিপি আছে। তাঁরা হেঁশেল ছাড়লে সেগুলি হারিয়ে যায়।

তবু বর্তমান প্রজন্মের অনেকই সেই রেসিপিগুলি খুঁজে পেতে এনে আবার হেঁশেলে নবজন্ম দিচ্ছেন।

খবর অনলাইনের পাশাপাশি মিডিয়া ফাইভের আরও একটি উদ্যোগ হল মুঠোয় হেঁশেল। এটি বাংলায় অনলাইন একটি রেসিপি ম্যাগাজিন।

এখানে পাঠাকদের পাঠানো নানা রেসিপি প্রকাশিত হয়। সে রকমই পাঠকদের পাঠানো মা-ঠাকুমার রেসিপি থেকে তিনটি আপনার জন্য বেছে দেওয়া হল।

নারকলের চিঁড়ে

নারকল দিয়ে তো নানা কিছু বানানো যায়। এটি তার মধ্যেই একটা। কী ভাবে বানাবেন নারকলের চিঁড়া বিস্তারিত জানার জন্য এই লিঙ্কে ক্লিক করুন।

মৌরলা ভাপা পোস্ত

মৌরলা মাছ আর পোস্ত দুটোই বাঙালির বড় প্রিয় খাদ্য। দুটোর কম্বিনেশনে যদি একটি রান্না হয় তবে তো দারুণ জমে যায়। কী কী লাগবে এবং কী ভাবে করবেন তা জানতে এই লিঙ্কে ক্লিক করুন।

দই ভাপা

রেসিপিটি জানতে এই লিঙ্ককে ক্লিক করুন

Continue Reading

খাওয়াদাওয়া

প্রতিরোধক্ষমতা বাড়াতে রোজের খাদ্যতালিকায় অবশ্যই রাখুন এই খাবারগুলি

food

খবরঅনলাইন ডেস্ক :  করোনাকালে সব থেকে বেশি দরকার রোগ প্রতিরোধক্ষমতা বাড়ানো। তা হলে এই ক্ষমতা বাড়ানোর জন্য দরকার উপযুক্ত খাবারেরও। কয়েকটি খাবার নিয়মিত খেলে রোগ প্রতিরোধক্ষমতা বাড়বেই বাড়বে।

১। রসুন –

এটি রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করে। ধমনীতে দূষিত পদার্থ জমতে দেয় না। রক্ত সংবহনতন্ত্র সংকীর্ণকারী উৎসেচক নির্গত হওয়া কমায়।

২। চকোলেট –

শুনলে অবাক হবেন না, চকোলেটও রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে খুব সাহায্য করে। হৃদরোগ ও স্ট্রোকের আশঙ্কা কমায়। হাভার্ডের একটি গবেষণায় জানা গিয়েছে, নিয়মিত বিশুদ্ধ কোকো খেলে রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে থাকে ও হাইপারটেনশন হয় না।

৩। আমন্ড –

এটি কগনেটিভ ফাংশনকে ভালো করে, হৃদরোগ হতে দেয় না। খারাপ কোলেস্টেরলের মাত্রা কমায়।

৪। বেদানা –

রক্তনালি সাফ রাখতে সাহায্য করে বেদানা। প্রচুর অ্যান্টিওক্সিডেন্টে ভরপুর তাই অক্সিডেন্ট জমতে দেয় না। প্রস্টেট ক্যানসার, মধুমেহ, স্ট্রোক ইত্যাদির আশঙ্কা কমায়।

৫। বিট –

যদিও শীতকাল ছাড়া পাওয়া একটু সমস্যা। তবুও বিট স্বাস্থ্যের জন্য দারুণ। প্রচুর অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, খনিজ রয়েছে এতে।

৬। হলুদ –

হলুদের তুলনা হয় না। হৃদযন্ত্র বড়ো হয়ে যাওয়া আটকায় হলুদ। উচ্চ রক্তচাপ কমায়, মোটা হয়ে যাওয়া আটকায়। খাদ্যগুণ অসীম।

৭। আপেল –

এতে আছে প্রচুর পরিমাণ মিনারেল, অ্যান্টিওক্সিডেন্ট, ভিটামিন। হৃদরোগের আশঙ্কা কমায়, উচ্চ রক্তচাপ কমায়।

৮। বেগুন –

নাম বেগুন হলেও গুণ অপরিসীম। ফ্ল্যাবোনয়েড, খনিজ, ভিটামিন, অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট রয়েছে প্রচুর। হৃদরোগের আশঙ্কা কমায়।

৯। ব্রকলি –

রক্তনালির ক্ষমতা বাড়ায়, খারাপ কোলেস্টেরল কমায়। রয়েছে অ্যান্টিইনফ্লেমটারি উপাদান। ব্ল্যাড সুগার সংক্রান্ত সব রকম সমস্যা কমায়।

১০। গাজর –

হৃদযন্ত্র ভালো রাখতে অন্যতম খাদ্য গাজর। প্রচুর খনিজ ও ভিটামিন রয়েছে। ক্যানসার প্রতিরোধে সাহায্য করে। হাড় ও হৃদযন্ত্রের ক্ষমতা বাড়ায়।  

পড়ুন – করোনা কালে হৃদযন্ত্রকে শক্তিশালী করতে এই ১০টি খাবার অবশ্যই খান

Continue Reading
Advertisement
শরীরস্বাস্থ্য6 mins ago

৬টি ভিন্ন পথে কোভিড-১৯ সংক্রমণ, দেখে নিন কোন পর্যায়ে কী?

প্রযুক্তি1 hour ago

শাওমি, বাইডু-সহ আরও বেশ কয়েকটি চিনা সংস্থার অ্যাপ নিষিদ্ধ করল কেন্দ্র

দেশ2 hours ago

উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী ‘আদিত্য যোগীনাথ’, টুইটারে হাসির রোল!

ফুটবল2 hours ago

শেষ হল বর্ণময় এক অধ্যায়, অবসর নিলেন ইকের কাসিয়াস

বিদেশ2 hours ago

বেইরুটের কিছু এলাকা ধ্বংসস্তূপে পরিণত, নিহত শতাধিক

রাজ্য3 hours ago

অযোধ্যায় শুরু রামমন্দির নির্মাণ, রামরাজ্যের আদর্শে উচ্ছ্বসিত রাজ্যপাল জগদীপ ধানখড়

গাড়ি ও বাইক4 hours ago

পেট্রোলচালিত গাড়ি ‘এস-ক্রস’ বাজারে নিয়ে এল মারুতি সুজুকি

দেশ4 hours ago

রামদ্রোহী: রামমন্দিরের ভূমিপুজো নিয়ে রাজনৈতিক তোপ শিবসেনার

দেশ10 hours ago

কোভিড আপডেট: নতুন করে আক্রান্ত ৫২৫০৯, সুস্থ ৫১৭০৬

গাড়ি ও বাইক4 hours ago

পেট্রোলচালিত গাড়ি ‘এস-ক্রস’ বাজারে নিয়ে এল মারুতি সুজুকি

রাজ্য2 days ago

লকডাউনের সূচি ফের বদলাল রাজ্যে

ক্রিকেট1 day ago

বিতর্কের মধ্যেই আইপিএলের সঙ্গত্যাগ করল চিনা সংস্থা ভিভো

দেশ2 days ago

কমল নতুন আক্রান্তের সংখ্যা, বাড়ল সুস্থতার হার, রোগীবৃদ্ধির হারও সর্বনিম্ন স্তরে

দেশ8 hours ago

রুপোর ইট দিয়ে রামমন্দিরের শিলান্যাস করলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী

রাজ্য3 days ago

এক দিনে আক্রান্ত এবং মৃত্যুর সংখ্যায় রেকর্ড, রাজ্যে বাড়ল সুস্থতার হার

ক্রিকেট8 hours ago

আইপিএলের নিয়মাবলি: গুচ্ছের টেস্টিং, চলা-ফেরায় নিয়ন্ত্রণ, একটি দলের জন্য একটি হোটেল

রবিবারের খবর অনলাইন

কেনাকাটা

things things
কেনাকাটা5 days ago

করোনা আতঙ্ক? ঘরে বাইরে এই ১০টি জিনিস আপনাকে সুবিধে দেবেই দেবে

খবরঅনলাইন ডেস্ক : করোনা পরিস্থিতিতে ঘরে এবং বাইরে নানাবিধ সাবধানতা অবলম্বন করতেই হচ্ছে। আগামী বেশ কয়েক মাস এই নিয়মই অব্যাহত...

কেনাকাটা1 week ago

মশার জ্বালায় জেরবার? এই ১৪টি যন্ত্র রুখে দিতে পারে মশাকে

খবরঅনলাইন ডেস্ক: একে করোনা তায় আবার ডেঙ্গুর প্রকোপ শুরু হয়েছে। এই সময় প্রতি বারই মশার উৎপাত খুবই বাড়ে। এই বারেও...

rakhi rakhi
কেনাকাটা2 weeks ago

লকডাউন! রাখির দারুণ এই উপহারগুলি কিন্তু বাড়ি বসেই কিনতে পারেন

সামনেই রাখি। কিন্তু লকডাউনের মধ্যে মনের মতো উপহার কেনা একটা বড়ো ঝক্কি। কিন্তু সেই সমস্যা সমাধান করতে পারে অ্যামাজন। অ্যামাজনের...

কেনাকাটা2 weeks ago

অনলাইনে পড়াশুনা চলছে? ল্যাপটপ কিনবেন? দেখে নিন ৪০ হাজার টাকার নীচে ৬টি ল্যাপটপ

ইনটেল প্রসেসর সহ কোন ল্যাপটপ আপনার অনলাইন পড়াশুনার কাজে লাগবে জেনে নিন।

কেনাকাটা2 weeks ago

করোনা-কালে ঘরে রাখতে পারেন ডিজিটাল অক্সিমিটার, এই ১০টির মধ্যে থেকে একটি বেছে নিতে পারেন

শরীরে অক্সিজেনের মাত্রা বুঝতে সাহায্য করে এই অক্সিমিটার।

কেনাকাটা3 weeks ago

লকডাউনে সামনেই রাখি, কোথা থেকে কিনবেন? অ্যামাজন দিচ্ছে দারুণ গিফট কম্বো অফার

খবরঅনলাইন ডেস্ক : সামনেই রাখি। কিন্তু লকডাউনের মধ্যে দোকানে গিয়ে রাখি, উপহার কেনা খুবই সমস্যার কথা। কিন্তু তা হলে উপায়...

laptop laptop
কেনাকাটা3 weeks ago

ল্যাপটপ কিনবেন? দেখে নিন ২৫ হাজার টাকার মধ্যে এই ৫টি ল্যাপটপ

খবরঅনলাইন ডেস্ক : কোভিভ ১৯ অতিমারির প্রকোপে বিশ্ব জুড়ে চলছে লকডাউন ও ওয়ার্ক ফ্রম হোম। অনেকেই অফিস থেকে ল্যাপটপ পেয়েছেন।...

কেনাকাটা3 weeks ago

হ্যান্ডওয়াশ কিনবেন? নামী ব্র্যান্ডগুলিতে ৩৮% ছাড় দিচ্ছে অ্যামাজন

খবরঅনলাইন ডেস্ক : করোনাভাইরাস বা কোভিড ১৯ এর সঙ্গে লড়াই এখনও জারি আছে। তাই অবশ্যই চাই মাস্ক, স্যানিটাইজার ও হ্যান্ডওয়াশ।...

কেনাকাটা4 weeks ago

ঘরের একঘেয়েমি আর ভালো লাগছে না? ঘরে বসেই ঘরের দেওয়ালকে বানান অন্য রকম

খবরঅনলাইন ডেস্ক : একে লকডাউন তার ওপর ঘরে থাকার একঘেয়েমি। মনটাকে বিষাদে ভরিয়ে দিচ্ছে। ঘরের রদবদল করুন। জিনিসপত্র এ-দিক থেকে...

কেনাকাটা4 weeks ago

বাচ্চার জন্য মাস্ক খুঁজছেন? এগুলোর মধ্যে একটা আপনার পছন্দ হবেই

খবরঅনলাইন ডেস্ক : নিউ নর্মালে মাস্ক পরাটাই দস্তুর। তা সে ছোটো হোক বা বড়ো। বিরক্ত লাগলেও বড়োরা নিজেরাই নিজেদেরকে বোঝায়।...

নজরে

Click To Expand