এই পদ্ধতিতে কিমা মটর বানিয়ে ফেলুন মাত্র কয়েক মিনিটে

0
kimamatar
প্রতীকী ছবি

ওয়েবডেস্ক: রবিবার মানেই সবাই মিলে এক সঙ্গে জমিয়ে খাওয়া-দাওয়া। আর খাওয়ার-দাওয়ার আনন্দকে দ্বিগুণ করে দেয় বিশেষ বিশেষ রেসিপি। বা মনের মতো করে প্রিয় মানুষের জন্য রান্না করা নতুন কোনো রেসিপি। তা সে দিন হোক বা রাত। তাই আজ রাতে বানিয়ে ফেলুন বিশেষ ধরনের কিমা মটর। এখন বাজারে মটর অর্থাৎ কড়াইশুঁটি এসে গিয়েছে। ফলে নতুন আনাজের নতুন পদ করলে হালকা ঠাণ্ডার আমেজে রাতের খাওয়াটা জমে যাবে।

কিমা মটর করতে কী কী লাগবে?

১। মটন কিমা – ৩৫০ গ্রাম।

২। কড়াইশুঁটি – আধ কিলো।

৩। পেঁয়াজ – তিনটি।

৪। রসুন – পাঁচ কোয়া।

৫। আদা বাটা – এক চামচ।

৬। টক দই – ১০০ গ্রাম।

৭। তেল অথবা ঘি – ৭৫ থেকে ১০০ গ্রাম।

৮। তেজ পাতা।

৯। গরম মশলা।

১০। হলুদ গুঁড়ো – ১/২ চামচ।

১১। লঙ্কা গুঁড়ো – এক চামচ।

১২। ধনে পাতা কুচি

কিমা মটর রান্নার করার পদ্ধতি –

প্রথমেই মটন কিমা পরিষ্কার করে ধুয়ে ভালো করে জল ঝরিয়ে রাখতে হবে।

এর পর পেঁয়াজ ও রসুনের কোয়াগুলি কুচি কুচি করে কেটে রাখতে হবে।

আদা বেটে নিতে হবে। এ বার দইটা ফেটানোর সময়।

ফেটানোর আগে তাতে লঙ্কা ও হলুদ গুঁড়ো এবং আদা বাটা দিয়ে ভালো করে ফেটিয়ে নিতে হবে। ফেটানো দইটা কিমার ওপর ঢেলে দিয়ে ভালো করে মেখে নিতে হবে।

এ বার কড়াইতে ঘি অথবা তেল দিয়ে তা গরম করতে হবে। তেল বা ঘি গরম হয়ে গেলে তাতে তেজপাতা ফোড়ন দিতে হবে। এ বার একে একে তাতে পেঁয়াজ ও রসুন দিয়ে ভাজতে হবে। পেঁয়াজ লালচে হলে কড়াইতে ম্যারিনেট করা কিমাটা দিতে হবে। তাতে একে একে নুন, চিনি স্বাদ মতো দিয়ে ভালো করে কিমা কষাতে হবে। তেল ছেড়ে এলে তাতে সামান্য জল দিয়ে সেদ্ধ হতে দিতে হবে। কিমা আধ সেদ্ধ হলে কড়াইশুঁটি দিতে হবে, এর পর আরও এক কাপ মতো জল দিয়ে আবার সেদ্ধ করতে হবে। ভালো করে সেদ্ধ হয়ে গেলে সামান্য ঝোল মাখামাখা থাকতেই নামিয়ে নিতে হবে। ওপর থেকে কিছুটা ধনে পাতা কুচি ছড়িয়ে দিতে হবে।

গরম রুটির সঙ্গে স্যালাড কুচিয়ে পরিবেশন করা যায় কিমা মটর।  

রেসিপি: বড়ি দিয়ে পালং শাকের ঘণ্ট

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.