debopriya_picদেবপ্রিয়া মুখার্জি :

দুর্গাপুজো, কালীপুজো, ভাইফোঁটা, জগদ্ধাত্রী পুজো – সব শেষ। এই সময়টা যেন মন খারাপের সময়। আলোয় ঝলমলে পাড়াটা রাতারাতি কেমন যেন অন্ধকার হয়ে যায়। আবার একটা বছরের অপেক্ষা। ভারী মন নিয়েই স্কুল, কলেজ, অফিসের হাত ধরে আবার একঘেয়ে জীবনের শুরু। এইসময় মনকে রিফ্রেশ করা খুবই জরুরি। কিন্তু কী করবেন? গান শুনবেন, সিনেমা দেখবেন, সময় বের করে বন্ধুদের সাথে আড্ডা দেবেন এবং অবশ্যই পেটপুজো করবেন। ভালো-মন্দ খাবার খাওয়ার মধ্যে যে আনন্দ, তা কি আর কিছুতে রয়েছে? তাই আর দেরি না করে এই উইকএন্ডের প্ল্যানটা করেই ফেলুন।

আমাদের প্ল্যান অনুযায়ী এই উইকএন্ডে যেতে পারেন চাইনিজ রেস্টুরেন্ট হাকায়। এই রেস্টুরেন্টের দুটি আউটলেট। একটি সিটি সেন্টার ওয়ানে এবং অপরটি মানি স্কোয়ার মলে। এখানে ব্যুফেতে ডিনার এবং লাঞ্চ অ্যাভেলেবল। অর্থাৎ মাথাপিছু প্রায় ৫৫০ টাকা খরচ করলেই পাবেন অফুরন্ত খাবার। মনকে ভালো করতে এর থেকে বেশি আর কী চাই বলুন?

এখানে স্টার্টারে পাবেন চিকেন ডাম্পলিং, চিকেন ড্রামস্টিক, স্যুপ ইত্যাদি।

মেন কোর্সে রয়েছে রাইস, নুডলস, শ্রিম্প, চিকেনের একাধিক প্রিপারেশন। সঙ্গে পাবেন বিভিন্ন ধরনের স্যালাড। স্যালাডের মধ্যে অবশ্যই চেখে দেখবেন কিমচি।

কিমচি কোরিয়ার একটি ট্র্যাডিশনাল ডিশ। সেখানে নাকি এই স্যালাডের একশো রকমের ভ্যারাইটি পাওয়া যায়! বাঁধাকপি ম্যারিনেট করে এটি তৈরি করা হয়। যদি বাঁধাকপি আপনার পছন্দের তালিকায় না থাকে তা হলেও বলব একবার অন্তত কিমচি টেস্ট করুন। না হলে কিন্তু পরে আফশোষ হতে পারে।

এর পর ডেসার্টের পালা। ডেসার্টে রয়েছে ব্রাউনি, ম্যুস, নানা ফ্লেভারের আইসক্রিম এবং দার্সান। হাকায় গেলে অবশ্যই খেতে হবে দার্সান। এটি এক ধরনের চাইনিজ আইসক্রিম। হানি ফ্লেভারড নুডলসের সাথে ভ্যানিলা আইসক্রিমের অদ্ভুত সংমিশ্রণে তৈরি হয় দার্সান যার স্বাদ অতুলনীয়।

তা হলে আর চিন্তা কিসের? এই উইকএন্ডের প্ল্যান তো মোটামুটি হয়েই গেল। দেরি না করে অথেনটিক চাইনিজ খাবারের স্বাদ নিতে এবার বেড়িয়েই পড়ুন হাকার উদ্দেশে।

dailyhunt

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন