Connect with us

খাওয়াদাওয়া

ইতালির খাবারের আসল স্বাদ পেতে চান? শুরু হচ্ছে ‘উইক অব দ্য ইটালিয়ান কুইজিন ইন দ্য ওয়ার্ল্ড’ এই হোটেলগুলিতে

Published

on

italianfood

স্মিতা দাস, কলকাতা : আবার শুরু হতে চলেছে ‘উইক অব দ্য ইটালিয়ান কুইজিন ইন দ্য ওয়ার্ল্ড’। টানা সাত দিন জিভে জল আনা সুস্বাদু খাবার চেখে দেখার সুযোগ পাবেন খাদ্যপ্রেমীরা। মহাভোজের সূচনা হতে চলেছে ১৮ নভেম্বর থেকে। চলবে ২৪ নভেম্বর পর্যন্ত।

এই নিয়ে চতুর্থ বর্ষে পা দিল ইতালির এই খাদ্য উৎসব। ২০১৬ সালে শুরু হয়েছিল। এই বছরে তাদের থিম ‘ফুড এডুকেশন:দ্য কালচার অব টেস্ট’। এই উৎসবে অংশ নেবেন চার জন ইতালিয়ান শেফ। কলকাতার বিখ্যাত সব হোটেলে থাকবে সেই সুস্বাদু খাবারের আয়োজন।

ইতালিয়ান কনসাল জেনারেল দামিয়ানো ফ্রাঙ্কোভিগ বলেন, হায়াত রিজেন্সি, আইসিটি, তাজ বেঙ্গল ইত্যাদি বিখ্যাত সব হোটেলে এই ব্যাপারে আয়োজন করা হবে। এই সব হোটেল, রেস্তোরাঁ তাদের মেনুতে ইতালির বিশেষ ধরনের একাধিক খাবারের আয়োজন করবে। কলকাতাবাসী ইতালির আসল খাবার চেখে দেখতে পারবেন। কারণ সচারচর যেটা হয় যে, এক অঞ্চলের খাবারের মধ্যে কিছুটা অন্য অঞ্চলের কোনো কোনো মশলা যোগ করে একটা স্থানীয় ভারসাম্য রক্ষা করা হয়। ফলে মূল স্বাদের হেরফের হয়ে যায়। কিন্তু এই খাবারগুলি রান্না করবেন খোদ ইতালির শেফরা। ফলে ইতালির খাবারের স্বাদ অটুট থাকবে।

তিনি বলেন, থিমের সঙ্গে তাল মিলিয়ে, খালি খাওয়া নয়, সঙ্গে শিক্ষার ব্যাপারটিও সমান তালে গুরুত্ব পাবে। সেই উদ্দেশ্যেই এই সাত দিনের মধ্যেই ইতালির একটি হোটেল ম্যানেজমেন্ট স্কুল থেকে এক দল পড়ুয়াও এখানে আসবেন। এই বিষয়ে বিশেষ সাহায্য করবে আইআইএইচএম। দু’দেশের ভবিষ্যতের শেফরা নিজেদের মধ্যে শিক্ষার লেনদেন করবেন। নিজের নিজের রান্নার ঐতিহ্য নিয়ে কথা বলবেন। পাশাপাশি থাকবেন দুই জন বিখ্যাত শেফও। তাঁদের মধ্যে এক জন হলেন আন্দ্রিয়া মিসেরি। মিসেরি তাজ হোটেলের সঙ্গে যুক্ত। থাকবেন পাওলো রিসিকা। পাওলো গ্লেনবার্ন পেইন্ঠাউজ এবং বসু ফাউন্ডেশন ফর আর্টসে বিশেষ ডিনারের আয়োজন করবেন।

এই সঙ্গে অবশ্যই রয়েছে ডিজাইন অর্থাৎ নকশা ও সংস্কৃতি নিয়েও বিশেষ আয়োজন। সেই আয়োজনে ইতালির বিভিন্ন ধরনের ল্যাম্পের নকশা ও সংস্কৃতি ও টেস্কস্টাইল নিয়েও কাজ হবে। তা ছাড়া কলকাতা মিউজিয়ামে ২৩ নভেম্বর একটি প্রদর্শনীর আয়োজনও করা হচ্ছে।

এই পদ্ধতিতে কিমা মটর বানিয়ে ফেলুন মাত্র কয়েক মিনিটে

ফ্রাঙ্কোভিগ বলেন, দেখা গিয়েছে বিশ্বের যে কোনো অঞ্চলের পর্যটক ইতালিতে বেড়াতে গেলে ১০০ ইউরোর মধ্যে প্রায় ২২ ইউরো খরচ করেন শুধু ইতালির খাবারের জন্য। অর্থাৎ পর্যটন শিল্পের একটা বড়ো অংশ জুড়ে রয়েছে সেখানকার খাবার। ফলে গোটা বিশ্বে যে ইতালির খাবারের বিশেষ কদর আছে তা বোঝাই যায়। তাই এই উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। আর সংস্কৃতিতে অন্যান্য সব কিছুর সঙ্গে অবশ্যই জড়িয়ে রয়েছে খাবারের ব্যাপারটিও।

Advertisement
Click to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

খাওয়াদাওয়া

কেন খাবেন মোচা? জেনে নিন ১৬টি উপকারিতা

Published

on

প্রতীকী

খবর অনলেইন ডেস্ক : বিশেষজ্ঞরা বলেন, রঙিন খাবারে পুষ্টিগুণ বেশি থাকে। মোচাও একটি রঙিন খাবার। এতে রয়েছে প্রচুর পুষ্টি ও খাদ্যগুণ

মোচার পুষ্টিগুণ :

মোচা খেতে খুবই সুস্বাদু। পুষ্টিতেও অতুলনীয়। কলাতে যে সকল পুষ্টি উপাদান থাকে সেগুলো তো থাকেই। তা ছাড়াও মোচাতে থাকে মেন্থলের নির্যাস, যা শক্তিশালী অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট। থাকে ফেনলিক অ্যাসিডও।

প্রতি ১০০ গ্রাম মোচায় রয়েছে – ভিটামিন ‘এ’, ভিটামিন বি সিক্স, ভিটামিন ‘সি’ ৪২০ মিগ্রা, ভিটামিন ই, প্রোটিন ১.৭ গ্রাম, ক্যালসিয়াম ৩২ মিগ্রা, ফসফরাস ৪২ মিগ্রা, লৌহ ১.৬ মিগ্রা, ফ্যাট ০.৭ গ্রাম, পটাশিয়াম ১৮৫ মিগ্রা, কার্বোহাইড্রেট ৫.১ গ্রাম, রিবোফ্লেবিন .০২মিগ্রা, আঁশ ১.৩ গ্রাম, থায়ামিন .০৫ মিগ্রা।

কী কী উপকার হয়?

১। রজঃচক্র স্বাভাবিক রাখা

কলার ফুল রজঃকালীন ব্যথা কমায়। এটি প্রোজেস্টেরন উৎপাদন বৃদ্ধি করে রক্তাল্পতা কমায়।

মোচা

২। ওভারিয়ান সিন্ড্রোম

পেটের বিভিন্ন সমস্যা যেমন – কোষ্ঠকাঠিন্য, পেটে ফোলাভাব বিশেষ করে ‘পলিসিস্টিক ওভারিয়ান সিন্ড্রোম’ (পিসিওএস) নিয়ন্ত্রণে রাখে।

৩। মন ভালো রাখতে

মোচাতে আছে ম্যাগনেশিয়াম, উদ্বেগ ও হতাশা কমায়। মন মেজাজ ভালো রাখে।

৪। ডায়াবেটিস

মোচার ফেনলিক অ্যাসিড এবং অন্যান্য বায়োঅ্যাক্টিভ উপাদান রক্তের শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণে রাখে।  

৫। বুকের দুধ তৈরিতে

মোচায় রয়েছে প্রাকৃতিক ‘গ্যালাক্টাগাগ’। এই বিশেষ উপাদানটি স্তন্যদানকারী মায়ের বুকের দুধ বৃদ্ধি করতে সাহায্য করে।

৬। দীর্ঘস্থায়ী সংক্রমণ

মোচায় থাকে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট। অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট উন্মুক্ত রেডিকলের বিরুদ্ধে কাজ করে। হৃদরোগ ও ক্যানসারের ঝুঁকি কমায়।

৭। দেহগঠনে

মোচা কার্বোহাইড্রেট ও প্রোটিন সমৃদ্ধ, তাই দেহ গঠনে সাহায্য করে।

৮। রক্তাল্পতায়

মোচায় লৌহ অর্থাৎ আয়রন আছে, অ্যানিমিয়া বা রক্তস্বল্পতা দূর করতে দারুণ সহায়তা করে।

৯। হজমে ও কোষ্ঠকাঠিন্যে

মোচার মধ্যে প্রচুর পরিমাণে আঁশ পাওয়া যায়, এটি হজম শক্তি বাড়ায়। ফলে কোষ্ঠকাঠিন্য দূর হয়।

১০। ক্যানসার

ক্যানসার রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাসম্পন্ন মোচা।

১১। দাঁত ও হাড়ে

মোচায় ক্যালসিয়াম ও ফসফরাস থাকায় এটি শিশুদের দাঁত ও হাড়ের গঠন মজবুত করে। তা ছাড়া বয়স্ক নারী-পুরুষ, শারীরিক পরিশ্রমকারী ব্যক্তিদের জন্য মোচা দারুণ উপকারী।

১২। রক্তচাপ

প্রচুর পরিমাণে পটাশিয়াম রয়েছে মোচায়। তাই মোচা খেলে হাই ব্লাডপ্রেশার কমে।

১৩। চোখের সমস্যায়

ভিটামিন ‘এ’ রাতকানা রোগের বিরুদ্ধে, অকালে দৃষ্টিশক্তি হারানো থেকে রক্ষা করে।  

১৪। গর্ভাবস্থায়

বিশেষজ্ঞরা বলেন, শিশুর প্রায় ৭০ ভাগ মস্তিষ্কের গঠন মায়ের পেটে থাকা অবস্থাতেই হয়ে যায়। তাই গর্ভবতীদের শিশুর সুস্বাস্থ্যের জন্য নিয়মিত মোচা খাওয়া উচিত।

১৫। মেনোপোজ

মেনোপজ বা নির্দিষ্ট সময়ে ঋতু বন্ধ হওয়ার পর মেয়েদের হাড় দুর্বল হয়ে পড়ে। সেই সময় হাড়ের গঠন মজবুত করতে খুবই উপকারী মোচা।

১৬। ত্বকের জন্য

এতে রয়েছে ভিটামিন সি এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট। তাই কলার মোচা অকালে বৃদ্ধ হওয়া ও বয়সের ছাপ পড়া কমায়। ত্বকের গঠন উন্নত করে বলিরেখা দূর করে। চুল ভালো রাখতেও এটি বেশ কার্যকর।  

পড়ুন কেন খাবেন গাঁটি কচু? জেনে নিন ১১টি উপকারিতা

আরও পড়ুন – যষ্টিমধু কেন খাবেন? জেনে নিন উপকারিতা

Continue Reading

খাওয়াদাওয়া

কেন খাবেন গাঁটি কচু? জেনে নিন ১১টি উপকারিতা

Published

on

খবরঅনলাইন ডেস্ক : বর্তমান পরিস্থিতির কারণে ক্রমশ বাইরের খাবারের পরিবর্তে ঘরে তৈরি খাবার ও শাকসবজি খাওয়ার দিকে নজর ফেরাচ্ছে সবাই। এ ক্ষেত্রে যেমন রান্নাঘরে আবার জায়গা করছে সবুজ শাকসবজি, তেমনই আবার ঠাকুরমার আমলের অনেক খাবারই গুরুত্ব পাচ্ছে। তেমনই একটি খাবার হল কচু। কচুর অনেক রকমফের আছে। তার মধ্যে একটি হল কচুর লতি, অর্থাৎ কচু শাক। তার উপকারিতা নিয়ে এর আগে আলোচনা করা হয়েছে। আজ জেনে নেওয়া যাক গাঁটি কচুর উপকারিতা।  

এক আধটি নয়। এর উপকারিতাও অনেক। এটি অত্যন্ত পুষ্টিকর খাবার। এতে রয়েছে বিভিন্ন রকমের ভিটামিন, যেমন এ, বি, সি ও ডি। তা ছাড়া প্রোটিন, কপার, ম্যাঙ্গানিজ, পটাশিয়াম, জিংক, ম্যাগনেসিয়াম, ক্যালসিয়াম, আয়রন, সেলেনিয়াম, বিটা ক্যারোটিন এবং ক্রিপ্টোজেন্থিন নামক খনিজ উপাদান থাকে। এতে গ্লুটেন থাকে না। এ ছাড়াও এতে ১৭ প্রকারের অ্যামাইনো অ্যাসিড এবং ওমেগা ৩ ও ওমেগা ৬ অয়েল থাকে।  

১। হৃদযন্ত্রের জন্য

কচুর মুখি বা গাঁটি কচুতে ফ্যাট ও কোলেস্টেরলের পরিমাণ অনেক কম থাকে। ফলে ধমনীর ভেতরে খারাপ কোলেস্টেরলও জমে যাওয়া প্রতিরোধ করে। প্রতি দিন এক কাপ কচু খেলে  ভিটামিন ডি-র দৈনিক চাহিদা ১৯% পূরণ করা যায়। কচু খেলে হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকি অনেক কমে যায়। কার্ডিওভাস্কুলার রোগ ও অন্যান্য রোগ প্রতিরোধে সাহায্য করে।

২। হাইপারটেনশন

বর্তমান পরিস্থিতিতে হাইপারটেনশন বা উচ্চ রক্তচাপ হওয়াটা খুব অস্বাভাবিক ব্যাপার নয়। সে ক্ষেত্রে কচু উপকারী। হাইপারটেনশনের রোগীদের কম চর্বি যুক্ত ও কম সোডিয়াম যুক্ত খাবার খাওয়া উচিত। সে ক্ষেত্রে এক কাপ গাঁটি কচুতে ২০ গ্রাম সোডিয়াম ও ০.১ গ্রাম ফ্যাট থাকে। ফলে এটি হাইপারটেনশনের রোগীদের জন্য ভালো।

৩। কিডনি

যাদের কিডনির সমস্যা রয়েছে তাদের ক্ষেত্রেও উপকারী হল গাঁটি কচু।

৪। অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট

শরীরে অ্যান্টিঅক্সিডেন্টের চাহিদা অনেকাংশেই পূরণ করে গাঁটি কচু। এতে প্রচুর পরিমাণ ভিটামিন সি রয়েছে। এক কাপ গাঁটি কচু ভিটামিন সি-র দৈনিক চাহিদার ১১%-ই পূরণ করে। শুধু তা-ই নয়, শরীরের মধ্যেকার দূষিত পদার্থ দূর করতেও সহায়তা করে।

৫। রোগ প্রতিরোধ

করোনার মতো অতিমারির হাত থেকে শরীরকে বাঁচাতে হলে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা জোরদার করা যে জরুরি সে কথা এখন সকলেই ভালো মতো জানেন। সে ক্ষেত্রে ভিটামিন সি ও অ্যান্টিওক্সিডেন্ট এই সমস্ত খাদ্যগুণ রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধিতে সাহায্য করে।

৬। এনার্জি

গাঁটি কচু ক্লান্তি দূর করে। কর্মক্ষমতা বাড়ায়। এনার্জি ধরে রাখতে সহায়তা করে। এতে গ্লাইসেমিক ইনডেক্স কম থাকে। এই কারণে অ্যাথলেটদের জন্য এটি খুবই ভালো।

৭। হজমে

এতে প্রচুর ফাইবার থাকে। ফাইবার সমৃদ্ধ খাবার পরিপাক প্রক্রিয়ার জন্য ভালো। তা ছাড়া ফাইবারের কারণে দীর্ঘক্ষণ পেট ভরা রাখতে পারে।

৮। পাকস্থলীর জন্য

পাকস্থলী পরিষ্কার রাখার অন্যতম হাতিয়ার গাঁটি কচু। এর ফাইবার পরিপাক প্রক্রিয়ায় যেমন সাহায্য করে, তেমনই পাকস্থলীর বর্জ্য পদার্থ বের করে দিতেও সাহায্য করে। ফলে পেট পরিষ্কার থাকে ও শরীর ভেতর থেকে সুস্থ থাকে।

৯। ক্যানসারে

এর সমস্ত খাদ্য উপাদান ক্যানসার প্রতিরোধেও সহায়তা করে।

১০। মেদ ঝরাতে

মেদ ঝরাতে এর উপকারিতা কম নয়। কারণ গাঁটি কচুর ক্যালোরির পরিমাণ খুবই কম।

১১। তারুণ্য ধরে রাখতে

এর খাদ্য উপাদানগুলো ভালো অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, যা রোগের বিরুদ্ধে সুরক্ষা দেয়। ফলে বয়স বৃদ্ধির প্রক্রিয়াকে ধীর গতি করে।  

পড়ুন -হার্পিস-সহ এই ১৫টি রোগ প্রতিরোধ করতে পারে দারুচিনি

আরও পড়ুন – এলাচ কেন খাবেন? জেনে নিন ১৮টি কারণ

Continue Reading

খাওয়াদাওয়া

হার্পিস-সহ এই ১৫টি রোগ প্রতিরোধ করতে পারে দারুচিনি

Published

on

খবরঅনলাইন ডেস্ক: গরম মশলার মধ্যে অন্যতম একটি হল দারুচিনি। রান্না খাবারে স্বাদ বাড়াতে শুধু নয়, এটি শরীরের জন্যও দারুণ উপকারী। বিশেষজ্ঞরা বলেন, শরীরের বিভিন্ন ধরনের ভাইরাস আক্রমণ রুখতে মশলাটি বেশ কার্যকর।

ভেষজ উপাদানের মধ্যে একটি। নানা রোগের ক্ষেত্রে উপশম ও রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে দারুচিনি খাওয়ার কথা বলে থাকেন বিশেষজ্ঞরা। কারণ দারুচিনি শরীরের অতিরিক্ত প্রদাহ কমাতে সাহায্য করে।  তাঁদের মতে –

১। রোগ প্রতিরোধ

এতে আছে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট পলিফেনল ও প্রোঅ্যান্থোসায়ানাইডিন। এই দু’টি শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়।

২। শ্বাসতন্ত্রের রোগে ও হৃদরোগে

শ্বাসতন্ত্রের রোগ এবং হৃদরোগ নিয়ন্ত্রণেও সহায়তা করে দারুচিনি। দারুচিনির অ্যান্টিভাইরাল, অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল ও অ্যান্টিফাঙ্গাল উপাদান বিভিন্ন রোগের ঝুঁকি কমাতে পারে। এটি রক্ত চলাচল স্বাভাবিক রাখে। গবেষণায় আরও দেখা গিয়েছে, দারুচিনির সিনামালডিহাইড শ্বাসতন্ত্রের রোগ অ্যাডিনোভাইরাসের  বিরুদ্ধে কার্যকর।

৩। জয়েন্টে ব্যথা বা আর্থারাইটিস

আর্থারাইটিস বা জয়েন্টের ব্যথা কমানোর ওষুধ হিসাবে ব্যবহার করতে পারেন। উষ্ণ গরম জলে এক চামচ মধু আর দারুচিনি গুঁড়ো ভালো ভাবে মিশিয়ে, ব্যথায় ২-৩ দিন ভালো ভাবে মালিশ করলে ব্যথা কমে যাবে। এক কাপ গরম জলের মধ্যে দু’ চামচ মধু আর দারচিনি গুঁড়ো মিশিয়ে সকাল সন্ধ্যা খেতেও পারেন।

৪। পেটের জন্য

দারুচিনি পেটের জন্য ভীষণ উপকারী। এটি অ্যাসিডিটির সমস্যা দূর করে ও পেটের ব্যথা উপশম করে। রাতে শোওয়ার আগে দারুচিনির সঙ্গে হরীতকীর গুঁড়ো মিশিয়ে খেলে উপকার হয়। মধুর সঙ্গে দারুচিনি মিশিয়ে খেলে অ্যাসিডিটি ভালো হয়।

৫। খারাপ কোলস্টেরল

প্রতি দিন আধ চা চামচ দারুচিনির গুঁড়ো খেলে রক্তে খারাপ কোলস্টেরল অর্থাৎ এলডিএল-এর মাত্রা কমে।

৬। ডায়াবেটিস

রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে। টাইপ-২ ডায়াবেটিস কমায়।

৭। সংক্রমণ প্রতিরোধ

ইস্ট ছত্রাক ঘটিত সংক্রমণ প্রতিরোধ করতে দারুচিনি কাজ করে।

৮। লিম্ফোসাইটিক লিউকোমিয়ার

দারুচিনি মারণ ব্যধি লিম্ফোসাইটিক লিউকোমিয়ার বিস্তার রোধ করে।

৯। হিমোফিলিয়া

রক্ত জমাট না বাঁধার অসুখ হিমোফিলিয়া প্রতিরোধ করতে বিশেষ ভূমিকা নেয়।

১০। ঠান্ডা লাগায়

গলা ব্যথা বা খুশখুশে কাশিতে খুবই উপকারী। মধু চায়ের সঙ্গে দারুচিনি মিশিয়ে খেলে আরাম পাওয়া যায়।

১১। স্মৃতিশক্তি

নিয়মিত দারুচিনি খেলে স্মৃতিশক্তি বৃদ্ধি পায়।

১২। এইচআইভি

একটি গবেষণা থেকে জানা গেছে, দারুচিনির প্রোসায়ানাইডিন পলিমার এইচআইভি সংক্রমিত ব্যক্তিদেরকে এইচআইভি কন্ট্রোলার্সে পরিণত করে। দারুচিনির মলিকিউল এইচআইভি ভাইরাসকে দমিয়ে রেখে ডিফেন্স প্রোটিনকে সুরক্ষা দিতে পারে।

১৩। হার্পিস সিমপ্লেক্স ভাইরাস

জাপানের একটি গবেষণায় দেখা গেছে, দারুচিনির  মধ্যে থাকা উপাদান সিনাজিলানিন বাকুলোভাইরাসের সংখ্যা বৃদ্ধিতে বাধা দেয়। বাকুলোভাইরাস আসলে পোকামাকড়কে সংক্রমিত করে। এই উপাদান হার্পিস সিমপ্লেক্স ভাইরাস-১ ও হার্পিস সিমপ্লেক্স ভাইরাস-২ এর বিরুদ্ধে কার্যকর হিসেবে প্রমাণিত হয়েছে।

 ১৪। ত্বকের জন্য

ত্বকের ঔজ্জ্বল্য বৃদ্ধিতে দারুচিনি, দুর্বাঘাস ও হলুদ সমান পরিমাণে বেটে ত্বকে লাগালে ভালো। তৈলাক্ত ত্বকে ব্রন রোধ করতেও উপকারী।

১৫। মেদ কমাতে

এ ছাড়াও দারুচিনি মেদ কমাতে সাহায্য করে।

পড়ুন – এলাচ কেন খাবেন? জেনে নিন ১৮টি কারণ

Continue Reading
Advertisement
Umar Khalid
দেশ4 hours ago

উমর খালিদের মুক্তির দাবিতে সরব অমিতাভ ঘোষ, মীরা নায়ার-সহ দুশোর বেশি বিদ্বজ্জন

KL Rahul
ক্রিকেট6 hours ago

রাহুল-ঝড়ে তছনছ বেঙ্গালুরু

KL Rahul
ক্রিকেট8 hours ago

রেকর্ড বইয়ে নাম লিখিয়ে দুর্ধর্ষ ইনিংস কেএল রাহুলের

কেনাকাটা8 hours ago

পুজো কালেকশনে ৬০০ থেকে ১০০০ টাকার মধ্যে চোখ ধাঁধানো ১০টি শাড়ি

Poorva Express
রাজ্য9 hours ago

রবিবার থেকে হাওড়া-দিল্লি স্পেশাল ট্রেনের সংখ্যা বাড়াচ্ছে রেল

coronavirus west bengal
রাজ্য9 hours ago

রাজ্যের সামগ্রিক করোনা-পরিস্থিতি অপরিবর্তিত, বাড়ল সুস্থতার হার

রাজ্য9 hours ago

সিভিক ভলান্টিয়ার ও আশাকর্মীদের বেতন বাড়াল রাজ্য, সঙ্গে হকারদের জন্য অনুদান

Yeddyurappa and siddaramaiah
দেশ10 hours ago

কর্নাটকে বিজেপি সরকারের স্থায়িত্ব ঘিরে নয়া জল্পনা! অনাস্থা প্রস্তাব আনল কংগ্রেস

কেনাকাটা

কেনাকাটা8 hours ago

পুজো কালেকশনে ৬০০ থেকে ১০০০ টাকার মধ্যে চোখ ধাঁধানো ১০টি শাড়ি

খবর অনলাইন ডেস্ক: পুজোর কালেকশনের নতুন ধরনের কিছু শাড়ি যদি নাগালের মধ্যে পাওয়া যায় তা হলে মন্দ হয় না। তাও...

কেনাকাটা2 days ago

মহিলাদের পোশাকের পুজোর ১০টি কালেকশন, দাম ৮০০ টাকার মধ্যে

খবরঅনলাইন ডেস্ক : পুজো তো এসে গেল। অন্যান্য বছরের মতো না হলেও পুজো তো পুজোই। তাই কিছু হলেও তো নতুন...

কেনাকাটা6 days ago

সংসারের খুঁটিনাটি সমস্যা থেকে মুক্তি দিতে এই জিনিসগুলির তুলনা নেই

খবরঅনলাইন ডেস্ক : নিজের ও ঘরের প্রয়োজনে এমন অনেক কিছুই থাকে যেগুলি না থাকলে প্রতি দিনের জীবনে বেশ কিছু সমস্যার...

কেনাকাটা1 week ago

ঘরের জায়গা বাঁচাতে চান? এই জিনিসগুলি খুবই কাজে লাগবে

খবরঅনলাইন ডেস্ক : ঘরের মধ্যে অল্প জায়গায় সব জিনিস অগোছালো হয়ে থাকে। এই নিয়ে বারে বারেই নিজেদের মধ্যে ঝগড়া লেগে...

কেনাকাটা2 weeks ago

রান্নাঘরের জনপ্রিয় কয়েকটি জরুরি সামগ্রী, আপনার কাছেও আছে তো?

খবরঅনলাইন ডেস্ক: রান্নাঘরের এমন কিছু সামগ্রী আছে যেগুলি থাকলে কাজ করাও যেমন সহজ হয়ে যায়, তেমন সময়ও অনেক কম খরচ...

কেনাকাটা2 weeks ago

ওজন কমাতে ও রোগ প্রতিরোধশক্তি বাড়াতে গ্রিন টি

খবরঅনলাইন ডেস্ক : ওজন কমাতে, ত্বকের জেল্লা বাড়াতে ও করোনা আবহে যেটি সব থেকে বেশি দরকার সেই রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা...

কেনাকাটা3 weeks ago

ইউটিউব চ্যানেল করবেন? এই ৮টি সামগ্রী খুবই কাজের

বহু মানুষকে স্বাবলম্বী করতে ইউটিউব খুব বড়ো একটি প্ল্যাটফর্ম।

কেনাকাটা4 weeks ago

ঘর সাজানোর ও ব্যবহারের জন্য সেরামিকের ১৯টি দারুণ আইটেম, দাম সাধ্যের মধ্যে

খবরঅনলাইন ডেস্ক: ঘর সাজাতে কার না ভালো লাগে। কিন্তু তার জন্য বাড়ির বাইরে বেরিয়ে এ দোকান সে দোকান ঘুরে উপযুক্ত...

কেনাকাটা1 month ago

শোওয়ার ঘরকে আরও আরামদায়ক করবে এই ৮টি সামগ্রী

খবর অনলাইন ডেস্ক : সারা দিনের কাজের পরে ঘুমের জায়গাটা পরিপাটি হলে সকল ক্লান্তি দূর হয়ে যায়। সুন্দর মনোরম পরিবেশে...

kitchen kitchen
কেনাকাটা1 month ago

রান্নাঘরের এই ৮টি জিনিস কাজ অনেক সহজ করে দেবে

খবরঅনলাইন ডেস্ক: আজকাল রান্নাঘরের প্রত্যেকটি কাজ সহজ করার জন্য অনেক উন্নত ব্যবস্থা এসে গিয়েছে। তা হলে ঘণ্টার পর ঘণ্টা কষ্ট...

নজরে