freindship-day
ছবি : Free Press Journal

ওয়েবডেস্ক : প্রতি বছর আগস্ট মাসের প্রথম রবিবার ভারত-সহ বিশ্বের বেশ কয়েকটি দেশে ‘ফ্রেন্ডশিপ ডে’ হিসাবে পালন করা হয়। কবে থেকে শুরু হল এই ‘ফ্রেন্ডশিপ ডে’ বা বন্ধু দিবস উদযাপন? কেনই বা পালন করা হয়  দিনটি?  প্রাথমিক সূত্র অবশ্যই উইকিপিডিয়া, এ ছাড়াও নানা সূত্র ঘেঁটে যে তথ্য পাওয়া গিয়েছে সেটাই তুলে ধরলাম আপনাদের কাছে।

১৯৩৫ সালে আগস্টের প্রথম শনিবার এক ব্যক্তির মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করে তৎকালীন মার্কিন সরকার। বন্ধু হারানোর দুঃখে তার পর দিনই আত্মহ্ত্যা করে ওই ব্যক্তির এক বন্ধু। এই ঘটনা চাঞ্চল্য সৃষ্টি করে বিশ্ব জুড়ে। দাগ কেটে যায় মার্কিনদের মনে। সে বছরই আগস্ট মাসের প্রথম রবিবারকে ‘ফ্রেন্ডশিপ ডে’ হিসাবে ঘোষণা করে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র।

তবে জানা যায়, ১৯১৯ সাল থেকে আমেরিকায় পালিত হয়ে আসছে ‘ফ্রেন্ডশিপ ডে’। বন্ধুকে ফুল, কার্ড পাঠিয়ে শুভেচ্ছা জানানো হত এই দিনে।

এই দিবসটি পালনের পিছনে যে একটি বাজারমুখী ভাবনা রয়েছে, তা-ও ইতিহাস জানিয়ে দিচ্ছে। হলমার্ক কার্ড কোম্পানি জয়েস হল ১৯৩০ সালে ২ আগস্ট ফ্রেন্ডশিপ ডে পালনের আয়োজন করে। উদ্দেশ্য অবশ্যই কার্ড বিক্রি। প্রতিবাদও হয়, কিন্তু প্রতিবাদকে ছাপিয়ে যায় বাজারের কৌশল। আগস্টের প্রথম সপ্তাহে কার্ড ও উপহার পাঠিয়ে শুরু হয় ফ্রেন্ডশিপ ডে উদযাপন।

একটি ইতিহাস বলে, বিশ্ব বন্ধুত্ব দিবস পালন শুরু হয় প্যারাগুয়েতে। ১৯৫৮ সালের ২০ জুলাই ডা. রামোন আর্টিমিও ব্রাচো বন্ধুদের সঙ্গে একটি বৈঠকে বসেন। সেখান থেকে তৈরি হয় আন্তর্জাতিক ফ্রেডশিপ ক্রুসেড নামে একটি সংগঠন। যার উদ্দেশ্য ধর্ম, জাতি, বর্ণ নির্বিশেষে বন্ধুত্বের বার্তা দেওয়া। সে দিন থেকে প্যারাগুয়েতে প্রতি বছর জুলাই মাসে ফ্রেন্ডশিপ ডে পালন শুরু হয়। এই রীতি মেনে বেশ কয়েকটি দেশ জুলাই মাসে ফ্রেন্ডশিপ ডে পালন শুরু করে।

ওয়ার্ল্ড ফ্রেন্ডশিপ ক্রুসেড ৩০ জুলাইকে ফ্রেন্ডশিপ ডে হিসাবে ঘোষণা করার জন্য রাষ্ট্রপুঞ্জে লবি করতে শুরু করে। শেষ পর্যন্ত ৩০ জুলাই দিনটিকে আন্তর্জাতিক বন্ধুত্ব হিসাবে ঘোষণা করে রাষ্ট্রপুঞ্জ। তবে ভারত-সহ এশিয়ার বেশ কয়েকটি দেশে আগস্টের প্রথম রবিবারকে ফ্রেন্ডশিপ ডে হিসাবে পালন শুরু হয়।

সময় বদলেছে। কার্ডের বদলে সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে বন্ধুত্ব দিবসের শুভেচ্ছা জানানোর প্রবণতা বেড়েছে। বন্ধুত্বের চিহ্ন হিসাবে হাতে হলুদ ব্যান্ড পরার চল হয়েছে। উপহার দেওয়ার চল থেকে গিয়েছে। তবে উপহারের ধরন পালটেছে।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here