ওয়েবডেস্ক: সময়ের সঙ্গে সঙ্গে পালটেছে অনেক কিছুই। শৈশবের সেই ছোটো ছোটো আনন্দ যেন হারাতে বসেছে। ধুলো-বালি মেখে মাঠে খেলা কিংবা বাড়িতে বসে রান্নাবাটি খেলা বা পুতুলের বিয়ে দেওয়া, কোথায় সেই সব মাধুর্যের ছোঁয়া? এই সব কিছুই যেন বিলীন হয়ে গেছে।

এই আধুনিক বিজ্ঞানের যুগে যন্ত্রই হয়ে উঠেছে বাচ্চাদের কাছে আকর্ষণের বস্তু। জন্মানোর সঙ্গে সঙ্গেই খেলনার বদলে হাতে পেয়ে যাচ্ছে মোবাইল ফোন, কম্পিউটার, ল্যাপটপ। এর পরে সারা দিন মুখ গুঁজে পড়ে আছে নয় ফোন আর না হল কম্পিউটারে।

কিন্তু এই সবের জন্য কী সেই শিশুটি দায়ী? কখনোই নয়!

এখন প্রায় প্রত্যেকেই চাকরিজীবী। ছেলেদের সঙ্গে সমান তালে তাল মিলিয়ে মেয়েরাও এখন আর বাড়িতে বসে থাকে না। তাই নিজের সন্তানকে আর কখন সময় দেবে। সময়ের অভাবে নিজের সন্তানকে রেখে দিয়ে যাচ্ছে বাড়ির ‘মেড সারভেন্ট’-এর কাছে। আর তার সন্তানকে ব্যস্ত রাখার জন্য হাতে তুলে দিচ্ছে ফোন বা কম্পিউটার।

কিন্তু নিজের সন্তানের ব্যাপারে কিছু দায়দায়িত্ব তো মা-বাবার থেকেই যায়। কিন্তু কী ভাবে পালন করবেন ভাবছেন সেই দায়িত্ব?

আসুন জেনে নেওয়া যাক অভিভাবকত্বের সঠিক কিছু পদ্ধতি-

১। সন্তানকে সঠিক ভাবে জানা ও বোঝা।

২। নিজেকে সঠিক ভাবে বোঝা।

৩। নিজেকে শিক্ষিত করা।

৪। সন্তানের সাথে সমব্যথী হয়ে উঠতে পারা।

৫। সঠিক ভাবে সন্তানের সাথে মানিয়ে চলতে হবে।

৬। সন্তানের সাথে এক সঙ্গে মিলিত হয়ে কাজ করা।

৭। সন্তানের অনুভূতিকে সঠিক ভাবে বুঝতে পারা।

৮। সন্তানের মধ্যে থাকা সম্ভাবনাগুলোকে সঠিক ভাবে প্রকাশ করতে সাহায্য করা।

৯। সন্তানের লক্ষ্যের দিকে নজর রাখা।

১০। তুলনা করা থেকে বিরত থাকা।

সূত্র: মানব সংবেদ

আরও পড়ুন: ঘরোয়া পদ্ধতিতে কমান মুখের অতিরিক্ত চর্বি  

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here