৫টি সুস্বাদু এবং স্বাস্থ্যকর খাবার, দেখুন শীতকালে আপনার বাচ্চার ভালো লাগবেই

0

শীতের সঙ্গেই চলে আসে ঠান্ডাজনিত বিভিন্ন রোগ। তার উপর রয়েছে কিছু ভাইরাল রোগও। এই ঋতুতে বড়ো থেকে ছোটো, যে কেউ সংক্রমণের কবলে পড়তে পারে। বিশেষ করে বাচ্চাদের সর্দি-কাশি বা ফ্লু-এ আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা বেশি। যে কারণে এ সময় স্বাস্থ্যকর খাবারের দিকে নজর রাখা উচিত। চলুন শুনে নেওয়া যাক, নিন তেমনই পাঁচটি সুস্বাদু এবং স্বাস্থ্যকর খাবারের কথা।

স্যুপে মিলবে ফাইবার

স্যুপ যেমন খেতে ভালো, তেমনই শরীরের ক্ষেত্রেও এর কার্যকারিতা অনেক। শীতকালে গরম স্যুপ কার না খেতে ভালো লাগে! হাইড্রেটেড রাখার পাশাপাশি শরীরে প্রয়োজনীয় অ্যান্টি–অক্সিডেন্ট ও অন্যান্য পুষ্টি উপাদান সরবরাহ করে স্যুপ। এক কাপ টমেটো স্যুপ সতেজ হওয়ার পাশাপাশি শক্তি জোগায়। এতে রয়েছে ভিটামিন-সি, যা রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে কাজ করে। পালং শাক, ব্রকোলি, মাশরুম এবং বিট দিয়েও স্যুপ তৈরি করতে পারেন। এই সব সবজিতে রয়েছে, প্রচুর পরিমাণে ফাইবার, মিনারেল, ভিটামিন- যা শিশুদের জন্য খুবই স্বাস্থ্যকর।

শরীরকে উষ্ণ রাখে বাদাম

বাদামে উচ্চ প্রোটিন এবং ফাইবার রয়েছে, যা আমাদের স্বাস্থ্যের জন্য খুবই উপকারী। শিশুর দৈনন্দিন পুষ্টির জন্য প্রয়োজনীয় মাইক্রোনিউট্রিয়েন্ট এবং ভিটামিনে ভরপুর বাদাম। আপনার সন্তানের খাদ্যতালিকায় কাজু, বাদাম, পেস্তা, আখরোট এবং চিনাবাদাম রাখতে পারেন। এগুলো বিপাক ক্রিয়াকেও উন্নত করবে।

শীতের ফল

কমলা, আমলকির মতো শীতের ফল শিশুদের অবশ্যই খাওয়াতে হবে। এই সব ফল ভিটামিন-সি সমৃদ্ধ, যা রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে কাজ করে। এগুলোতে ভিটামিন-সি প্রচুর পরিমাণে পাওয়া যায়। শিশুরা এগুলি আনন্দের সঙ্গেই খায়। আমলকি অনেক ধরনের সংক্রমণের বিরুদ্ধে লড়াই করে। সর্দি-কাশি দূর করার আশ্চর্যজনক ক্ষমতায় থাকায় শীতের সময় কমলা অনেকেরই প্রিয়।

গুড় বাচ্চাদের প্রিয়

শীতের মরশুমে বাজারে গুড়ের জোগান থাকে বেশি। শীতে শরীর গরম রাখে। সর্দিকাশির হাত থেকে বাঁচায়। শরীরকে কাশি, সর্দি এবং অন্যান্য ধরনের সংক্রমণ থেকে রক্ষা করে। খাবারের পর এক টুকরো গুড় খেলে হজমশক্তি ভালো হয়। চিনির পরিবর্তে ক্ষীর বা চায়ে গুড় ব্যবহার করতে পারেন। উল্লেখযোগ্য ভাবে, গুড়ে থাকে সোডিয়াম এবং পটাশিয়াম। যা রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখতে সাহায্য করে। অ্যাজমা, ব্রঙ্কাইটিসের মতো শ্বাসপ্রশ্বাস সংক্রান্ত সমস্যায় গুড় খুব কাজে দেয়।

মিষ্টি আলু

মিষ্টি আলুতে রয়েছে ভিটামিন সি এবং ডি। দাঁত, হাড় এবং কোষ তৈরিতে ভিটামিন সি যেমন কার্যকরী, তেমনই ঠান্ডাজনিত রোগ প্রতিরোধেও সহায়ক। আর ভিটামিন ডি হৃৎপিণ্ড, স্নায়ু এবং ত্বকের জন্য জরুরি। ছাড়াও মিষ্টি আলুতে উচ্চ মাত্রায় ভিটামিন এ থাকে। ভিটামিন এ আদতে অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট, যা ইমিউনিটি বৃদ্ধি করে এবং সুস্থ ত্বক ও দৃষ্টি বজায় রাখতে সাহায্য করে।

আরও পড়তে পারেন: 

৩০ বছর পেরনোর পর এই ৭টি খাবার আপনাকে খেতেই হবে

কুল থেকে কমলা, শীতে সুস্থ থাকতে যে ৫টি ফল অবশ্যই খাবেন

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন