কুল থেকে কমলা, শীতে সুস্থ থাকতে যে ৫টি ফল অবশ্যই খাবেন

0

শীত এলেই বেড়ে যায় ঠান্ডাজনিত রোগের প্রকোপ। এই ঋতুটি ঠান্ডা লাগা, সর্দি, কাশি, ফ্লু এবং জ্বরের মতো সংক্রমণের জন্যও পরিচিত। তাই এই মরশুমে রোগ-বালাই থেকে দূরে থাকতে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট ও পুষ্টিসমৃদ্ধ খাবার খেতে হবে। এমন কিছু সাধারণ ফল রয়েছে, যা খেলে এ ধরনের রোগের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ ক্ষমতা আরও শক্তপোক্ত হতে পারে।

কুল

এই ফল রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা শক্তিশালী করতে কাজ করে। বিশেষ করে শিশুদের জন্য খুবই ভালো, কারণ তারা খুব দ্রুত অসুস্থ হয়ে পড়ে। তা ছাড়া কুলের অনন্য স্বাদ আমাদের খাদ্যতালিকায় বৈচিত্র্য এনে দেয়। টক-মিষ্টি স্বাদের বৈচিত্র এর অন্যতম বৈশিষ্ট্য।

আমলকি

নিজের পুষ্টিগুণের জন্য পরিচিত আমলকি। ভিটামিন সি সমৃদ্ধ। শীতের ফলের রাজা আমলকি অনেক ধরনের সংক্রমণের বিরুদ্ধে লড়াই করে। এ ছাড়াও চুল পড়া, হজম ও চোখের জন্য উপকারী বলে মনে করা হয়। শীতকালে প্রচুর পরিমাণে পাওয়া যায় আমলকি।

জলপাই

শীতকালে প্রচুর পরিমাণে পাওয়া যায় জলপাই। রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায় জলপাই। এতে রয়েছে প্রাকৃতিক অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট। রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি। সর্দি, জ্বর ইত্যাদি দূরে থাকে জলপাই। হাঁপানি এবং বাতের ব্যথা উপশমে জলপাই কার্যকর। এই ফলের তেল বা অলিভ অয়েল হৃৎপিণ্ডের জন্য উপকারী।

তেঁতুল

তেঁতুলের স্বাদ অজানা, এমন মানুষ খুঁজে পাওয়া মুশকিল। এটা যেমন কাঁচা-পাকা খাওয়া যায়, তেমনই অন্য কোনো খাবারে যোগ করেও খাওয়া যায়। ম্যাগনেসিয়াম, আয়রন এবং ভিটামিন সি সমৃদ্ধ, তেঁতুল হজমে সহায়তা করে এবং এর বীজ বাটারমিল্কের সঙ্গে মিশিয়ে একটি সুস্বাদু পানীয়তে পরিণত করে পান করা যেতে পারে।

কমলা

খেতে যেমন সুস্বাদু, তেমনই কাজের বহরও অনেক বড়ো কমলা লেবুর। হজমশক্তি বাড়াতে সাহায্য করে। এ ছাড়া সর্দি-কাশি দূর করার আশ্চর্যজনক ক্ষমতায় থাকায় শীতের সময় এই ফল অনেকেরই প্রিয়। ফ্লু এবং জ্বরের সময় কমলা খাওয়া ভালো। এতে রয়েছে বিটা ক্যারোটিন, অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এবং প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি ও ক্যালসিয়াম। রক্তশূন্যতা ও জিভের ঘা সারানোর পাশাপাশি মানসিক অবসাদ দূর করে কমলা।

আরও পড়তে পারেন: শীতের শুরুতে কাশির হাত থেকে রেহাই পাবেন কী ভাবে? রইল ১০টি উপায়

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন