ওয়েবডেস্ক: ঢেঁড়স, ভেন্ডি বা লেডিজ ফিঙ্গার। খুবই পরিচিত এই সবজি হিসাবে বাজারে সহজলভ্য। বিশেষ করে গ্রীষ্ম-বর্ষায় বছরের অন্য সময়ের থেকে দাম কিছুটা হলেও কম থাকে ঢেঁড়সের। সেদ্ধ হোক বা সরষে বাটা দিয়ে চচ্চড়ি, অনেকের পাতেই বরাবরের উপকরণ এই ঢেঁড়স। তবে এর আঠালো জলীয় অংশের জন্য কেউ কেউ এড়িয়ে চলেন। চিকিৎসা বিজ্ঞান বলছে, অতটা খাদ্যগুণের দিক থেকে ততটা ফেলনা নয় এই পরিচিত সবজি।

মূলত গ্রীষ্ণপ্রধান দেশ যেমন আফ্রিকা বা এশিয়ার একটা বড়ো অংশ জুড়ে ঢেঁড়স চাষ বহুলপ্রচলিত। সবুজ অথবা লাল, দুই রঙে দেখা যায় বাজারে। জীব বিজ্ঞানে কিন্তু এটি ফল হিসাবেই চিহ্নিত হয়। কিন্তু এর স্বাদের জন্য কাঁচা বা পাকা ফলের মতো না খেয়ে আমরা রান্না করে খেতেই অভ্যস্ত। এ বার জেনে নেওয়া যাক এর হাফডজন কার্যকারিতা-

১. পুষ্টি সমৃদ্ধ

দেখে নিন এক কাপ (১০০ গ্রাম) কাঁচা ঢেঁড়সে যা রয়েছে:

ক্যালরি: ৩৩

কার্বোহাইড্রেট: ৭ গ্রাম

প্রোটিন: ২ গ্রাম

ফ্যাট: ০ গ্রাম

ফাইবার: ৩ গ্রাম

ম্যাগনেসিয়াম: ১৪% (ডিভি)

ফলেট: ১৫%(ডিভি)

ভিটামিন এ: ১৪% (ডিভি)

ভিটামিন সি: ২৬% (ডিভি)

ভিটামিন কে: ২৬% (ডিভি)

ভিটামিন বি ৬: ১৪% (ডিভি)

(ডিভি)=দৈনিক মূল্য

ভিটামিন সি এবং ভিটামিন কে-র বড়ো উৎস এই ঢেঁড়স। স্বাভাবিক ভাবেই শরীররে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা থেকে রক্ত জমাট বাঁধা ব্যাহত করতে বেশ কার্যকরী। ক্যালোরির পরিমাণও যথেষ্ট। বাজার চলতি অনেক ফলেও মেলে না। এর প্রোটিন ওজন নিয়ন্ত্রণ, রক্তের শর্করার পরিমাণ নিয়ন্ত্রণ, হাড় এবং পেশির জন্য প্রয়োজনীয়।

২. উপকারী অ্যান্টিঅক্সিড্যান্টের উপস্থিতি

অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট খাদ্যের একটি যৌগ। এটি ক্ষতিকারক অণুর থেকে নিষ্কৃতী দেয়। এর প্রধান অ্যান্টিঅক্সিডেন্টগুলি হল পলিফেনল,  ফ্ল্যাভোনিয়েডস এবং আইসোউকার্কেটিন, সেই সঙ্গে ভিটামিন এ এবং সি। পলিফেনল হার্টের স্বাস্থ্য রক্ষা করে। এরা মস্তিষ্কের প্রদাহ নিবারণে সক্ষম।

৩. হৃদঘটিত রোগের সম্ভাবনা হ্রাস

ঢেঁড়সের মধ্যে জেলের মতো যে জলীয় পদার্থ থাকে সেটির নাম মিসিলেজ। এটির কার্যকারিতা অসীম।খাবার হজমের সময় এটি কোলেস্টেরলের সঙ্গে আবদ্ধ হতে পারে। ফলে কোলেস্টেরলকে শরীর শোষণ করার আগেই মলের সঙ্গে তা দেহের বাইরে বেরিয়ে যায়। স্বাভাবিক ভাবেই রক্তে কোলেস্টেরলের পরিমাণ নিয়ন্ত্রণে আসতে সাহায্য করে ঢেঁড়স।

৪. অ্যান্টি-ক্যানসার

ঢেঁড়সের মধ্যে রয়েছে লেকটিন নামে একটি প্রোটিন। যা ক্যানসারের কোষকে বৃদ্ধিতে বাধা দেয়। একটি টেস্টটিউব গবেষণায় ঢেঁড়সের এই গুণ পরীক্ষিত হলেও এটি সর্বজন স্বীকৃত নয়।

৫. ব্লাড সুগার কমাতে

শারীরিক সুস্থতার একটা বড়ো অংশ নির্ভর করে ব্লাড সুগারের উপর। গবেষকরা দাবি করে থাকেন, রক্তের শর্করা শোষণে বাধার সৃষ্টি করে ঢেঁড়স। যে কারণে ব্লাড সুগারের স্তর নীচের দিকে নামে।

৬. গর্ভবতী মহিলাদের জন্য

উপরের তালিকাতেই স্পষ্ট ঢেঁড়সের মধ্যে রয়েছে ফলেট। যা কি না ভিটামিন-বি৯। এটি গর্ভবতী মহিলাদের জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ পুষ্টিকর উপাদান।

আরও পড়ুন: চোরকাঁটায় কমতে পারে পেটের চর্বি!

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.