guava

ওয়েবডেস্ক : প্রায় ১০০ প্রজাতির পেয়ারা পাওয়া যায় গোটা বিশ্বে। শুধু পশ্চিমবঙ্গে নয়, পেয়ারা চাষ হয় বিশ্বের প্রায় সর্বত্রই। বিশেষ করে মধ্য আমেরিকা, দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া, মেক্সিকোতে এর চাষ প্রচুর।

জানেন কী, পেয়ারাতে আছে চারটি আপেল, চারটি কমলা লেবুর সমান খাদ্যগুণ। এতে আছে প্রচুর পরিমাণ জল, ফাইবার, ভিটামিন এ, বি, কে, পটাশিয়াম, ক্যালসিয়াম, প্রোটিন, খনিজ পদার্থ ইত্যাদি।

এ ছাড়াও পেয়ারা খেলে যে সমস্যাগুলি থেকে মুক্তি পাওয়া যায় বা সমস্যার প্রতিরোধ গড়ে তোলা যায় তা নেহাতই কম নয়।

guava drink

১) প্রথমেই বলি বেশ কয়েক রকম ক্যানসারের ক্ষেত্রে প্রতিরোধ গড়ে তোলে পেয়ারা। বিশেষত প্রোস্টেট ক্যানসারের ক্ষেত্রে এটি খুবই উপকারী।

২) ডায়াবেটিস রোগের ক্ষেত্রে খুব কাজ দেয় পেয়ারা।

৩) শরীরের যে কোনো রকম ইনফেকশন হওয়া থেকে বাঁচায়।

৪) পেটের সমস্যা দূর করে। খাবারের রুচি আনে। কোষ্ঠকাঠিন্য কমায়, হজম শক্তি বাড়ায়।

৫) রক্ত সঞ্চালন স্বাভাবিক রেখে হৃদরোগের সম্ভাবনা কমায়।

pregnent-lady

৬) গর্ভাবস্থার জন্য খুবই উপকারী পেয়ারা। এর ভিটামিন বি৯ গর্ভজাত শিশুর স্নায়ুর সুস্থ গঠনে সাহায্য করে।

৭) এর ভিটামিন বি৩, বি৬ স্মৃতি শক্তি বাড়ায়, মস্তিষ্কের কার্যকারিতা বাড়ায়।

৮) শ্বাস কষ্ঠ, ঠাণ্ডা লাগা, সর্দি কাশিতে প্রতিরোধ গড়ে তোলে পেয়ারা।

৯) স্ট্রেস দূর করতে দারুণ ভালো কাজ দেয় পেয়ারা। পেশি আর স্নায়ুর কার্যকারিতা বৃদ্ধি করে। চাপ কমায়। এনার্জি বাড়ায়।

healthy eye

১০) পেয়ারার প্রচুর পরিমাণ ভিটামিন এ চোখের জ্যোতি বাড়ায়। চোখ সুস্থ রাখে।

১১) পেয়ারায় প্রচুর পরিমাণ জল আছে যা ত্বক আর চুল ভালো রাখতে আর সুন্দর করতে সাহায্য করে। রুক্ষ্মতা দূর করে। তারুণ্য ধরে রাখে দীর্ঘদিন। ত্বকের রঙও পরিষ্কার করে।

১২) দাঁতের স্বাস্থ্য ভালো রাখতেও সাহায্য করে পেয়ারা। কোনো রকম সংক্রমণ থেকে দাঁতকে রক্ষা করে এর খাদ্য গুণ।

তা হলে আর অপেক্ষা কীসের? এখন থেকে প্রতিদিন একটি করে অথবা তা না হলে সপ্তাহে অন্তত তিনটি করে পেয়ারা খাওয়া শুরু করে দিন। তাহলেই সতেজ থাকবে আপনার শরীর। সুস্থ ও সুন্দর থাকবেন আপনি।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here