Connect with us

শরীরস্বাস্থ্য

কেন খাবেন মেথি?

Published

on

খবর অনলাইন ডেস্ক : ইতিমধ্যেই অনেক কিছুরই উপকারিতা নিয়ে আলোচনা করা হয়ে গিয়েছে। আজ রইল মেথি প্রসঙ্গে। সকালে এক গ্লাস মেথির জল খেলে শরীর হয় রোগমুক্ত। শারীরিক স্বাস্থ্যের সঙ্গে চুল ও ত্বকের যত্নেও এর তুলনা হয় না।

মেথির পুষ্টিগুণ

এক টেবিল চামচ মেথির মধ্যে আছে- ফাইবার ৩ গ্রাম, প্রোটিন ৩ গ্রাম, ফ্যাট ১ গ্রাম, ক্যালরি ৩৫ ক্যালোরি, লোহা ২০ শতাংশ, ম্যাঙ্গানিজ ৭ শতাংশ, ম্যাগনেসিয়াম ৫ শতাংশ।

Loading videos...

মেথির উপকারিতা

১। রোগ প্রতিরোধ

বর্তমান পরিস্থিতিতে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ানো খুব দরকার। মেথিতে প্রচুর প্রোটিন ও খনিজ থাকে, তা ভাইরাস এবং ব্যাকটেরিয়া থেকে শরীরকে রক্ষা করে।

২। ডায়াবেটিসে

ম্যাঙ্গানিজ ব্লাড সুগার নিয়ন্ত্রণে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা নেয়। মেথিতে ম্যাঙ্গানিজ আছে। রক্তে গ্লুকোজের পরিমাণ কমাতে সহায়তা করে। ফলে ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রিত হয়। রোজ সকালে মেথি ভেজানো জল পান করলে ডায়াবেটিস কমানো সম্ভব।

৩। কোলেস্টেরলে

মেথিতে ফ্যাট আছে। ফলে তা কোলেস্টেরলের মাত্রা কমায়। এতে হৃদযন্ত্র ভালো থাকে। গবেষণা অনুযায়ী, মেথির খারাপ কোলেস্টেরল এলডিএল নির্মূল করতে সক্ষম।

৪। পাচন তন্ত্র

হজম ভালো করতে ফাইবার প্রয়োজন। মেথিতে ফাইবার আছে। অন্ত্রের জন্য এটি প্রয়োজনীয়। পাচন তন্ত্র ভালো রাখতে নিয়মিত মেথি খাওয়া প্রয়োজন।

৫। ওজন নিয়ন্ত্রণ

মেথির উপাদানগুলি ওজন কমাতে সাহায্য করে। নিয়মিত মেথি খেলে ওজন নিয়ন্ত্রিত হয়।

৬। হৃদযন্ত্রের স্বাস্থ্য

হৃদযন্ত্রের স্বাস্থ্য ভালো রাখতে মেথি উপযুক্ত। নিয়মিত মেথি খেলে হার্ট অ্যাটাক হওয়ার আশঙ্কা কমে।

৭। হাড়শক্ত ও শক্তি সঞ্চয়ে

হাড় শক্ত করতেও মেথির উপকারিতা অনেক। কারণ ম্যাগনেসিয়াম হাড় গঠনে প্রয়োজনীয়। মেথিতে এটি আছে। ক্যালোরি দেহে শক্তির জোগান দেয় ও ফ্যাট শক্তি সঞ্চয় করে।

৮। ত্বকের জন্য

ত্বক, চুল, নখ, হাড় গঠন, বৃদ্ধি ও শক্ত হতে প্রোটিন প্রয়োজন। তা মেথিতে আছে। ত্বকের সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে মেথি অতুলনীয়। মেথির দানা এবং মেথি পাতা খুব সহজেই ত্বকের অবাঞ্ছিত দাগ ছোপ দূর করে।

আরও – অবহেলা করবেন না, জরায়ুর ক্যানসারের প্রাথমিক লক্ষণগুলি জেনে নিন

বিজ্ঞান

জানেন কি, কোভিড থেকে সুস্থ হওয়ার পর অ্যান্টিবডিগুলি কত দিন পর্যন্ত রক্তে থেকে যায়

কমপক্ষে ৮ মাস পর্যন্ত রক্তে থেকে যায় অ্যান্টিবডি, চাঞ্চল্যকর তথ্য।

Published

on

খবর অনলাইন ডেস্ক: করোনা সংক্রমিত হয়ে সুস্থ হওয়ার পর কোভিড-১৯ (Covid-19) রুখতে সহায়ক অ্যান্টিবডিগুলি (Antibodies) কমপক্ষে ৮ মাস পর্যন্ত রক্তে থেকে যায়। মঙ্গলবার এমনটাই দাবি করল ইতালির একটি গবেষণা।

মিলানের সান রাফায়েল হাসপাতালের (San Raffaele hospital, Milan) একটি বিবৃতি অনুযায়ী, “অসুস্থতার তীব্রতা, রোগীদের বয়স এবং তাঁদের অন্যান্য রিপোর্ট নির্বিশেষে” গবেষণাটি চালানো হয়েছিল।

Loading videos...

কাদের উপর সমীক্ষা?

ইতালির আইএসএস ন্যাশনাল হেল্‌থ ইনস্টিটিউটে (ISS national health institute, Italy) কর্মরত গবেষকরা করোনভাইরাসের উপসর্গযুক্ত ১৬২ জন রোগীর উপর এই সমীক্ষা চালান। সমীক্ষার অন্তর্ভুক্ত দুই তৃতীয়াংশ সদস্য ছিলেন পুরুষ। তাঁদের বয়সের গড় ৬৩ বছর। এঁদের মধ্যে ৭৫ শতাংশ আগে থেকেই কোনো দীর্ঘস্থায়ী রোগের শিকার। বিশেষত, তাঁরা উচ্চ রক্তচাপ এবং ডায়াবেটিসে ভুগছিলেন। এই রোগীরা গত বছর সে দেশের করোনা সংক্রমণের প্রথম ঢেউয়ের সময় চিকিৎসা করাতে এসেছিলেন।

গবেষকরা জানিয়েছেন, মার্চ-এপ্রিল মাসে তাঁদের রক্তের নমুনা সংগ্রহ করা হয়। নভেম্বরের শেষ দিকে সুস্থ হওয়ার পর ফের তাঁদের নমুনা সংগ্রহ করা হয়। তবে তাঁদের মধ্যে ২৯ জন রোগীর মৃত্যু হয়।

অ্যান্টিবডির উপস্থিতি এবং ঝুঁকি

আইএসএস এবং হাসপাতালের যৌথ বিবৃতিতে বলা হয়েছে, “সময়ের সঙ্গে তাঁদের রক্তে অ্যান্টিবডিগুলি উপস্থিতি হ্রাস পেতে থাকে। তবে কোভিডে আক্রান্ত হওয়ার আট মাস পরে শুধুমাত্র তিন জন রোগীর রক্তে ওই অ্য়ান্টিবডির উপস্থিতি ধরা পড়েনি”।

নেচার কমিউনিকেশনস নামে বিজ্ঞান বিষয়ক পত্রিকায় প্রকাশিত এই গবেষণায় বলা হয়েছে, করোনাভাইরাস রুখতে সহায়ক অ্যান্টিবডিগুলির বিকাশের গুরুত্বকেও জোর দেওয়া হয়েছিল। সে ক্ষেত্রে, যে রোগীরা সংক্রমিত হওয়ার প্রথম ১৫ দিনের মধ্যে এই অ্যান্টিবডিগুলি উৎপাদনে ব্যর্থ হয়েছিলেন, তাঁদের ক্ষেত্রে কোভিডের মারাত্মক প্রভাব পড়েছিল।

অ্যান্টিবডি সংক্রান্ত অন্য়ান্য গবেষণা

করোনা সংক্রমণের প্রথম ঢেউয়ের সময় থেকেই কোভিডে আক্রান্তদের শরীরে অ্যান্টিবডি তৈরি হওয়া নিয়ে গবেষণা শুরু হয়। অনেকের শরীরেই নিঃশব্দে তৈরি হয়ে যায় করোনাভাইরাসের অ্যান্টিবডি। প্রায় বছরখানেক আগে এমনই তথ্য উঠে এসেছিল ইন্ডিয়ান কাউন্সিল অব মেডিক্যাল রিসার্চ (ICMR)-এর সমীক্ষায়।

সপ্তাহ দুয়েক আগে দ্য ল্যানসেট রেসপিরেটরি মেডিসিন জার্নালে প্রকাশিত একটি গবেষণায় দাবি করা হয়, সংক্রমিত হওয়ার পরে সুস্থ হয়ে ওঠার পরে অ্যান্টিবডিগুলির উপস্থিতি সত্ত্বেও, প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে এবং পুনরায় সংক্রমণ রোধ করতে বা কমাতে টিকা দেওয়ার প্রয়োজন রয়েছে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে সিনাই পর্বতের আইকাহন স্কুল অব মেডিসিনের ওই গবেষণাটি বলেছিল, “অতীতের সংক্রমণের মাধ্যমে অনাক্রম্যতা নিশ্চিত করা যায় না এবং যাঁদের কোভিড -১৯ হয়েছে, তাঁদের অতিরিক্ত সুরক্ষার জন্য টিকা নেওয়া প্রয়োজন”।

আরও পড়তে পারেন: রক্তের গ্রুপের উপর কি কোভিড আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা থাকে, গবেষণায় জানাল সিএসআইআর

Continue Reading

বিজ্ঞান

রক্তের গ্রুপের উপর কি কোভিড আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা থাকে, গবেষণায় জানাল সিএসআইআর

‘এবি’ এবং ‘বি’ রক্তের গ্রুপ হলে কোভিড আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা বেশি!

Published

on

খবর অনলাইন ডেস্ক: এক বছরের বেশি সময় ধরে করোনা অতিমারি গোটা বিশ্ব দাপিয়ে বেড়ালেও এই ভাইরাস নিয়ে এখনও অনেক প্রশ্নের উত্তরই অধরা। ফলে অসংখ্য গবেষণা চলছে নিরবচ্ছিন্ন ভাবে। সম্প্রতি তেমনই একটি গবেষণায় উঠে এসেছে, নির্দিষ্ট রক্তের গ্রুপের মানুষের উপর এই ভাইরাসের সংক্রমণ কতটা সংবেদনশীল।

কাউন্সিল অব সায়েন্টিফিক অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিয়াল রিসার্চের (CSIR) একটি গবেষণাপত্র পেশ করেছে। যেখানে দাবি করা হয়েছে, গবেষণায় দেখা গিয়েছে, অন্যান্য রক্তের গ্রুপের তুলনায় ‘এবি’ এবং ‘বি’ গ্রুপের ক্ষেত্রে কোভিড -১৯ (Covid-19)-এর প্রতি বেশি সংবেদনশীল। অর্থাৎ, করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা তাঁদের বেশি থাকে।

Loading videos...

আমিষ এবং নিরামিষভোজী

সিএসআইআর-এর গবেষণাটি বলছে, যাঁরা আমিষ খাবার খান, তাঁরা নিরামিষভোজীদের থেকে কোভিড-১৯-এর প্রতি বেশি সংবেদনশীল।

কারণ হিসেবে অনুমান করা হয়েছে, নিরামিষ খাবারের মধ্যে যে পুষ্টি গুণ থাকে, তা শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাকে অনেক বাড়িয়ে তোলে। নিরামিষ খাবারে বেশি পরিমাণে ফাইবার উপাদান রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়িয়ে তোলে। পাশাপাশি সংক্রমণ-পরবর্তী জটিলতাও প্রতিরোধ করতে পারে।

১০ হাজার মানুষের উপর সমীক্ষা

দেশ জুড়ে ১০ হাজারের মানুষের উপর সমীক্ষা চালিয়েছেন গবেষকরা। তথ্যগুলি বিশ্লেষণ করেছেন ১৪০ জন চিকিৎসক। সমীক্ষায় দেখা গিয়েছে, সব থেকে বেশি আক্রান্তের রক্ত ‘এবি’ গ্রুপের। এর পরেই ছিল ‘বি’ গ্রুপ। ‘ও’ রক্তের গ্রুপ যুক্ত আক্রান্তের সংখ্যা সব থেকে কম।

গবেষণায় আরও বলা হয়েছে, ‘ও’ গ্রুপের রক্তের মানুষেরা যেমন ভাইরাসে সব চেয়ে কম আক্রান্ত হয়েছিলেন, তেমনই তাঁদের বেশির ভাগই উপসর্গহীন অথবা মৃদু উপসর্গযুক্ত ছিলেন।

আরও পড়তে পারেন: স্বাস্থ্যকর্মীর ভুলে এক মহিলাকে কোভিড টিকার ৬টি ডোজ, তার পর কী হল

Continue Reading

শরীরস্বাস্থ্য

বাড়িতে কোভিড রোগীর হঠাৎ শ্বাসকষ্ট হলে কেন প্রোনিং করাবেন?

বাড়িতে প্রোনিং-এর মাধ্যমে ২৪ থেকে ৪৮ ঘণ্টা পর্যন্ত পরিস্থিতি সামাল দেওয়া যেতে পারে।

Published

on

প্রোনিং

খবর অনলাইন ডেস্ক : হোম আইসোলেশনে থাকা কোভিড রোগীর অনেকক্ষেত্রে হঠাৎ প্রবল শ্বাসকষ্ট শুরু হয়ে যেতে পারে। সে ক্ষেত্রে হাতের কাছে অক্সিজেন সিলিন্ডার না পাওয়া গেলে বাড়িতে প্রোনিং-এর মাধ্যমে ২৪ থেকে ৪৮ ঘণ্টা পর্যন্ত পরিস্থিতি সামাল দেওয়া যেতে পারে। এ ব্যাপারে কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রক সম্প্রতি একটি গাইডলাইন প্রকাশ করেছে। বিপদের সময় কার্যত জীবনদায়ী ভূমিকা নেয় প্রোনিং। প্রোনিং-এর ব্যাপারে বিস্তারিত জেনে নেওয়া যাক।

প্রোনিং কী?

চিৎ হয়ে শুয়ে থাকা রোগীকে বিশেষ পদ্ধতিতে উপুড় করে শুইয়ে দেওয়া। এই পদ্ধতিতে শোয়ার ফলে শ্বাস নিতে সুবিধা হয়। দ্রুত শরীরে অক্সিজেনের মাত্রা অনেকাংশে বেড়ে যায়।

Loading videos...

প্রোনিংয়ে সুবিধা কী?

এই পদ্ধতিতে শ্বাসকষ্টের কিছুটা উপশম হতে পারে। কমতে থাকা অক্সিজেন স্যাচুরেশনের উন্নতি হতে পারে। দ্রুত অক্সিজেন স্যাচুরেশনে পৌঁছতে, অক্সিজেন থেরাপির পাশাপাশি প্রোনিং করলে ভালো ফল পাওয়া যায়।

কী ভাবে প্রোনিং-এ উপকার মেলে?

এটি করার ফলে ফুসফুসের ক্ষুদ্রাতিক্ষুদ্র প্রকোষ্ঠগুলি উন্মুক্ত হয়ে ওঠে। ফলে অক্সিজেন ও কার্বন ডাই-অক্সাইডের আদান-প্রদান বাড়ে। সঠিক সময় প্রোনিং শুরু করলে প্রাণ সংশয় আটকানো যেতে পারে।

কখন প্রোনিং জরুরি?

অক্সিজেন স্যাচুরেশন ৯৪ শতাংশ বা তার কম হলে অক্সিজেন থেরাপির প্রয়োজন হয়। কিন্তু, অক্সিজেন না পাওয়া গেলে শ্বাসকষ্ট না থাকলেও প্রোনিং শুরু করে দিতে হবে। অক্সিজেন না পাওয়া গেলে হাসপাতালে ভর্তি না হাওয়া অবধি বেশ খানিকক্ষণ পরিস্থিতি সামাল দেওয়া যেতে পারে।

রোগী চেতনাহীন অবস্থায় থাকলে?

একই পদ্ধতির অবলম্বন করতে হবে। প্রয়োজনে চাদরে সাহায্য নিয়ে বা অন্যদের সাহায্যে রোগীকে বারবার পাশ ফিরিয়ে শুইয়ে দিতে হবে।

প্রোনিংয়ের ক্ষেত্রে সতর্কতা

প্রোনিং করার সময় কয়েকটি বিষয় খেয়াল রাখতে হবে।

১. ভরা পেটে এটি করা যাবে না। খাওয়ার পর অন্তত পক্ষে ১ ঘণ্টার ব্যবধান রাখতে হবে।

২. দিনে ১৬ ঘণ্টার বেশি প্রোনিং না করানোই ভালো। তাতে অবস্থার যদি উন্নতি না হয় তবে দ্রুত হাসপাতালে ভর্তির চেষ্টা করতে হবে।

৩.  গর্ভবস্থা, হার্টের গুরুতর সমস্যা, ডিপ-ভেন থ্রম্বসিস, মেরুদণ্ড, ফিমার বোন বা উরুর হাড়ে আঘাত থাকলে প্রোনিং করানো উচিত নয়।

সূত্র: এই সময়

করোনা প্রতিরোধ সংক্রান্ত এই প্রতিবেদনটিও পড়তে পারেন

সংক্রমণের ঝুঁকি এড়ানোর সহজ আয়ুর্বেদিক টিপস, ঘরে বসেই বাড়িয়ে তুলুন রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা

আপনার শিশুর রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে এই ৫টি খাবার দিতে পারেন

Continue Reading
Advertisement
Advertisement
বাংলাদেশ3 hours ago

Bangladesh Covid Vacination: টিকা ট্রায়ালে চিন অর্থ চাওয়ায় রাজি হয়নি বাংলাদেশ

বাংলাদেশ3 hours ago

Bangladesh-China Relation: চিনের এমন আচরণ আশা করেনি বাংলাদেশ

দেশ5 hours ago

G-7 Summit: পর্তুগালের পর ইংল্যান্ড যাচ্ছেন না প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী

বিজ্ঞান6 hours ago

জানেন কি, কোভিড থেকে সুস্থ হওয়ার পর অ্যান্টিবডিগুলি কত দিন পর্যন্ত রক্তে থেকে যায়

রাজ্য6 hours ago

Bengal Corona Update: কুড়ি হাজারের গণ্ডি পেরোল দৈনিক সংক্রমণ, প্রচুর টেস্টর ফলে সংক্রমণের হার ৩০ শতাংশের নীচে

coronavirus test
দেশ7 hours ago

আক্রান্তদের ফের আরটি-পিসিআর নয়, কোভিড টেস্টে নয়া নির্দেশ কেন্দ্রের

বিনোদন8 hours ago

‘রাধে’র বক্স অফিস কালেশন হতো ‘জিরো’, হল মালিকদের কাছে ক্ষমাপ্রার্থী সলমন খান

দেশ9 hours ago

Vaccination Drive: জোগান নেই, মহারাষ্ট্রে বন্ধ হয়ে গেল কমবয়সিদের টিকাকরণ

বিজ্ঞান2 days ago

কোভিডের ভাইরাস বায়ুবাহিত, ৬ ফুট পর্যন্ত ছড়াতে পারে, দাবি শীর্ষ মার্কিন সংস্থার

রাজ্য2 days ago

Bengal Corona Update: নতুন করে আক্রান্তের সংখ্যা প্রায় একই, রাজ্যে বাড়ল সুস্থতা

ক্রিকেট2 days ago

বিরাট-রোহিত ছাড়াই এক নতুন ভারতীয় দলকে জুলাইয়ে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলতে দেখা যাবে!

দেশ18 hours ago

Covid Crisis: অক্সিজেনের অভাবে ১১ কোভিডরোগীর মৃত্যু অন্ধ্রপ্রদেশের হাসপাতালে

প্রবন্ধ3 days ago

এমনই বৈশাখের একটি দিনে মুখোমুখি হয়েছিলেন রবীন্দ্রনাথ ও শ্রীরামকৃষ্ণ

Madhyamik examination west bengal
শিক্ষা ও কেরিয়ার10 hours ago

Madhyamik 2021: আপাতত সম্ভব নয় মাধ্যমিক পরীক্ষা, সরকারের সিদ্ধান্তের অপেক্ষায় পর্ষদ

দেশ2 days ago

ভ্যাকসিন এবং কোভিডের চিকিৎসা সরঞ্জামে ট্যাক্স কেন? মমতার চিঠির পর ১৬টা টুইট কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রীর

রাজ্য2 days ago

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের তৃতীয় মন্ত্রীসভায় একাধিক নতুন মুখ

ভিডিও

কেনাকাটা

কেনাকাটা2 months ago

বাজেট কম? তা হলে ৮ হাজার টাকার নীচে এই ৫টি স্মার্টফোন দেখতে পারেন

আট হাজার টাকার মধ্যেই দেখে নিতে পারেন দুর্দান্ত কিছু ফিচারের স্মার্টফোনগুলি।

কেনাকাটা3 months ago

সরস্বতী পুজোর পোশাক, ছোটোদের জন্য কালেকশন

খবরঅনলাইন ডেস্ক: সরস্বতী পুজোয় প্রায় সব ছোটো ছেলেমেয়েই হলুদ লাল ও অন্যান্য রঙের শাড়ি, পাঞ্জাবিতে সেজে ওঠে। তাই ছোটোদের জন্য...

কেনাকাটা3 months ago

সরস্বতী পুজো স্পেশাল হলুদ শাড়ির নতুন কালেকশন

খবরঅনলাইন ডেস্ক: সামনেই সরস্বতী পুজো। এই দিন বয়স নির্বিশেষে সবাই হলুদ রঙের পোশাকের প্রতি বেশি আকর্ষিত হয়। তাই হলুদ রঙের...

কেনাকাটা4 months ago

বাসন্তী রঙের পোশাক খুঁজছেন?

খবরঅনলাইন ডেস্ক: সামনেই আসছে সরস্বতী পুজো। সেই দিন হলুদ বা বাসন্তী রঙের পোশাক পরার একটা চল রয়েছে অনেকের মধ্যেই। ওই...

কেনাকাটা4 months ago

ঘরদোরের মেকওভার করতে চান? এগুলি খুবই উপযুক্ত

খবরঅনলাইন ডেস্ক: ঘরদোর সব একঘেয়ে লাগছে? মেকওভার করুন সাধ্যের মধ্যে। নাগালের মধ্যে থাকা কয়েকটি আইটেম রইল অ্যামাজন থেকে। প্রতিবেদন লেখার...

কেনাকাটা4 months ago

সিলিকন প্রোডাক্ট রোজের ব্যবহারের জন্য খুবই সুবিধেজনক

খবরঅনলাইন ডেস্ক: নিত্যপ্রয়োজনীয় বিভিন্ন সামগ্রী এখন সিলিকনের। এগুলির ব্যবহার যেমন সুবিধের তেমনই পরিষ্কার করাও সহজ। তেমনই কয়েকটি কাজের সামগ্রীর খোঁজ...

কেনাকাটা4 months ago

আরও কয়েকটি ব্র্যান্ডেড মেকআপ সামগ্রী ৯৯ টাকার মধ্যে

খবরঅনলাইন ডেস্ক: আজ রইল আরও কয়েকটি ব্র্যান্ডেড মেকআপ সামগ্রী ৯৯ টাকার মধ্যে অ্যামাজন থেকে। প্রতিবেদন লেখার সময় যে দাম ছিল...

কেনাকাটা4 months ago

রান্নাঘরের এই সামগ্রীগুলি কি আপনার সংগ্রহে আছে?

খবরঅনলাইন ডেস্ক: রান্নাঘরে বাসনপত্রের এমন অনেক সুবিধেজনক কালেকশন আছে যেগুলি থাকলে কাজ অনেক সহজ হয়ে যেতে পারে। এমনকি দেখতেও সুন্দর।...

কেনাকাটা4 months ago

৫০% পর্যন্ত ছাড় রয়েছে এই প্যান্ট্রি আইটেমগুলিতে

খবরঅনলাইন ডেস্ক: দৈনন্দিন জীবনের নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসগুলির মধ্যে বেশ কিছু এখন পাওয়া যাচ্ছে প্রায় ৫০% বা তার বেশি ছাড়ে। তার মধ্যে...

কেনাকাটা4 months ago

ঘরের জন্য কয়েকটি খুবই প্রয়োজনীয় সামগ্রী

খবরঅনলাইন ডেস্ক: নিত্যদিনের প্রয়োজনীয় ও সুবিধাজনক বেশ কয়েকটি সামগ্রীর খোঁজ রইল অ্যামাজন থেকে। প্রতিবেদনটি লেখার সময় যে দাম ছিল তা-ই...

নজরে