যষ্টিমধু কেন খাবেন? জেনে নিন উপকারিতা

0

খবরঅনলাইন ডেস্ক : যষ্টিমধু কমবেশি অনেকেই ছোটোবেলায় মা ঠাকুরমার কাছ থেকে খেয়েছেন। গলা খুসখুস করলে তার ঘরোয়া তাৎক্ষণিক উপশমের জন্য এইটি প্রত্যেক ঘরেই রাখা থাকত। এখনও হয়তো অনেক ঘরেই এটি আছে। আবার নেইও। তবে আজকাল ভেষজ ওষধির চাহিদা বেশ বেড়েছে। সর্দিকাশি, ঠান্ডা লাগা, গলা ব্যথা – এই সবের হাত থেকে রক্ষা পেতে। তাই ঘরে ঘরে এখন কাঢ়া বানিয়ে খাওয়ার চল হয়েছে। তাতে অনেকেই দারচিনি, লবঙ্গ, এলাচের সঙ্গে যষ্টিমধুও দিচ্ছেন। যাঁরা দিচ্ছেন না বা যাঁরা কাঢ়াই খাচ্ছেন না তাঁদের জন্য বলে রাখা ভালো এই সমস্ত কিছুর গুণাগুণ কিন্তু অনেক।

যষ্টিমধু হল গাছের শিকড়। এতে অনেক বায়োঅ্যাক্টিভ কম্পাউন্ড রয়েছে। এটি আয়ুর্বেদিক ওষুধ তৈরিতে ব্যবহার হয়। এটি টুকরো করে চিবিয়ে খাওয়া যায়, পাউডার হিসাবে খাওয়া যায়, চা হিসাবেও খাওয়া যায়। যে ভাবেই হোক এটি খেলে যে সমস্যা থেকে উপশম পাওয়া যায় তার মধ্যে রয়েছে –

Shyamsundar

১। স্ট্রেস নিয়ন্ত্রণ

পরিস্থিতিটাই এমন যে প্রায় সময়ই আমরা স্ট্রেস বা মানসিক চাপে আচ্ছন্ন হয়ে থাকছি। এতে যষ্টিমধু সাহায্য করতে পারে। মলিকিউলার অ্যান্ড সেলুলার এন্ডোক্রিনোলজি নামক মেডিক্যাল জার্নালের প্রতিবেদনে আছে, এটি ভীষণ ভাবে স্ট্রেস হরমোন করটিসল নিয়ন্ত্রণ করতে সহায়তা করে।

২। শ্বাসতন্ত্রের উন্নতি

কাশি বা কফ, গলা ব্যথা, হাঁপানি ও ব্রঙ্কাইটিস ইত্যাদি হল শ্বাসতন্ত্রের সমস্যা ও তার কারণ। এই সবের  চিকিৎসায় যষ্টিমধু ব্যবহার করা যেতে পারে, এ কথা বলেছেন রিমেডিস ফর মি ডটকমের প্রতিষ্ঠাতা ডাক্তার রেবেকা পার্ক। আসলে ব্যাকটেরিয়া সৃষ্ট শ্বাসতন্ত্রের ইনফেকশন প্রশমিত করতে পারে ষষ্ঠিমুধ। এটি ফুসফুস থেকে শ্লেষ্মাও দূর করে। ব্রঙ্কিয়াল স্প্যাজম বা ব্রঙ্কিয়াল টিউবের মাংসপেশির সংকোচনকে শিথিল করতে পারে।

 ৩। রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি

এতে রয়েছে অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট। এটি রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা শক্তিশালী করে। ফুড কেমিস্ট্রি নামক জার্নালে প্রকাশিত একটি গবেষণায় দেখা গিয়েছে, যষ্টিমধু শরীর থেকে ক্ষতিকর ফ্রি র‌্যাডিকেল দূর করে। শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা আরও উন্নত করে।

যষ্টিমধু পাউডার খেতে চাইলে কিনতে পারেন এখানে ক্লিক করে

৪। পেটের সমস্যায়

বুকজ্বালা, পাকস্থলীর আলসার, কোলাইটিস, গ্যাস্ট্রাইটিস, পাকস্থলীর ভেতরে প্রদাহ ও পরিপাকতন্ত্রের ওপরে প্রদাহজনিত সমস্যায় যষ্টিমধু ব্যবহার করা হয়। যুক্তরাষ্ট্রের খ্যাতনামা ডায়েটিশিয়ান জুলি আপটন এ কথা বলেছেন। এটি আলসারেটিভ কোলাইটিস বা আন্ত্রিক প্রদাহ থেকে সুরক্ষা দিতে পারে। এভিডেন্স-বেসড কমপ্লিমেন্টারি অ্যান্ড আলসারেটিভ মেডিসিনে প্রকাশিত একটি গবেষণায় পাওয়া গিয়েছে, ডিগ্লাইসিরাইজিনেটেড যষ্টিমধু পাকস্থলীর আলসার নিরাময়ে কার্যকর। অর্থাৎ এটি প্রশান্তিদায়ক ও প্রদাহরোধী।

৫। ত্বকের জন্য

যষ্টিমধু যে ভাবেই ব্যবহার করা হোক না কেন এটি ত্বকের উপকার করে। ডাঃ পার্ক বলেন, ষষ্ঠিমধু ত্বকের একজিমা, সোরিয়াসিস,  প্রদাহ, সানবার্ন, পায়ের ছত্রাক জনিত সমস্যা নিরাময় করে। ত্বকের ফোলা ও চুলকানি থেকে মুক্তি পেতে যষ্টিমধুর নির্যাস থেকে প্রস্তুত ওষুধ কাজে লাগে।

৬। দাঁতের স্বাস্থ্য

যষ্টিমধু একটি মাল্টিপারপোজ হার্ব। এটি দাঁত ও মাড়িকেও সুস্থ রাখে। জার্নাল অব ন্যাচারাল প্রোডাক্টসে প্রকাশিত গবেষণা অনুসারে, যষ্টিমধুর দু’টি কার্যকর অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল উপাদান দাঁতের ক্ষয় ও মাড়ির রোগ সৃষ্টিকারী ব্যাকটেরিয়ার বৃদ্ধি ঠেকাতে পারে।

তবে হ্যাঁ অতিরিক্ত কিছু যেমন ভালো না তেমন অতিরিক্ত যষ্টিমধু সেবনেরও পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া আছে। ডাঃ আপটন বলেন, অত্যধিক যষ্টিমধু খেলে শরীরে পটাশিয়ামের মাত্রা হ্রাস পায়। তা বিপজ্জনক। হার্টের সমস্যা ও পেশি দুর্বলতার কারণ হতে পারে। যাদের কিডনির রোগ, হার্টের রোগ ও উচ্চ রক্তচাপ আছে তাদের যষ্টিমধু খাওয়া উচিত নয়। একটানা এটি কারোরই খাওয়া উচিত নয়।

অবশ্যই দেখুন – এলাচ কেন খাবেন? জেনে নিন ১৮টি কারণ

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন