ডাঃ চিরজিৎ দত্ত (নাক-কান-গলা বিশেষজ্ঞ)

আবহাওয়া পরিবর্তনের সঙ্গে আসে হাজারো রকমের রোগ। তারই একটি গলা ব্যথা বা ফ্যারিঞ্জাইটিস, ল্যারিনজাইটিস, টনসিলাইটিস। এই রোগগুলি  সাধারণত ঠান্ডা এবং ফ্লু (ইনফ্লুয়েঞ্জা) ভাইরাসের এর মত জীবাণুর সংক্রমণের জন্য হতে পারে। গলা ব্যথার ক্ষেত্রে গলায় শুষ্ক চুলকানি হয় এবং খাবার গিলতে  ও ঢোক গিলতে সমস্যা হয়।

 প্রতিটি রোগেরই নিজস্ব কিছু উপসর্গ থাকে। এক্ষেত্রে সাধারণত যেসব লক্ষণ ও উপসর্গ দেখা দেয়:

  • গলা খসখসে হয়, চুলকায় এবং ফুলে যায়।
  • শ্বাস নেওয়ার সময়, কথা বলার সময় এবং ঢোক গেলার সময় ব্যথা অনুভূত হয়।
  • ঠান্ডার কারণে গলা ব্যথা হলে এর পাশাপাশি কাশি, জ্বর, সর্দি, হাঁচি এবং শরীরে ব্যথা হয়।

এমনিতে নিরীহ মনে হলেও অবহেলা করলেই সমস্যা। গলা ব্যথা মারাত্মক আকার ধারণ করলে, টনসিল ফুলে যায়। এক্ষেত্রে সাধারণত নীচের উপসর্গগুলো দেখা যায় :

  • খাবার গিলতে বা ঢোক গিলতে অসুবিধা হয়
  • বমি হয়
  • ত্বকে ফুসকুড়ি হয়
  • মাথা ব্যথা করে
  • মরাত্মক গলা ব্যথা করে
  • টনসিল ফুলে লালচে হয়
  • জ্বর হয়
  • গলায় অথবা টনসিলে পুঁজ হয়

সামান্য কিছু বিষয় মাথায় রাখলে আপনি গলা ব্যথার হাত থেকে রেহাই পেতে পারেন। যেমন:

  • প্রচুর তরল খাবার, যেমন-জল, ফলের রস, গরম চা খেতে হবে।
  • এক গ্লাস গরম জলে আধা চা চামচ লবণ মিলিয়ে তা দিয়ে গার্গল করলে উপকার পাওয়া যায়।
  • এক গ্লাস খুব গরম জলে মধু এবং লেবু মিশিয়ে তা ঠান্ডা করে তারপর পান করতে হবে।
  • উষ্ণ, আরামদায়ক, স্যাঁতসেঁতে নয় এরকম ঘরে থাকতে হবে।
  • কথা কম বলতে হবে।
  • ধোয়া এবং বায়ু দূষিত করে এমন কিছু থেকে দূরে থাকতে হবে।
  • সবথেকে বড় কথা ধূমপানটা একেবারে বন্ধ করতে হবে।

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন