ওয়েবডেস্ক : সিমাভ্যাক্স (সিআইএমএ ভ্যক্স) ক্যানসারের নব আবিষ্কৃত টিকা। কেমোথেরাপি বা রেডিয়েশনের মতো খরচবহুল কষ্টদায়ক চিকিৎসা নয়। এ বার ক্যানসার থেকে মুক্তি দিতে টিকা। এই সিমাভ্যাক্স প্রয়োগ করা হয়েছে কয়েক হাজার ক্যানসার- আক্রান্তের শরীরে। পাওয়া গিয়েছে দারুণ ফল। তাঁদের জীবনকাল বেড়েছে। এর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার দিকটাও যথেষ্টই কম। আর দাম তা এক্কেবারে নাগালের মধ্যে। আর এর সংরক্ষণও সহজসাধ্য। আবিষ্কারক দেশে এই টিকা দেওয়া হচ্ছে বিনামূল্যেই।

আবিষ্কার করেছেন কিউবার এক দল গবেষক। তাঁরা এ বার মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের রসওয়েল পার্ক ক্যানসার ইনস্টিটিউটের সঙ্গে গাঁটছড়া বেঁধেছেন।

এই সিমাভ্যাক্স মুলত ফুসফুসের ক্যানসারের চিকিৎসার জন্য তৈরি।

গবেষকরা বলছেন, এটা ক্যানসারের প্রতিরোধী টিকা নয়। এটা চিকিৎসামাত্র। হাম বা অন্য টিকার মতো নয়। ছোটো অবস্থায় নিলে তা শরীরে প্রতিরোধ ক্ষমতা গড়ে তোলে আর ভবিষ্যতে কখনও শরীরে এই রোগের জীবাণু তৈরি হতে দেয় না, এর ব্যাপারটা ঠিক এমন নয়। এটা একটা প্রোটিনের টিকা। এই প্রোটিনের নাম এপিডারমাল গ্রোথ ফ্যাক্টর (ইজিএফ)। এই প্রোটিনের কাজ হল শরীরে কোষ বৃদ্ধিতে সাহায্য করা। শরীরে স্বাভাবিক ভাবেই এই প্রোটিন তৈরি হয়। কিন্তু ক্যানসারে আক্রান্ত হলে তার জীবাণু এই প্রোটিনের পরিমাণ বাড়িয়ে দেয়। ফলে ক্যানসারাস টিউমারগুলোর বৃদ্ধি আরও দ্রুত গতিতে হয়।

এই টিকায় অন্যান্য পদার্থের সঙ্গে ইজিএফ প্রোটিনও থাকে। তা শরীরে প্রবেশ করিয়ে শরীরকে অ্যান্টিবডি তৈরি করতে বাধ্য করা হয়। তাতে প্রতিরোধ ক্ষমতা গড়ে ওঠে। ফলে টিউমারগুলো বড়ো হয়ে ওঠে না। তবে এটা সরাসরি টিউমারগুলোর কোনো ক্ষতি করে না।

ফুসফুসের ক্যানসার আছে এমন রোগীর ওপর এর প্রয়োগ করে দেখা হয়েছে। দেখা গিয়েছে টিউমারগুলো বড়োও হচ্ছে না বা অন্য কোথাও নতুন করে ছাড়াচ্ছে না। ফলে চিকিৎসা করা সহজ হচ্ছে।

রসওয়েল পার্কের ইমিউনোলজিস্ট গবেষক কেলভিন লি বলেন, প্রাথমিক ভাবে ফুসফুসের ক্যানসারের চিকিৎসায় এটা প্রয়োগ করা হচ্ছে। কিন্তু গবেষকরা আশা করছেন পরবর্তী ধাপে অন্যান্য ক্যানসারের ক্ষেত্রেও এর সফল প্রয়োগ সম্ভব হবে। কারণ এই ইজিএফ প্রোটিন কেবল ফুসফুসে নয়, প্রস্টেট, ব্রেস্ট, কোলন, প্যানক্রিয়াটিক ক্যানসারের ক্ষেত্রেও টিউমার সৃষ্টি করে।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here