30 C
Kolkata
Friday, June 18, 2021

এই সময়ে ঘরবন্দি শিশুসন্তানের সঙ্গে সময় কাটান, ওদের ভালোলাগা মন্দলাগা বুঝুন

আরও পড়ুন

খবরঅনলাইন ডেস্ক: শৈশব যেন থমকে গিয়েছে। করোনার জেরে ঘরবন্দি শিশুরা। খেলাধুলা, স্কুল, ঘুরতে যাওয়া, সবই বন্ধ। চার দেওয়ালের মধ্যে বন্দি থাকতে থাকতে শিশুরাও হাঁপিয়ে উঠছে। এতে বিঘ্নিত হচ্ছে তাদের মানসিক ও মেধার বিকাশ। 

করোনার জেরে ফুলের মতো রঙিন জীবনগুলো যেন এক লেখায় রঙহীন হয়ে পড়েছে। বদ্ধ জীবন শিশুদের খিটখিটে করে তুলছে। তারা হয়ে উঠছে আরও অবাধ্য। অবস্থা এমন জায়গায় দাঁড়িয়েছে যে মানসিক অবসাদ কাটাতে লকডাউনের মধ্যে অভিভাবকরা দ্বারস্থ হচ্ছেন মনোবিদদের কাছে।

Loading videos...
- Advertisement -

অনলাইনে ক্লাস হলেও স্কুলের পরিবেশ ও বন্ধুদের সঙ্গ না পাওয়ায় বিষণ্ণতা তৈরি হচ্ছে শিশুর মনে। দীর্ঘদিন বাড়িতে থেকে তারা একঘেয়েমি জীবনে বিরক্ত হয়ে যাচ্ছে। পড়াশোনার আগ্রহ কমে যাচ্ছে এবং রাগ ক্ষোভ প্রকাশ পাচ্ছে। আচরণগত সমস্যাও তৈরি হচ্ছে।

শিশু বিশেষজ্ঞরা বলছেন, দীর্ঘসময় গৃহবন্দি থাকায় শিশুদের মানসিক গঠনে নেতিবাচক প্রভাব পড়ছে। তারা আত্মকেন্দ্রিক হয়ে উঠছে। অনেক শিশুরই মেজাজ খিটখিটে হয়ে যাচ্ছে। খাওয়া, ঘুম, টিভি দেখা – রুটিন সব এলোমেলো হয়ে যাচ্ছে।

শিশুদের মন ভালো করতে কী করণীয়

লকডাউনের কারণে শিশুদের জীবনচর্যা বদলে গিয়েছে। মনোরোগ বিশেষজ্ঞরা পরামর্শ দিয়েছেন, এই সময় অভিভাবকদের উচিত সন্তানদের সঙ্গে বন্ধুর মতো মিশে বেশি করে সময় কাটানো। শিশুর ভালোলাগা মন্দলাগাকে বুঝতে হবে। এই সময় শিশুদের পড়াশোনার জন্য বেশি চাপ দেওয়া যাবে না। বেশি বকা বা শাসন করাও ঠিক নয়, তাদের মনের ওপর চাপ পড়তে পারে। তাদের নাচ, গান, গল্পের বই পড়া, ঘরের  কাজে উৎসাহ দিন, যাতে তাদের একঘেয়েমি দূর হয়।

এ ছাড়াও বন্ধু-আত্মীয়দের সঙ্গে ভিডিয়ো কলে কথা বলান। বাড়ির মধ্যে বাগানে, ছাদে, প্রকৃতির সঙ্গে শিশুদের নিয়ে সময় কাটান। শুধু তা-ই নয়, কোনো সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষেত্রে শিশুদের ইচ্ছেকে অগ্রাধিকার দেওয়া প্রয়োজন।

মন ভালো করতে খাওয়াদাওয়া

সব বাচ্চার বাইরে জাঙ্কফুড খাওয়ার প্রবণতা বেশি। এই পরিস্থিতিতে বাইরের খাবার বাচ্চাদের শরীরের জন্য স্বাস্থ্যকর নয়। তাই শিশুদের মন ভালো করতে বাড়িতেই বানান মনের মতো রকমারি খাবার, যা স্বাস্থ্যকর হবে। তাজা ফল দিয়ে বাড়িতেই বানিয়ে দিন ফ্রুটকেক, কিংবা স্মুদি (ফল, সবজি আর দুধের মিশেলে পানীয়) বা মিল্কশেক। নিউট্রিশনিস্ট ও হোলিস্টিক হেলথ কোচ ক্যামেলিয়া দাস বলেছেন, বাচ্চাদের পুষ্টির জন্য রোজ এক গ্লাস করে স্মুদি খাওয়া দরকার।

আরও পড়ুন: খাওয়ার ধরনে এই ৫টি পরিবর্তন আনুন, দেখবেন ওজন কমবেই

- Advertisement -

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

- Advertisement -

আপডেট

মাইথন, পাঞ্চেত থেকে জল ছাড়া শুরু করল ডিভিসি

ঘাটাল, আসানসোলে বন্যা পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে।

পড়তে পারেন