Connect with us

শরীরস্বাস্থ্য

আপনার ব্যবহারের মাস্কটি সুরক্ষিত তো? জেনে নিন

খবর অনলাইন ডেস্ক : করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ছড়ানো রোখার জন্যই মাস্ক পরার কথা বলছেন বিশেষজ্ঞরা। কিন্তু তাঁরা রেসপিরেটর বা ভালভ্‌যুক্ত এন৯৫ মাস্ক ব্যবহারে না করে দিয়েছেন। কারণ এই মাস্ক সংক্রমণ ছড়ানোর ক্ষেত্রে বড়ো ভূমিকা পালন করে। এই বিষয়ে কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রক সতর্কতাও জারি করেছে। তাতে বলা হয়েছে, জন সমাগমের মধ্যে এই ভালভ্‌যুক্ত এন৯৫ মাস্কের অসঙ্গত ব্যবহার হচ্ছে। এই বিষয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রক স্বাস্থ্যকর্মীদের দৃষ্টি আকর্ষণ করতে চায়।

কয়েক মাস আগে অতিমারির হাত থেকে বাঁচার আগে তিনটি মূলমন্ত্র মানুষকে পালন করতে বলা হয়েছিল। এক ফেস মাস্ক, দুই স্যানিটাইজার, তিন শারীরিক দূরত্ব।

কিন্তু এই ফেস মাস্ক নিয়ে বারে বারেই নানান মতনৈক্য উঠে এসেছে। কখনও বলা হয়েছে, কাপড়ের মাস্কই যথেষ্ট এই ভাইরাস আটকানোর জন্য, কখনও বা সার্জিক্যাল মাস্কই যথেষ্ট বলা হয়েছে। আবার কখনও বা এন৯৫ মাস্কেই মান্যতা দেওয়া হয়েছে।

একটা সময় মাস্কের চাহিদা বাজারে প্রচুর থাকলেও তার জোগান যথেষ্ট ছিল না। এর পর এখন মাস্কের ছড়াছড়ি। মানুষকে নানান ধরনের মাস্ক পরতে দেখা যাচ্ছে। সঙ্গে এন৯৫ মাস্কও বাজারে এখন মিলছে। কিন্তু তার মধ্যে বেশির ভাগেই রয়েছে ফাইভারের ভেতরে প্ল্যাস্টিক সিট দিয়ে তৈরি একটি ভালভ্। এই ভালভ্-এর কাজ হল নিশ্বাসের বায়ুকে বাইরে আসতে দেওয়া ও বাইরের বাতাস ভেতরে যেতে দেওয়া। যাতে করে পরিধানকারীর নিশ্বাস নিতে সমস্যা না হয়।

কিন্তু এখানেই গলদ। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এই পথেই সংক্রমণ বিনা বাধায় ছড়িয়ে পড়ছে। কারণ এই ভালভ্‌যুক্ত এন৯৫ মাস্ক যারা পরছে তারা ভাবছে তারা সুরক্ষিত। কারণ মাক্সের এন৯৫-এর এই বিশেষণটিই। কিন্তু তা নয়। বিশেষজ্ঞদের মতে, ওই পথেই উপসর্গহীন ব্যক্তির কাছ থেকে দ্রুত গতিতে বেরিয়ে আসে ভাইরাস এবং অন্য জনের মাস্কের ওই পথেই বাতাসের সঙ্গে নিশ্বাসের পথে শরীরে প্রবেশ করে ভাইরাস।     

বিশেষজ্ঞদের দেওয়া একটি পরিসংখ্যান থেকে খুব সহজেই অনুমান করে নেওয়া যায় যে, কোন মাস্কের প্রতিরোধ ক্ষমতা কতটা। কোন মাস্কই বা পরা উচিত আর কোনটা নয়।

দেখে নেওয়া যাক পরিসংখ্যানটি –

 এন৯৫ মাস্ক –

ভাইরাস আটকায় ৯৫%, ব্যাকটেরিয়া ১০০%, ধূলিকণা ১০০%, ধুলো ১০০%।

কিন্তু এই শক্তিশালী সুরক্ষা ব্যবস্থা সবটাই শূন্য হয়ে যায় যখন এতে ভালভ্‌ থাকে।

তিন স্তরের সার্জিক্যাল মাস্ক –

ভাইরাস আটকায় ৯৫%, ব্যাকটেরিয়া ৮০%, ধূলিকণা ৮০%, ধুলো ৮০%।

এফএফপি১ মাস্ক (আইসোলেট সাসপেন্ডেড পার্টিকলস) –

ভাইরাস আটকায় ৯৫%, ব্যাকটেরিয়া ৮০%, ধূলিকণা ৮০%, ধুলো ৮০%।

অ্যাকটিভেট কার্বন –

ভাইরাস আটকায় ১০%, ব্যাকটেরিয়া ৫০%, ধূলিকণা ৫০%, ধুলো ৫০%।

কাপড়ের মাস্ক –

ভাইরাস আটকায় ০%, ব্যাকটেরিয়া ৫০%, ধূলিকণা ৫০%, ধুলো ৫০%।

স্পঞ্জ মাস্ক –

ভাইরাস আটকায় ০%, ব্যাকটেরিয়া ০৫%, ধূলিকণা ০৫%, ধুলো ০৫%।

মন্ত্রকের ওয়েবসাইটে রয়েছে এই বিষয়ে বিশেষ পরামর্শ। সেখানে দেওয়া পরামর্শ অনুযায়ী, বাড়িতে তৈরি ফেস ও মাউথ কভার গাইডলাইন মেনে চলতে বলা হয়েছে।

অনলাইনেও কিনতে পারেন আপনার প্রয়োজনীয় মাস্কটি। কিনতে হলে এখানে ক্লিক করুন

পড়ুন – করোনা সংক্রমণ ঠেকাতে পারে না এন-৯৫ মাস্ক, সতর্ক করল কেন্দ্র

Advertisement
Click to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

শরীরস্বাস্থ্য

৬টি ভিন্ন পথে কোভিড-১৯ সংক্রমণ, দেখে নিন কোন পর্যায়ে কী

সচরাচর ছ’টি পথেই কোনো ব্যক্তিকে কোভিড-১৯ কাবু করতে পারে।

প্রতীকী ছবি

ওয়েবডেস্ক: কোভিড-১৯ ভিন্ন ধরনের ছ’টি পথে কাউকে আক্রান্ত করতে পারে। একাধিক গবেষণায়, করোনাভাইরাস (Coronavirus) সংক্রমণের উপসর্গ হিসাবে অসংখ্য বিষয়কে সামনে নিয়ে আসা হলেও একটি গবেষণা বলছে, সচরাচর ছ’টি পথেই কোনো ব্যক্তিকে কোভিড-১৯ (Covid-19) কাবু করতে পারে।

সংক্রমিত হওয়ার এক সপ্তাহ পর্যন্ত বিভিন্ন রোগীকে পর্যবেক্ষণ করে বিশেষত ছ’ ধরনের পর্যায়ে আক্রান্তদের ভাগ করেছে একটি সমীক্ষা। এই পর্যায়গুলি প্রকৃত রোগীর হাসপাতালে ভরতি হওয়ার সম্ভাবনা নির্ধারণে সহায়তা করতে পারে।

এক নজরে ৬টি পথ

১. ফ্লু-এর মতো সংক্রমণ, কিন্তু জ্বর নেই

সংক্রমণের সব থেকে মৃদু অবস্থা। এই ধরনের সংক্রমণের ক্ষেত্রে ঠান্ডা লাগা, গলা ব্যথা, নাক বন্ধ হয়ে থাকা, বুকে ব্যথা, পেশির ব্যথা, গন্ধহীনতা এবং মাথাব্যথার মতো লক্ষণগুলি ধরা পড়ে। পর্যবেক্ষণে দেখা গিয়েছে, এই পর্যায়ের সংক্রমণে আক্রান্তদের জ্বর ছিল না।

২. ফ্লু-এর মতো সংক্রমণ, কিন্তু জ্বর-সহ

প্রথম পর্যায়ের থেকে সামান্য জটিল। এই বিভাগের রোগীর মধ্যে একটি হালকা ফ্লু জাতীয় সংক্রমণের লক্ষণ এবং ক্রমবর্ধমান জ্বরের উপস্থিতি দেখা যায়। খিদে কমে যাওয়ার ঘটনাও দেখা দেয়। গলার স্বর ভাঙা অথবা শুকনো কাশিও উল্লেখযোগ্য।

৩. গ্যাস্ট্রোইনটেস্টিনাল সংক্রমণ

এই ক্লাস্টারের অন্তর্ভুক্ত রোগীরা এমন উপসর্গগুলি ভোগ করেছেন, যা তাঁদের হজম এবং গ্যাস্ট্রোইনটেস্টিনাল কার্যকলাপকে প্রভাবিত করে। যদিও এই পর্যায়ে কাশি একটি প্রধান লক্ষণ ছিল না, বমি বমি ভাব, খিদে কমে যাওয়া, ডায়রিয়া অনেক বেশি দেখা যায়। মাথাব্যথা এবং বুকের ব্যথাও লক্ষ্য করা গিয়েছে।

৪. ক্লান্তি-সহ গুরুতর স্তর-১

সরাসরি অনাক্রম্যতার সঙ্গে সম্পর্কযুক্ত এই পর্যায় গুরুতর। ক্লান্তি গভীর ভাবে ঘিরে ধরে। গুরুতর কোভিড-১৯ রোগীর জন্য এটি একটি সতর্কবার্তা হিসাবে বিবেচিত হয়। এই বিভাগের রোগীদের ক্লান্তি, মাথাব্যথা, গন্ধ এবং স্বাদহীনতা, গলা ব্যথা, জ্বর এবং বুকে ব্যথার মতো লক্ষণগুলি পর্যবেক্ষণে উঠে এসেছে।

৫. একাধিক জটিলতা-সহ গুরুতর স্তর-২

স্তর-১-এর থেকে মারাত্মক। এই পর্যায়ের লক্ষণগুলির ফলে নার্ভাস সিস্টেমের ক্রিয়াকলাপ প্রভাবিত হয় এবং সম্ভবত মস্তিষ্কেও এর প্রভাব পড়ে বলে মনে করা হয়। মাথাব্যথা, ঘ্রাণশক্তি কমে যাওয়া, খিদে কমে যাওয়া, কাশি, জ্বর, প্রকোপ, বিভ্রান্তি, গলা ব্যথা, বুকে ব্যথা, ক্লান্তি, পেশি ব্যথা ইত্যাদি অসংখ্য সমস্যার সৃষ্টি হয়।

৬. পেটে এবং শ্বাসকষ্টের সঙ্গে গুরুতর স্তর-৩

এটি সব থেকে উদ্বেগজনক এবং গুরুতর ধরনের লক্ষণ। এগুলি সচরাসচর প্রথম সপ্তাহে দেখা যায় বলে জানাচ্ছে গবেষণা। গলা ব্যথা, দীর্ঘস্থায়ী জ্বর, খিদে কমে যাওয়া, মাথাব্যথা, ডায়রিয়া, শ্বাসকষ্ট, পেশি এবং পেটের ব্যথা ইত্যাদি। এই পর্যায়ের আক্রান্তের হাসপাতালে ভরতি হওয়ার সম্ভাবনা সব থেকে বেশি ।

Continue Reading

খাওয়াদাওয়া

এলাচ কেন খাবেন? জেনে নিন ১৮টি কারণ

খবরঅনলাইন ডেস্ক : মশলার রানি এলাচ। যেমন গন্ধ তেমনই স্বাদ। শুধু তাই নয়, তেমনই এর খাদ্য ও পুষ্টিগুণ।  

এলাচের খাদ্য ও পুষ্টিগুণ –

এতে আছে প্রোটিন, কার্বোহাড্রেট, কোলেস্টেরল, ক্যালোরি, ফ্যাট, ফাইবার, নিয়াসিন, রাইবোফ্ল্যাভিন, পাইরিডক্সিন, থিয়ামিন, ইলেকট্রোলাইট, সোডিয়াম, পটাশিয়াম, ক্যালসিয়াম, কপার, আয়রন, ম্যাগনেশিয়াম, ম্যাঙ্গানিজ, ফসফরাস, জিঙ্ক, ভিটামিন এ, সি ইত্যাদি।

এলাচের উপকারিতা –  

১. হৃদযন্ত্রের জন্য

এলাচের মধ্যে থাকা অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট উপাদান হার্টের জন্যে ভালো। কোলেস্টেরল কম করতে সাহায্য করে। উচ্চ রক্তচাপেও দারুণ একটি ওষুধ এলাচ।

২. শ্বাসকষ্টে

এলাচ বিভিন্ন রকমের সমস্যা যেমন সর্দি, কাশি, ফুসফুসের সমস্যা ও রক্ত সঞ্চালনের সমস্যা ইত্যাদি থেকে মুক্তি দেয়। ব্রঙ্কাইটিস বা শ্বাসপ্রশ্বাসের কোনো রকম সমস্যা থাকলে এলাচ খাওয়া ভালো।

৩. রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে

উচ্চ রক্তচাপের সমস্যায় এলাচ খুব উপকারী। ওষুধের কাজ করে এটি। স্যুপ বা স্টু-এর মধ্যে এলাচ মিশিয়ে খেলে খুব সহজেই কিছু দিনের মধ্যে রক্তচাপ নীচে নামতে শুরু করে।

৪. ডিপ্রেশনে

ডিপ্রেশনের মতো মানসিক সমস্যার হাত থেকে বাঁচতে এলাচ দারুণ সাহায্য করে। প্রতি দিন চায়ের মধ্যে কয়েক দানা এলাচ ফেলে ফুটিয়ে পান করা ভালো।

৫. হজমের কাজে

এর মধ্যে রয়েছে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট ও অ্যান্টিইনফ্লেমেটরি উপাদান যা বিপাকের ব্যাধি থেকে শরীরকে মুক্তি দেয়। যকৃৎ ও অগ্ন্যাশয়ের উন্নতি ঘটায়। ফলে হজম ভালো হয় ফলে বুকে জ্বালা বা পেট খারাপ এবং অম্বলের মত সমস্যা থেকেও অনায়াসে রেহাই পাওয়া যায়।

৬. ডিটক্সিফিকেশন

শরীরে যত বেশি পরিমাণ ফাইবার, ক্যালসিয়াম, আয়রন ও অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট প্রবেশ করে, ভেতর থেকে তত বেশি পরিষ্কার ও সতেজ থাকে। এলাচ শরীরে বাইরে থেকে আসা যে কোনো বিষক্রিয়া থেকে মুক্তি দেয় ও ডিটক্সিফাই করে।

৭. হেঁচকির হাত থেকে রেহাই

শরীরের যে কোনো মাংসপেশিকে শান্ত করতে এলাচের উপকারিতা অনেক। তাই কোনো কারণে যদি হেঁচকির সমস্যায় পড়েন, তাহলে এক কাপ গরম জলে এক চা চামচ এলাচ মিশিয়ে ১৫ মিনিট রেখে সেটি আসতে আসতে পান করলে উপকার হয়।

৮. ক্ষুধা বৃদ্ধিতে

এলাচ খিদে বাড়াতে সাহায্য করে। এলাচের তেল ব্যবহার করলে খাওয়ার প্রতি ইচ্ছে বাড়ে ও খিদেও বাড়ে।

৯. দাঁত ও মুখের জন্যে

এলাচের অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল উপাদান মুখের ভেতরের অংশের অর্থাৎ মাড়ি ও দাঁতের খুব উপকার করে। এলাচের ঝাঁঝালো স্বাদ নিঃশ্বাসের দুর্গন্ধ দূর করে ও তরতাজা ভাব আনে।

১০. ক্যানসারে

এলাচের খাদ্যগুণের কারণে অনেক ধরনের ক্যানসারের টিউমার বা কোষগুলি বাড়তে পারে না। কোলোরেক্টাল ক্যানসারের ক্ষেত্রে এলাচের গুনাগুণ বিশেষ ভাবে প্রমাণিত হয়েছে।

১১. স্মৃতিশক্তি প্রখর করে

এলাচে থাকা অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট মস্তিষ্ককে শান্ত করে ও স্মৃতিশক্তি প্রখর করে তুলতে সাহায্য করে। প্রতি দিন দুধের সঙ্গে দু’টি এলাচ ফুটিয়ে সেটি পান করুন। ফল অবশ্যই পাবেন।

১২. যৌন স্বাস্থ্য

এলাচের মধ্যে নানান খাদ্য উপাদানের কারণে এটি স্নায়ুকে শান্ত করে ও যৌনইচ্ছাকে বাড়িয়ে তোলে। এ ছাড়া, বন্ধ্যাত্ব থেকে মুক্তি পেতেও এলাচ সাহায্য করে।

১৩. উজ্জ্বল ত্বকে

ত্বকের ফর্সাভাব ও ঔজ্জ্বল্যের জন্যে এলাচ দারুণ কাজ করে। ত্বকে ব্রণ ও কালচে ভাব দূর করে। মধু ও এলাচের প্যাক বানিয়ে মুখে লাগিয়ে ফল পেতে পারেন।

১৪. ত্বকের এলার্জি

এলাচে অ্যান্টিব্যাকটিরিয়াল উপাদান ভরপুর। এটি খুব ভালো অ্যান্টিসেপটিক ও অ্যান্টিইনফ্লেমেটরি। ফলে ত্বককে মোলায়েম করে, ঠান্ডা রাখতে সাহায্য করে। তাই এলাচ ত্বকের জন্যে একটি ওষুধও। মধু এবং কালো এলাচের মিশ্রণ এলার্জি হওয়া অংশে লাগালে খুব তাড়াতাড়ি ফল পাবেন।

১৫. রক্ত সঞ্চালন উন্নত করে

এলাচে রয়েছে ভিটামিন সি, অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, এগুলি ত্বকে রক্ত সঞ্চালন উন্নত করে ও ত্বকের স্বাস্থ্য ভালো করে।

১৬. ঠোঁটের জন্যে

এলাচ দিয়ে ঠোঁটের নানা রকমের বাম, গ্লস বা তেল তৈরি হয় যা ঠোঁটের কোমলভাব ফুটিয়ে তোলে। গোলাপি ভাব বজায় রাখে। ঘরেও প্যাক তৈরি করে সারা রাত ঠোঁটে লাগিয়ে রাখা যায়। এই প্যাক করতে লাগে এলাচের গুঁড়ো, অলিভ অথবা আমন্ড অয়েল এবং একটুখানি অ্যালোভেরা জেল। প্রতি দিন এটি ঠোঁটে লাগিয়ে রেখে ১৫ মিনিট পর ধুয়ে ফেলুন।

১৭. চুলের যত্নে

মাথার ত্বক পরিষ্কার থাকলে চুলের গোড়া মজবুত হয় ও চুল পড়ার সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া যায়। এলাচের মধ্যে থাকা পুষ্টিকর উপাদান চুলের গোড়া মজবুত করে চুলকে ঝলমলে ও লম্বা করতে সাহায্য করে।

১৮. মাথার ত্বকের জন্যে

অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট থাকার ফলে মাথার ত্বক ভালো রাখে। এলাচ চুলের ফলিকলগুলিকে মজবুত করে। এলাচ ভেজানো জল দিয়ে চুল ধুলে বা এলাচের গুঁড়ো চুলে লাগানোর পর শ্যাম্পু করলে সব থেকে ভালো ফল পাওয়া যায়। এলাচের অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল উপাদান মাথার ত্বকের ইনফেকশনকে দ্রুত সারিয়ে তোলে।

জেনে রাখুন – করোনার এই সংকটকালে লবঙ্গ কেন খাবেন? জেনে নিন ২২টি উপকারিতা

Continue Reading

শরীরস্বাস্থ্য

করোনার এই সংকটকালে লবঙ্গ কেন খাবেন? জেনে নিন ২২টি উপকারিতা

food

খবরঅনলাইন ডেস্ক : ‘লবঙ্গ’ বা ‘লং’-এর সুগন্ধের মূলকারণ ‘ইউজেনল’ নামের যৌগ। লবঙ্গ তেলের মূল উপাদানই হল এটি। প্রায় ৭২%-৯০% ইউজেনল বিদ্যমান। এই যৌগই জীবাণু এবং বেদনানাশক।

অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ উপাদান – অ্যাসিটাইল ইউজেনল, বেটা-ক্যারোফাইলিন, ভ্যানিলিন, ক্র্যাটেগলিক অ্যাসিড, ট্যানিন, গ্যালোট্যানিক অ্যাসিড, মিথাইল স্যালিসাইলেট, ফ্ল্যাভানয়েড, ইউজেনিন, ইউজেনটিন, ট্রি-টেরপেনয়েড, ক্লিনোলিক অ্যাসিড, স্টিগ্মাস্টেরল, সেস্কুইটার্পিন ইত্যাদি।

ইউনাইটেড স্টেটস ডিপার্টমেন্ট অব এগ্রিকালচার (ইউএসডিএ)-এর মতানুসারে ১০০ গ্রাম লবঙ্গে ২৭৪ কিলোক্যালোরি শক্তি ও ৬৫ গ্রাম কার্বোহাইড্রেট, ৩৩ গ্রাম ডায়েটারি ফাইবার, ১৩ গ্রাম টোটাললিপিড, ৬ গ্রাম প্রোটিন, ২ গ্রাম সুগার থাকে।

খনিজের মধ্যে থাকে জিঙ্ক, আয়রন, ম্যাগনেশিয়াম, ফসফরাস, পটাশিয়াম, সোডিয়াম, ক্যালসিয়াম। ভিটামিনের মধ্যে এ, বি-৬, বি-১২, সি, ডি, ই, কে, থায়ামিন, রাইবোফ্লাভিন, নিয়াসিন, ফোলেট। রয়েছে প্রচুর পরিমাণ অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট।

এই সমস্ত গুণের জন্য প্রতি দিন সকালে ও রাতে ২-৩টি করে লবঙ্গ চিবিয়ে খেলে প্রচুর উপকার হয়

করোনা আবহে সমস্যা থেকে বাঁচার জন্য সব থেকে বেশি উপকার যেগুলো হয় তা হল –

১। উৎকণ্ঠা

প্রচণ্ড মানসিক চাপ ও উত্‍কণ্ঠা কমায়। মেজাজ ফুরফুরে করে।

২। সর্দিকাশি

সর্দি-কাশি ও ঠান্ডা লাগায় মহৌষধি। লবঙ্গ মুখে রেখে চুষলে সর্দি, কফ, ঠান্ডা লাগা, অ্যাজমা, গলাফুলে ওঠা, রক্ত পিত্ত ও শ্বাসকষ্টে সুফল মেলে।

৩। সাইনাস

সাইনাসের কারণে হওয়া ইনফেকশনের প্রকোপ কমায়। লবঙ্গে বিদ্যমান ইগুয়েনাল সাইনাসের কষ্ট কমাতে বিশেষ ভূমিকা পালন করে।

৪। জ্বরে

লবঙ্গে থাকা ভিটামিন কে এবং ই রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থাকে শক্তিশালী করে। শরীরে উপস্থিত খারাপ ভাইরাস মারা যায়। ফলে ভাইরাল জ্বরের প্রকোপ কমে। ফলে সংক্রমণে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কাও কমে যায়।

৫। অরুচি

বিভিন্ন রোগ বিশেষ করে পেটের রোগে এবং জ্বরে ভোগার পরে খাবারে অরুচি হলে লবঙ্গ আবার খাবারে রুচি ফিরিয়ে আনে।

৬। মধুমেহ

ডায়াবেটিস রোগকে নিয়ন্ত্রণে রাখে। এই রোগে প্রয়োজনীয় ইনসুলিন শরীরে তৈরি হতে পারে না। লবঙ্গ রস শরীরের ইনসুলিন তৈরিতে সাহায্য করে। কর্মক্ষমতা বাড়ায়, রক্তে সুগারের মাত্রা নিয়ন্ত্রণে রাখে। ফলে রক্তে শকর্রার মাত্রা নিয়ন্ত্রিত হয়।

৭। লিভারে

লবঙ্গের অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট শরীরে প্রবেশ করার পর দেহে উপস্থিত টক্সিক উপাদান বের করে দেয়। ফলে লিভার সুস্থ থাকে। প্রতিটি গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গের কর্মক্ষমতা বাড়ে। এ ক্ষেত্রে হেপাটো প্রোটেকটিভ প্রপার্টিজ বিশেষ ভূমিকা পালন করে।

৮। রক্ত পরিশোধন

লবঙ্গ রক্তকে পরিশোধন করে।

৯। মাথাব্যথা

ধোঁয়া, রোদ এবং ঠান্ডার জন্য শ্লেষ্মা বেড়ে নানা ধরনের মাথাব্যথা হয়। কমাতে লবঙ্গের উপকারিতা অপরিসীম।

১০। বমিভাব

মাথা ঘোরা থেকে বমিভাব হলে মুখে লবঙ্গ রস চুষলে কমে যায়। গর্ভবতীরাও সকালের বমিবমি ভাব দূর করতে লবঙ্গ চুষতে পারেন।

১১। পিপাসা রোগে

যারা পিপাসা রোগে প্রায়ই আক্রান্ত হন তাদের সকালে ও বিকালে লবঙ্গ খেলে পিপাসা চলে যায়।

১২। পেটের অসুখ

পেট ফাঁপা, পেটের অসুখ নিরাময়ে লবঙ্গ ভালো। বদ হজম, খিদে না হওয়া, পেটের বায়ু, পেট ব্যথা, অজীর্ণ, এমনকি কলেরা বা আন্ত্রিক রোগের উপকার করে।

১৩। হজমক্ষমতা

হজমে সহায়তা করে এমন উৎসেচক নিঃসরণের করে এবং অ্যাসিড ক্ষরণের মাধ্যমে লবঙ্গ হজমক্ষমতা বৃদ্ধি করে। এরাফ্লাটুলেন্স, গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা, ডিসপেপসিয়া এবং নসিয়া কমাতে সাহায্য করে।

১৪। দাঁতের সমস্যা

লবঙ্গ দাঁতের ব্যথা, মাড়ির ক্ষয় নিরাময় করে। লবঙ্গতে উপস্থিত অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি উপাদান শরীরে বিশেষ বিক্রিয়া করে যে দাঁতের যন্ত্রণা কমায়।

১৫। যৌন রোগে

সুবাস অবসাদ দূর করে, শরীর ও মনের ক্লান্তি কমায়। যৌন শক্তি বৃদ্ধি করে।

১৬। ব্রণর সমস্যায়

ব্রণের দাগ দূর করতে লবঙ্গের পেস্ট ভালো। লবঙ্গ খেলেও ব্রণ হয় না।

১৭। বায়োঅ্যাক্টিভ উপাদানের উপকারিতা

এর মধ্যে অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল, অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, অ্যান্টিকারসিনোজেনিক, অ্যান্টিমাইক্রোবিয়া, অ্যান্টিইনফ্লেমেটোরি, হেপাটো-প্রোটেক্টিভ-সহ অনেক বায়োঅ্যাক্টিভ উপাদান থাকে। কলেরা, যকৃতের সমস্যা, ক্যানসার, শরীরে ব্যথা ইত্যাদি থেকে শরীরকে রক্ষা করে।

১৮। মুখের দুর্গন্ধ

মাড়ির সমস্যা, যেমন জিনজিভাইটিস ও পেরিওডনটাইটিস হলে লবঙ্গ ব্যবহার হয়। এর মাথার অংশ ওরাল প্যাথোজেনের বৃদ্ধিরোধ করে। ফলে এ সকল রোগের হাত থেকে মুখ রক্ষা পায়।

১৯। আর্থ্রাইটিসে

লবঙ্গে উপস্থিত অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি উপাদান আর্থ্রাইটিসের প্রকোপ কমাতে সাহায্য করে। জয়েন্ট পেন, পেশির ব্যথা, হাঁটুতে, পিঠে বা হাড়ের ব্যথা এবং ফোলা ভাব কমাতেও ঔষধিটি বিশেষ ভূমিকা নেয়।

২০। ত্বকের সংক্রমণ

লবঙ্গে উপস্থিত ভোলাটাইল অয়েল শরীরে উপস্থিত টক্সিক উপাদান বের করে। সেই সঙ্গে জীবাণুদেরও মেরে ফেলে। দ্রুত ঘা সারাতে পারে। এই সমস্ত সমস্যার আশঙ্কা কমে।

২১। হাড় শক্ত করে

লবঙ্গে উপস্থিত ফেনোলিক কম্পাউন্ড-ইউজিনল এবং ইউজিনল ডেরিভাটিভস শরীরে প্রবেশ করার পর বোন ডেনসিটির অর্থাৎ হাড়ের ঘনত্ব বাড়ায়। হাড়ের ভেতরের খনিজের ঘাটতি পূরণ করে।

২২। চুলের সমস্যা

লবঙ্গের তেল আপনার নিয়মিত ব্যবহারে চুল পড়া কমে এবং চুলের ঘনত্ব বৃদ্ধি পায়।

জেনে নিন- কেন খাবেন মধু? জেনে নিন মধুর এই ৩৩টি উপকারিতা

Continue Reading
Advertisement
বিনোদন2 hours ago

বিজয় মাল্যর বিরুদ্ধে তদন্তকারী সিবিআই দল-ই সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যুর তদন্তে!

রাজ্য2 hours ago

রাজ্যে প্রথম বার এক দিনে ২৫ হাজার টেস্ট, আক্রান্তের সংখ্যায় রেকর্ড হলেও সুস্থতার হারে স্বস্তি

প্রযুক্তি2 hours ago

হ্যাকার এবং সাইবার অপরাধীরা করোনার সুযোগ নিচ্ছে : বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা

কেনাকাটা2 hours ago

ঘর ও রান্নাঘরের সরঞ্জাম কিনতে চান? অ্যামাজন প্রাইম ডিলে রয়েছে ৫০% পর্যন্ত ছাড়

দেশ3 hours ago

বাংলাদেশ-ভারত সম্পর্ক দিন দিন আরও দৃঢ় হবে, বললেন ভারতীয় হাইকমিশনার

শিল্প-বাণিজ্য3 hours ago

ব্য়াঙ্ক চেকে জুড়ছে নতুন সুরক্ষা বৈশিষ্ট্য, ঘোষণা আরবিআইয়ের

দেশ4 hours ago

চেন্নাইয়ে মজুত প্রচুর টন অ্যামোনিয়াম নাইট্রেট, বেইরুটের ভয়াবহতায় বাড়ছে আতঙ্ক

বিজ্ঞান4 hours ago

করোনা রোগীর মৃত্যুর ঝুঁকি কমাতে প্লাজমা থেরাপির কোনো ভূমিকা নেই, বলেছে এইমসের অন্তর্বর্তী বিশ্লেষণ

দেশ13 hours ago

কোভিড আপডেট: নতুন করে আক্রান্ত ৫৬২৮২, সুস্থ ৪৬১২১

গাড়ি ও বাইক1 day ago

পেট্রোলচালিত গাড়ি ‘এস-ক্রস’ বাজারে নিয়ে এল মারুতি সুজুকি

ক্রিকেট2 days ago

অঘটন! ৩২৯ তাড়া করে বিশ্বচ্যাম্পিয়নদের হারাল আয়ারল্যান্ড

ক্রিকেট1 day ago

আইপিএলের নিয়মাবলি: গুচ্ছের টেস্টিং, চলা-ফেরায় নিয়ন্ত্রণ, একটি দলের জন্য একটি হোটেল

দেশ1 day ago

রুপোর ইট দিয়ে রামমন্দিরের শিলান্যাস করলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী

ক্রিকেট2 days ago

বিতর্কের মধ্যেই আইপিএলের সঙ্গত্যাগ করল চিনা সংস্থা ভিভো

প্রযুক্তি1 day ago

শাওমি, বাইডু-সহ আরও বেশ কয়েকটি চিনা সংস্থার অ্যাপ নিষিদ্ধ করল কেন্দ্র

দেশ2 days ago

আক্রান্তের সংখ্যার সঙ্গে পাল্লা দিল সুস্থতা, সক্রিয় কোভিডরোগী কমল ভারতে

রবিবারের খবর অনলাইন

কেনাকাটা

কেনাকাটা2 hours ago

ঘর ও রান্নাঘরের সরঞ্জাম কিনতে চান? অ্যামাজন প্রাইম ডিলে রয়েছে ৫০% পর্যন্ত ছাড়

খবরঅনলাইন ডেস্ক : অ্যামাজন প্রাইম ডিলে রয়েছে ঘর আর রান্না ঘরের একাধিক সামগ্রিতে প্রচুর ছাড়। এই সেলে পাওয়া যাচ্ছে ওয়াটার...

কেনাকাটা4 hours ago

এই ১০টির মধ্যে আপনার প্রয়োজনীয় প্রোডাক্টটি প্রাইম ডে সেলে কিনতে পারেন

খবরঅনলাইন ডেস্ক : চলছে অ্যামাজনের প্রাইমডে সেল। প্রচুর সামগ্রীর ওপর রয়েছে অনেক ছাড়। ৬ ও ৭  তারিখ চলবে এই সেল।...

কেনাকাটা22 hours ago

শুরু হল অ্যামাজন প্রাইম ডে সেল, জেনে নিন কোন জিনিসে কত ছাড়

খবরঅনলাইন ডেস্: শুরু হল অ্যামাজন প্রাইম ডে সেল। চলবে ২ দিন। চলতি মাসের ৬ ও ৭ তারিখ থাকছে এই অফার।...

things things
কেনাকাটা6 days ago

করোনা আতঙ্ক? ঘরে বাইরে এই ১০টি জিনিস আপনাকে সুবিধে দেবেই দেবে

খবরঅনলাইন ডেস্ক : করোনা পরিস্থিতিতে ঘরে এবং বাইরে নানাবিধ সাবধানতা অবলম্বন করতেই হচ্ছে। আগামী বেশ কয়েক মাস এই নিয়মই অব্যাহত...

কেনাকাটা1 week ago

মশার জ্বালায় জেরবার? এই ১৪টি যন্ত্র রুখে দিতে পারে মশাকে

খবরঅনলাইন ডেস্ক: একে করোনা তায় আবার ডেঙ্গুর প্রকোপ শুরু হয়েছে। এই সময় প্রতি বারই মশার উৎপাত খুবই বাড়ে। এই বারেও...

rakhi rakhi
কেনাকাটা2 weeks ago

লকডাউন! রাখির দারুণ এই উপহারগুলি কিন্তু বাড়ি বসেই কিনতে পারেন

সামনেই রাখি। কিন্তু লকডাউনের মধ্যে মনের মতো উপহার কেনা একটা বড়ো ঝক্কি। কিন্তু সেই সমস্যা সমাধান করতে পারে অ্যামাজন। অ্যামাজনের...

কেনাকাটা2 weeks ago

অনলাইনে পড়াশুনা চলছে? ল্যাপটপ কিনবেন? দেখে নিন ৪০ হাজার টাকার নীচে ৬টি ল্যাপটপ

ইনটেল প্রসেসর সহ কোন ল্যাপটপ আপনার অনলাইন পড়াশুনার কাজে লাগবে জেনে নিন।

কেনাকাটা2 weeks ago

করোনা-কালে ঘরে রাখতে পারেন ডিজিটাল অক্সিমিটার, এই ১০টির মধ্যে থেকে একটি বেছে নিতে পারেন

শরীরে অক্সিজেনের মাত্রা বুঝতে সাহায্য করে এই অক্সিমিটার।

কেনাকাটা3 weeks ago

লকডাউনে সামনেই রাখি, কোথা থেকে কিনবেন? অ্যামাজন দিচ্ছে দারুণ গিফট কম্বো অফার

খবরঅনলাইন ডেস্ক : সামনেই রাখি। কিন্তু লকডাউনের মধ্যে দোকানে গিয়ে রাখি, উপহার কেনা খুবই সমস্যার কথা। কিন্তু তা হলে উপায়...

laptop laptop
কেনাকাটা3 weeks ago

ল্যাপটপ কিনবেন? দেখে নিন ২৫ হাজার টাকার মধ্যে এই ৫টি ল্যাপটপ

খবরঅনলাইন ডেস্ক : কোভিভ ১৯ অতিমারির প্রকোপে বিশ্ব জুড়ে চলছে লকডাউন ও ওয়ার্ক ফ্রম হোম। অনেকেই অফিস থেকে ল্যাপটপ পেয়েছেন।...

নজরে

Click To Expand