ওয়েবডেস্ক: মানসিক চাপ, অবসাদের মধ্যে দিয়ে আমরা সবাই কম বেশি পার করেছি জীবনের কোনো না কোনো অধ্যায়। মুখে না বললেও আশেপাশে ঘিরে থাকা মানুষগুলো বুঝতে পেরেছেন, আপনি ভালো নেই, এমনও হয়েছে। কাউকে দেখেই বোঝা যায়, চেহারায় সেই অবসাদের ছাপ পড়ে। কারোর আবার মেজাজ বিগড়ে যায় সহজেই। আরও আশ্চর্যের বিষয়, সাম্প্রতিক এক গবেষণার ফলাফল বলছে আমাদের শব্দচয়ন নাকি আমাদের মনের প্রতিফলক। সারা দিনের কাজে কর্মে কোন শব্দ বেশি ব্যবহার করছি, তা নাকি বলে দেয় আসলে কতটা চাপে রয়েছি আমরা।

‘প্রসিডিং অব দ্য ন্যাশানাল অ্যাকাডেমি অব সায়েন্স’ -এ প্রকাশিত হওয়া গবেষণাপত্র থেকে আমরা জানতে পারি, ‘রিয়েলি’, ‘ভেরি’, ‘সো’ এই জাতীয় শব্দ সারা দিনে একাধিকবার ব্যবহার করা মানেই বক্তা কোনো কারণে মানসিক চাপে রয়েছেন। সাধারণত এই সময় মানুষ কথার মধ্যে বিশেষণ এবং সর্বনাম বেশি ব্যবহার করে থাকেন। সর্বনামের খেত্রেও আবার ভাগ রয়েছে। অবসাদগ্রস্ত মানুষেরা তৃতীয় পুরুষের বহুবচনের সর্বনাম যেমন ‘দেয়ার’, ‘দে’ (তাঁদের, তাঁরা)- এই সমস্ত শব্দ প্রায় ব্যবহার করেনই না। এর পেছনে বিজ্ঞানীদের বিশ্লেষণ, এরা নিজেদের নিয়ে এতটাই চিন্তিত এবং ব্যস্ত থাকেন, যে অন্যদের নিয়ে এবং অনেককে নিয়ে ভাবার অবকাশ পান না।

গবেষণাটি যে হেতু মার্কিন (অ্যারিজোনা এবং পেন্সিলভ্যানিয়া) বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে আয়োজন করা এবং ইংরেজি ভাষাভাষী মানুষদের নিয়ে, স্বাভাবিক ভাবেই শব্দগুলি ইংরেজি। তবে ভারতীয়দের খেত্রেও এই গবেষণার ফলাফল যথেষ্ট প্রযোজ্য। বহুজাতিক তথ্যপ্রযুক্তি সংস্থায় কাজ করার দরুন বেশ বড়ো সংখ্যক মানুষ আজকাল দিনের বেশির ভাগ সময় ইংরেজিতে কথা বলতেই অভ্যস্ত। তা ছাড়া সারা দিনের কথাবার্তায় ওই ইংরেজি শব্দের বাংলা কিংবা অন্য প্রতিশব্দ বেশি করে ব্যবহার করলেও কিন্তু বুঝতে হবে মানসিক চাপে রয়েছেন বক্তা।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here