Connect with us

শরীরস্বাস্থ্য

আপনি কি কোনো কারণে হতাশা বা ডিপ্রেশনে ভুগছেন? বুঝবেন এই লক্ষণগুলি থেকে: পর্ব ১

অনেকের মধ্যেই কোনো না কোনো কারণে কমবেশি ডিপ্রেশন বা অবসাদ কাজ করছে।

Published

on

খবর অনলাইন ডেস্ক : ব্যস্ততাময় প্রতিযোগিতার জীবন, সঙ্গে বর্তমান পারিপার্শ্বিক পরিস্থিতি। তার ওপর ব্যক্তিগত জীবনের নানান টানাপোড়েনের কারণে ডিপ্রেশন এখন একটা খুব সাধারণ ব্যাপারে পরিণত হয়েছে। অনেকের মধ্যেই কোনো না কোনো কারণে কমবেশি ডিপ্রেশন বা অবসাদ কাজ করছে

ডিপ্রেশন থেকে অনিদ্রা, হাইপারটেনশন, ডায়াবেটিস, ব্লাড প্রেশার, থাইরয়েড, ক্যানসার-সহ বহু জটিল রোগ দেখা দিচ্ছে। শুধু তাই নয়, আত্মহত্যার চেষ্টাও বেড়ে যাচ্ছে। অপরাধ, অনৈতিক কাজ, নেশা করার মতো ঘটনাও ঘটছে।

এ ক্ষেত্রে ডিপ্রেশনে আছেন কিনা জানাটা সব চেয়ে বেশি জরুরি। তবেই তার থেকে বেরিয়ে আসার চেষ্টা করা যাবে। কী কী থেকে বুঝবেন ডিপ্রেশন, হতাশা বা অবসাদে ভুগছেন কি না?

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, লক্ষণগুলি হল

১। হঠাৎ হঠাৎ মুড পরিবর্তন

হঠাৎ হঠাৎ মুড পরিবর্তন হল খুবই সাধারণ একটি লক্ষণ। বিষয়টি জানা থাকলে এর থেকে ডিপ্রেশনকে চিহ্নিত করা যায়। না হলে নয়। কখনও খুশি কখনও মন খারাপ। কখনও ভালো কখনও খারাপ। এ বেলা আনন্দে, ও বেলা মানসিক যন্ত্রণায়।

২। জীবন নিয়ে দৃষ্টিভঙ্গি

জীবনের উপলব্ধি ঠিক ভাবে হয় না। কখন মনে হয় কিছু নেই, কেউ নেই, এই জীবনের অর্থ হয় না। আবার কখনও মনে হয় এই বেশ ভালো আছি।

৩। উদাসীনতা

জীবনের প্রতি উদাসীনতা। নিজের বর্তমানে সন্তুষ্ট না থাকা, খালি মনে হওয়া এটা আমার জন্য নয়, অন্য কিছু হওয়ার ছিল, করার ছিল, পাওয়ার ছিল যার কিছুই হয়নি।

৪। জীবনকে বোঝা মনে হয়

কোনো কিছুই যেন ভালো লাগে না। জীবনটাকেই অর্থহীন, উদ্দেশ্যহীন মনে হয়। মনে হয় এর এ বার শেষ হলে বাঁচি। এই জীবনকে বয়ে নিয়ে যেতে হবে আর কত দিন?

৫। লোকের সমালোচনা সহ্যের ক্ষমতা

কেউ কিছু বললে সহজেই মাথা গরম হয়ে যাওয়া। সমালোচনা সহ্য করতে না পারা। অল্পতেই মানসিক ভারসাম্য হারিয়ে উত্তেজিত হয়ে যাওয়া।

৬। শরীরে নানান রকমের হরমোনের প্রতিক্রিয়া

অতিরিক্ত মানসিক চাপ, চিন্তা ইত্যাদি থেকে শরীরে নানা হরমোনের বিরূপ প্রতিক্রিয়া ঘটতে শুরু হয়। তার থেকে অহেতুকই শরীরে নানান কষ্ট হতে থাকে। শ্বাসকষ্ট, মাথাঘোরা, খাবারে অরুচি, অনিদ্রা ইত্যাদি।

৭। মানসিক ফোবিয়া

কোনো একটি বিশেষ ঘটনাকে কেন্দ্র করে মানসিক আঘাত পেলে, সেই ঘটনার অকারণ কল্পনায় বা অতীত ঘটনার স্মৃতি মনে করে বা ঘটনা পরম্পরাটি বিশ্লেষণ করে বার বার মানসিক চাপ বা ফোবিয়া হওয়া। তার থেকেও নানান শারীরিক সমস্যা হওয়া।

৮। ভয়, আতঙ্ক, ভেঙে পড়া

অন্ধকার, জন্তু জানোয়ার, পোকা, আগুন, জল ইত্যাদিতে ভয়। যে কোনো কিছুতেই আতঙ্ক। বারবার স্নান করা, হাত-পা ধোওয়া, থেকে থেকে কান্না পাওয়া ইত্যাদি। বসে বসে চিন্তা করা ও উত্তেজনা, অল্পতেই ঘাবড়ে যাওয়া, ভেঙে পড়া অবসাদের লক্ষণ।

এর পরের পর্বে আরও কিছু লক্ষণ নিয়ে আলোচনা করা হবে।

পড়ুন – হাঁপানির সমস্যা? জেনে নিন কী কী খাবেন আর খাবেন না

উঃ ২৪ পরগনা

সক্কালেই ফোন, টাটা ক্যানসার হসপিটালে রক্ত দিয়ে এলেন ১৪ জন স্বেচ্ছাসেবী

একে পুজোর সময়, তার ওপর করোনার আবহ। রক্ত সংগ্রহ প্রায় হচ্ছেই না। ব্লাড ব্যাঙ্কে রক্ত নেই।

Published

on

এনসিসি ক্যাডেটদের রক্তদান।

খবরঅনলাইন ডেস্ক: পুজোর রেশ চলছে। প্রায় সবাই উৎসবের মুডে। সক্কালবেলায় বেজে উঠল মোবাইলের রিংটোন। ও প্রান্তে আর্তস্বর – “স্যার, কিছু একটা ব্যবস্থা করুন। হাসপাতালে রক্তের খুব অভাব। রক্ত না পেলে অনেক শিশুকে হয়তো বাঁচানো যাবে না।”

এ প্রান্তে যিনি ফোন ধরেছিলেন তিনি ভাঙড় কলেজের অধ্যাপক সুব্রত গোস্বামী। তিনি শুধু শিক্ষকই নন, লেফটেন্যান্ট। সামরিক প্রশিক্ষণ রয়েছে। কলেজের এনসিসি-র (National Cadet Corps) প্রধান।

সুব্রতবাবু জানালেন, ফোন এসেছিল টাটা ক্যানসার হসপিটাল থেকে। সেখানে চিকিৎসাধীন ছোট্ট শিশুরা রক্তের জন্য হাহাকার করছে। একে পুজোর সময়, তার ওপর করোনার আবহ। রক্ত সংগ্রহ প্রায় হচ্ছেই না। ব্লাড ব্যাঙ্কে রক্ত নেই।

এর ফাঁকে সুব্রতবাবুর পরিচয়টা আর একটু পরিষ্কার করে জানানো যাক। উনি একজন সমাজসেবী। ওঁর পরিচালনায় গড়িয়া সহমর্মী সোসাইটি (Garia Sahamarmi Society) সারা বছর ধরে নানা সমাজসেবামূলক কাজ করে থাকে। ‘সহমর্মী’ নিয়মিত সুন্দরবন অঞ্চলে চিকিৎসা শিবিরের ব্যবস্থা করে। গড়িয়া অঞ্চলে চক্ষু অস্ত্রোপচার শিবিরের আয়োজন করে। প্রতি বছর রাজ্যের নানা অঞ্চলে দুর্গাপুজোর সময় কাপড় আর খাদ্য নিয়ে দুঃস্থ মানুষদের পাশে দাঁড়ায়। এ বছর ঘূর্ণিঝড় বিধ্বস্ত সুন্দরবনে বার বার ছুটে গিয়েছে ত্রাণসামগ্রী, চিকিৎসাসামগ্রী নিয়ে।

সক্কালে ফোনটা পেয়েই ব্যস্ত হয়ে পড়লেন সুব্রতবাবু। জনে জনে ফোন করতে লাগলেন। জানাতে লাগলেন রক্ত দেওয়ার আর্জি। রক্ত দিতে হয়তো অনেকেই উৎসাহী, কিন্তু ভয়ে পিছিয়ে যাচ্ছেন – এটা করোনার সময়, এই সময় হাসপাতালে যাব?

রক্ত দিচ্ছেন সুব্রত গোস্বামী ও তাঁর পুত্র ঋষভ।

কিন্তু বেশি দেরি করা চলবে না। এখনই রক্ত চাই। শেষ পর্যন্ত তাঁর কলেজের ১২ জন অসমসাহসী এনসিসি ক্যাডেটকে পেয়ে গেলেন। আর সঙ্গী হল সুব্রতবাবুর পুত্র ঋষভ। ১৩ জনকে নিয়ে সুব্রতবাবু সাতসকালে হাজির হয়ে গেলেন টাটা ক্যানসার হাসপাতালে। সবাই রক্ত দিয়ে কিছুটা স্বস্তি পেলেন।

বাড়ি ফিরতে ফিরতে সুব্রতবাবু এই সময়টায় রক্তের এই নিদারুণ অভাবের কথাই ভাবছিলেন। ভাবছিলেন রক্তের এই সংকটের কী ভাবে মোকাবিলা করা যায়।  

তাঁর কথায়, “এই সময়ে রক্ত দিতে মানুষের এত ভয়! কিন্তু অনেকেই তো পুজোর আনন্দে নিজের মতো করে শামিল হতে পিছপা হচ্ছে না। হসপিটালে গেলে করোনা হবে, কিন্তু পুজোমণ্ডপে গেলে…। উওরটা আমার জানা নেই। কিন্তু স্রোতের বিপরীতে সাঁতার কাটার জন্য আমাদের কিছু সন্তান আছে। একেই বলে নিঃস্বার্থ সেবা। এটাই তো এনসিসি-র অন্যতম উদ্দেশ্য। শুধু বইয়ের পাতায় নয়, এরা জীবন বাজি রেখে বারবার প্রমাণ করে মানুষ মানুষের জন্য।”

সুব্রতবাবুর আবেদন – সবাই একটু ভাবুন, রক্তের সংকট দূর করতে এগিয়ে আসুন। রক্তদানের চেয়ে বড়ো পুণ্যকর্ম আর হয় না। এটা মানবতার পুজো। এর চেয়ে বড়ো পুজো আর কিছু নেই।

খবরঅনলাইনে আরও পড়ুন

মা ও শিশুসন্তানদের জন্য কাপড় ও খাবার নিয়ে হাওড়ার বালিতে ‘সহমর্মী’      

Continue Reading

শরীরস্বাস্থ্য

কোন কোন ক্ষেত্রে স্তন ক্যানসারের ঝুঁকি থাকে জানেন?

Published

on

খবর অনলাইন ডেস্ক: ২০০৮ সালে বিশ্বব্যাপী স্তন ক্যানসারের সংখ্যা জরিপ করা হয়েছিল। বিশেষজ্ঞরা বলছেন সেই তুলনায় বর্তমানে ২০% বেড়ে গেছে স্তন ক্যানসার।

স্তনের মধ্যেকার কোষ স্বাভাবিকের তুলনায় বেশি দ্রুত বেড়ে গেলে এক ধরনের পিণ্ড তৈরি হয়। এই পিণ্ডকে সাধারণ ভাষায় টিউমার বলা হয়। টিউমার দুই ধরনের – ১। বেনাইন বা অক্ষতিকর টিউমার এবং ২। ম্যালিগন্যান্ট বা ক্ষতিকর টিউমার।

তবে ১০% থেকে ১৫% হল ম্যালিগন্যান্ট টিউমার। এই ম্যালিগন্যান্ট টিউমারকেই ক্যানসার বলা হয়।

স্তন ক্যানসার হওয়ার বেশ কয়েকটি ঝুঁকিপূর্ণ দিক চিহ্নিত করেছেন বিশেষজ্ঞরা। তবে এ কথাও ঠিক যে এই বিষয়গুলি থাকলেই ক্যানসার হবে তার কোনো অর্থ নেই। তবে কিছু ক্ষেত্রে আশঙ্কা থেকে যায়।

তাই ঝুঁকিপূর্ণ দিকগুলি সম্পর্কে জেনে রাখা ও সচেতন থাকা উচিত।

ঝুঁকিপূর্ণ দিকগুলি হল

১। সকলেই সমান ঝুঁকিপূর্ণ নন। তবে বয়স বাড়ার সঙ্গে আশঙ্কা বাড়তে থাকে। তবে ২০ বছরের কম হলে ঝুঁকি থাকে না বললেই চলে।

২। কম বয়সে ঋতুচক্র বা মাসিক শুরু হলে এবং বেশি বয়স যেমন ৫৫ বছর বয়স পর্যন্ত মাসিক চললে স্তন ক্যানসারের ঝুঁকি থাকে।

৩। গর্ভধারণ না করলে বা অবিবাহিত নারীদের ক্ষেত্রে ঝুঁকি থাকে।

৪। ৩০ বছর বয়সে বা বেশি বয়সে সন্তান ধারণ করলে।

৫। শারীরিক গঠনের ক্ষেত্রে অধিক সংখ্যায় গ্রন্থিসম্পন্ন স্তন হলে।

৬। কিছু কিছু ক্ষেত্রে জেনেটিক কারণেও কিন্তু স্তন ক্যানসারের আশঙ্কা থাকে। এই ক্ষেত্রে বিআরসিএ১ (BRCA1) এবং বিআরসিএ২ (BRCA2) জিন মিউটেশনের ফলে স্তন ক্যানসার হতে পারে।

৭। পরিবারের রক্ত সম্পর্কের কারোর কখনও স্তন, ডিম্বাশয়, এন্ডোমেট্রিয়াম, জরায়ু বা কোলন ক্যানসার হয়ে থাকলে স্তন ক্যানসারের ঝুঁকি থাকে।

৮। একই পরিবারের দু’জন বা তার বেশি রক্তের সম্পর্কে আত্মীয়ের স্তন ক্যানসার থাকলে।

৯। ৪০ বছরের কমবয়সি একজন রক্তের সম্পর্কে আত্মীয়ের স্তন ক্যানসার থাকলেও আশঙ্কা বাড়ে।

১০। কোনো দিন রেডিওথেরাপি চিকিৎসা হলে।

১১। অতিরিক্ত ওজনের মানুষের এই রোগের ঝুঁকি থাকে।

১২। বারংবার বুকের এক্স–রে করানো হলে।

১৩। সময়ের আগে ঘন ঘন ম্যামোগ্রাফি করানো হলে।

১৪। সন্তান প্রসব করার পর শিশুকে মায়ের দুধ পান না করালে।

১৫। বেশি ক্যালোরিযুক্ত খাবার অতিরিক্ত মাত্রায় খেলে।

১৬। বেশি পরিমাণ লাল মাংস, চর্বিজাতীয় খাবার খেলে।

১৭। সবুজ ও মরশুমি শাকসবজি ও ফলমূল যথেষ্ট পরিমাণে না খেলে।

১৮। শারীরিক পরিশ্রম করার অভ্যেস না থাকলে।

১৯। অলস জীবনযাপন করলে।

২০। কোনো কারণে দীর্ঘদিন রাত জাগার অভ্যেস থাকলে।

২১। মেনোপজ হওয়ার পর টানা পাঁচ বছর কোনো হরমোনের ওষুধ খেলে।

২২। এক স্থানে ক্যানসার হয়েছে এমন নারীর ক্ষেত্রে অন্য স্থানে ক্যানসার হওয়ার ঝুঁকি বেশি থাকে।

পড়ুন – ক্যানসারের প্রাথমিক ৫টি লক্ষণ, এগুলি দীর্ঘদিন থাকলেই সচেতন হন! পর্ব ১

আরও পড়ুন – স্বাস্থ্য সাবধান: স্তন ক্যানসার, কিছু প্রশ্ন, কিছু উত্তর

Continue Reading

শরীরস্বাস্থ্য

শ্বাসকষ্ট কেন হয়? জেনে নিন ৯টি কারণ

Published

on

খবরঅনলাইন ডেস্ক: কোভিড পরিস্থিতির জন্য দীর্ঘ দিন ঘরবন্দি থাকা, বাইরে বেরোলে বিশেষ স্বাস্থ্যবিধি অবিরাম মেনে চলা, বাড়ি ফিরেস্যানিটাইজ করার দীর্ঘ পদ্ধতি মেনে চলা, ইত্যাদিতে অনেকেই ক্লান্ত। এই ক্লান্তি শারীরিকের থেকেও বেশি মানসিক। বিশেষজ্ঞরা একে বলছেন, করোনা-ক্লান্তি।  ফলে বাড়ি বসে শরীরের অচলতার কারণে অনেক সমস্যা দেখা দিচ্ছে। মানসিক অ্যাংজাইটি তো আছেই।

এত কথা বলার অন্যতম কারণ হল শ্বাসকষ্ট। এমন অনেকেই আছে যাদের কস্মিনকালেও শ্বাসের সমস্যা ছিল না। কিন্তু বর্তমানে মাঝে মধ্যে শ্বাসের সমস্যা দেখা দিচ্ছে। তার অন্যতম কারণ হিসাবে উঠে আসছে বর্তমান পরিস্থিতির বন্দিদশা ও তার থেকে তৈরি হওয়া মানসিক অস্বস্তি। সেই অস্বস্তি থেকে শ্বাসের সমস্যা। হ্যাঁ, তবে এ কথা কখনওই ঠিক নয় যে শুধু মানসিক অস্থিরতার কারণেই শ্বাসের সমস্যা হয়। শ্বাসের সমস্যা হওয়ার একাধিক কারণ আছে।

শ্বাসকষ্ট এমন একটি রোগ যার কোনো বিধিবদ্ধ সীমারেখা নেই এবং শ্বাসকষ্টের সঠিক কারণ খুঁজে পেতে চিকিৎসকদেরও বেশ নাকাল হতে হয়। 

১। হৃদযন্ত্রের সমস্যা বা হার্টের রোগ এবং তার থেকে হাঁপানির কারণে শ্বাসকষ্ট হয়।

২। কোনো দুঃশ্চিন্তার কারণে রুদ্ধশ্বাস হয়ে থাকলেও প্রয়োজনের তুলনায় শ্বাস নেওয়া কম হয়। তার জন্য রক্তের কার্বন-ডাই-অক্সাইডের মাত্রা বেড়ে যায়, ফলে শ্বাসকষ্টের অনুভূতি হয়।

৩। হৃদপেশির পাম্প করার ক্ষমতা প্রয়োজনের তুলনায় কমে গেলে ফুসসুসে রক্ত জমতে থাকে। ফলে ফুসফুসকে অনমনীয় করে দেয়। তখন শ্বাস নিতে বেশি শক্তি প্রয়োগ করতে হয়। তখনও শ্বাসকষ্ট হয়।

৪। অনেক শ্বাসকষ্টের কারণ হল হাঁপানি। এই হাঁপানির কারণ শ্বাসনালি অর্থাৎ ফুসফুসে হাওয়া ঢোকা বেরোনোর পথ সরু হয়ে যাওয়া। তার জন্য জোরে জোরে শ্বাস নিতে হয়।

৫। অনেক সময় হৃদপিণ্ডে প্রয়োজনের তুলনায় কম রক্তপ্রবাহ হয়। তার কারণে হৃদপিণ্ডে অক্সিজেনের মাত্রা হ্রাস পায়। তখন শ্বাসকষ্ট অনুভূত হয়।

৬। অনেকের ক্ষেত্রে বুকে ব্যথা অনুভব হয়, তখনও শ্বাসকষ্ট হয়।

৭। এ ছাড়া জ্বর ও আরও কয়েকটি শারীরিক রোগেও হাত পা জ্বালা করে, মেটাবলিজম বেড়ে যায়। তখনও নিঃশ্বাসের হার বেড়ে যায়।

৮। বিশেষজ্ঞরা বলেন, হাইপারভেন্টিলেশন সিন্ড্রোমের কারণ খুব স্পষ্ট নয় ঠিকই তবে এই সমস্যার সঙ্গে উৎকণ্ঠা ও এক প্রকার ভয় পাওয়া রোগ অর্থাৎ প্যানিক ডিসঅর্ডারের যোগ আছে। সে ক্ষেত্রে এই শ্বাসকষ্টটি এক অর্থে মনের রোগ। এ রোগের ক্ষেত্রে শারীরিক প্রয়োজনের থেকে বেশি করে শ্বাস নেওয়া হয়। ফলে রক্তের কার্বন-ডাই-অক্সাইড শ্বাসের সঙ্গে বেশি মাত্রায় বেরিয়ে যায়। ফলে রক্তে ক্ষারের পরিমাণ স্বাভাবিকের চেয়ে বেড়ে যায়। উৎকণ্ঠা এবং ভয়ের সময় প্রায় ২৫% থেকে ৮৩% ক্ষেত্রে এ রকমের শ্বাসকষ্ট হয়। এই শ্বাসকষ্টের কোনো শারীরিক কারণ খুঁজে পাওয়া যায় না।

৯। আবার ১১% ক্ষেত্রে মানসিক সমস্যা ও শারীরিক কারণ ছাড়াই শ্বাসের এক ধরনের কষ্ট হয়। ঘন ঘন শ্বাস নিতে হয়। দেখা যায় যে, পুরুষদের চেয়ে মহিলারা এ সমস্যায় বেশি আক্রান্ত হয়।

তাই শ্বাসকষ্ট হলেই যে হৃদরোগ বা বড়ো কোনো সমস্যা এমনটা ভেবে ভয় পাওয়ার কোনো কারণ নেই। শ্বাসকষ্ট হলেই দেরি না করে বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন। পরামর্শমতো যাবতীয় চিকিৎসা পদ্ধতি অনুসরণ করুন। তার থেকেও জরুরি কথা হল পারিপার্শ্বিক পরিস্থিতি ও পরিবারে হাজারো সমস্যা থাকতে পারে। কিন্তু মনের ওপর তার প্রভাব পড়তে দেওয়া চলবে না। নিজেকে নিজের ভেতর থেকে খুশি রাখতে হবে। তা হলে এমন সমস্যা ধারে কাছে ঘেঁষতে পারবে না। বা কোনো রোগের কারণে শ্বাসকষ্ট হলেও তা থেকে মনের জোরে দ্রুত উতরে যাওয়া সম্ভব হবে।

পড়ুন – ডিপ্রেশন থেকে বাঁচতে কী কী করবেন? পর্ব ২

আরও পড়ুন – আপনি কি কোনো কারণে হতাশা বা ডিপ্রেশনে ভুগছেন? বুঝবেন এই লক্ষণগুলি থেকে: পর্ব ২

Continue Reading

Amazon

Advertisement
রাজ্য8 mins ago

জলীয় বাষ্পের প্রভাবে বাড়ল সর্বনিম্ন তাপমাত্রা, মঙ্গলবার পর্যন্ত হালকা বৃষ্টির সম্ভাবনা দক্ষিণবঙ্গে

মল্লারপুরে বিক্ষোভ
বীরভূম30 mins ago

বীরভূমের মল্লারপুরে পুলিশ হেফাজতে নাবালকের মৃত্যু, জাতীয় সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ

বিদেশ2 hours ago

দরিদ্র দেশগুলির জন্য কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন বিমা প্রকল্পের পরিকল্পনা ‘হু’-র

kolkata High Court
রাজ্য2 hours ago

কোভিডরোগীদের জন্য মারণ হতে পারে বাজির ধোঁয়া, ঠেকাতে ফের আদালতে যাওয়ার প্রস্তুতি

Mayawati
দেশ3 hours ago

আর রাখঢাক নয়, এ বার বিজেপিকে সরাসরি ভোট দেওয়ার আহ্বান মায়াবতীর

দেশ3 hours ago

কোভিড আপডেট: নতুন করে আক্রান্ত ৪৮,৬৪৮, সুস্থ ৫৭,৩৮৬

দেশ3 hours ago

স্বস্তি আরও বাড়িয়ে ভারতে সক্রিয় রোগী নামল ছ’লক্ষের নীচে, আপাতত চিন্তা দিল্লিকে নিয়ে

দেশ4 hours ago

কাশ্মীরে জঙ্গি হামলায় যুব সাধারণ সম্পাদক-সহ ৩ বিজেপি নেতা নিহত

দেশ3 hours ago

কোভিড আপডেট: নতুন করে আক্রান্ত ৪৮,৬৪৮, সুস্থ ৫৭,৩৮৬

containment kolkata
কলকাতা2 days ago

লকডাউন নিয়ে গুজবের বিরুদ্ধে পুলিশি পদক্ষেপ

বিনোদন3 days ago

সিবিআই গ্রেফতার করতে পারে, আশঙ্কায় তড়িঘড়ি আদালতের দ্বারস্থ সুশান্ত সিং রাজপুতের দুই দিদি

কলকাতা2 days ago

বিসর্জনের আগেই আগুন, পুড়ে ছাই সল্টলেকের দুর্গাপুজো মণ্ডপ

উঃ ২৪ পরগনা2 days ago

সক্কালেই ফোন, টাটা ক্যানসার হসপিটালে রক্ত দিয়ে এলেন ১৪ জন স্বেচ্ছাসেবী

coronavirus
রাজ্য3 days ago

দেড় মাস পর রাজ্যে কমল সক্রিয় রোগী, নতুন সংক্রমণ নামল ৪ হাজারের নীচে

বিনোদন2 days ago

ভেন্টিলেশনেই সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়, শুরু ডায়ালিসিস

বিনোদন3 days ago

চিকিৎসায় সাড়া দিচ্ছেন না সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়, আরও সংকট, জানালেন চিকিৎসক

কেনাকাটা

কেনাকাটা16 hours ago

দীপাবলিতে ঘর সাজাতে লাইট কিনবেন? রইল ১০টি নতুন কালেকশন

খবরঅনলাইন ডেস্ক: আসছে আলোর উৎসব। কালীপুজো। প্রত্যেকেই নিজের বাড়িকে সুন্দর করে সাজায় নানান রকমের আলো দিয়ে। চাহিদার কথা মাথায় রেখে...

কেনাকাটা3 weeks ago

মেয়েদের কুর্তার নতুন কালেকশন, দাম ২৯৯ থেকে শুরু

খবর অনলাইন ডেস্ক: পুজো উপলক্ষ্যে নতুন নতুন কুর্তির কালেকশন রয়েছে অ্যামাজনে। দাম মোটামুটি নাগালের মধ্যে। তেমনই কয়েকটি রইল এখানে। প্রতিবেদন...

কেনাকাটা4 weeks ago

‘এরশা’-র আরও ১০টি শাড়ি, পুজো কালেকশন

খবর অনলাইন ডেস্ক : সামনেই পুজো আর পুজোর জন্য নতুন নতুন শাড়ির সম্ভার নিয়ে হাজর রয়েছে এরশা। এরসার শাড়ি পাওয়া...

কেনাকাটা4 weeks ago

‘এরশা’-র পুজো কালেকশনের ১০টি সেরা শাড়ি

খবর অনলাইন ডেস্ক : পুজো কালেকশনে হ্যান্ডলুম শাড়ির সম্ভার রয়েছে ‘এরশা’-র। রইল তাদের বেশ কয়েকটি শাড়ির কালেকশন অ্যামাজন থেকে। প্রতিবেদন...

কেনাকাটা1 month ago

পুজো কালেকশনের ৮টি ব্যাগ, দাম ২১৯ টাকা থেকে শুরু

খবর অনলাইন ডেস্ক : এই বছরের পুজো মানে শুধুই পুজো নয়। এ হল নিউ নর্মাল পুজো। অর্থাৎ খালি আনন্দ করলে...

কেনাকাটা1 month ago

পছন্দসই নতুন ধরনের গয়নার কালেকশন, দাম ১৪৯ টাকা থেকে শুরু

খবর অনলাইন ডেস্ক : পুজোর সময় পোশাকের সঙ্গে মানানসই গয়না পরতে কার না মন চায়। তার জন্য নতুন গয়না কেনার...

কেনাকাটা1 month ago

নতুন কালেকশনের ১০টি জুতো, ১৯৯ টাকা থেকে শুরু

খবর অনলাইন ডেস্ক : পুজো এসে গিয়েছে। কেনাকাটি করে ফেলার এটিই সঠিক সময়। সে জামা হোক বা জুতো। তাই দেরি...

কেনাকাটা1 month ago

পুজো কালেকশনে ৬০০ থেকে ১০০০ টাকার মধ্যে চোখ ধাঁধানো ১০টি শাড়ি

খবর অনলাইন ডেস্ক: পুজোর কালেকশনের নতুন ধরনের কিছু শাড়ি যদি নাগালের মধ্যে পাওয়া যায় তা হলে মন্দ হয় না। তাও...

কেনাকাটা1 month ago

মহিলাদের পোশাকের পুজোর ১০টি কালেকশন, দাম ৮০০ টাকার মধ্যে

খবরঅনলাইন ডেস্ক : পুজো তো এসে গেল। অন্যান্য বছরের মতো না হলেও পুজো তো পুজোই। তাই কিছু হলেও তো নতুন...

কেনাকাটা1 month ago

সংসারের খুঁটিনাটি সমস্যা থেকে মুক্তি দিতে এই জিনিসগুলির তুলনা নেই

খবরঅনলাইন ডেস্ক : নিজের ও ঘরের প্রয়োজনে এমন অনেক কিছুই থাকে যেগুলি না থাকলে প্রতি দিনের জীবনে বেশ কিছু সমস্যার...

নজরে