prostrate gland; normal and enlarged
প্রস্ট্রেট গ্ল্যান্ড, স্বাভাবিক ও এনলার্জড্‌।
dr. dipankar ghosh
দীপঙ্কর ঘোষ

প্রস্টেট গ্ল‍্যান্ড একটি অঙ্গ যেটা কেবলমাত্র পুরুষেরই থাকে। এই অঙ্গটি মূত্রনালির চার পাশ ঘিরে রেখেছে। মূত্রথলির একেবারে শেষে এই গ্ল‍্যান্ড থাকে। প্রস্টেট গ্ল‍্যান্ডের কাজ কিছু কিছু এনজাইম এবং যৌন মিলনের সময় প্রয়োজনীয় কিছু ক্ষরণে সাহায্য করা।

পুরুষের শুক্রাণু তৈরি হয় টেস্টিস বা অন্ডকোষের ভেতর। বীর্যপাতের সময়ে প্রস্টেট তার ক্ষরণের সাহায্যে বীর্যের পরিমাণ বাড়ায়, শুক্রাণুকে পুষ্টি জোগায় এবং আরও একটি প্রয়োজনীয় কাজ করে।

আরও পড়ুন: স্বাস্থ্য সাবধান : থাইরয়েড হয়েছে ? কী করে বুঝবেন ?

যে হেতু মূত্রনালি দিয়েই শুক্র বেরিয়ে আসে সে হেতু সব সময় সম্ভাবনা থাকে শুক্র পিছন দিকে গিয়ে মূত্রথলিতে চলে যাওয়ার।
প্রস্টেট মূত্রনালিকে চার পাশ দিয়ে ঘিরে রাখে এবং বীর্যপাতের সময়ে সঙ্কুচিত হয়ে মূত্রনালির মুখ বন্ধ করে দেয়। এটাই আবার পরে গণ্ডগোল পাকায়। চল্লিশ বছর বয়সে এসে প্রস্টেট আস্তে আস্তে বাড়তে থাকে ফলে ক্রমেই মূত্রনালি বন্ধ হয়ে আসে। অবশ্যই সব মানুষের সমান ভাবে এই ঘটনা ঘটে না – কারও কম কারো বেশি। এর ফলে প্রস্রাবের ধারণক্ষমতা কমে আসে, বার বার প্রস্রাব পায়, বিশেষত রাতে ঘুম ভেঙে বেশ কয়েক বার উঠতে হয়। এই অবস্থায় চিকিৎসা না করালে হঠাৎ একদিন মূত্রনালি সম্পূর্ণ বন্ধ হয়ে প্রস্রাব বন্ধ হয়ে যেতে পারে। আজকাল এই অসুখের ভালো ভালো ওষুধ বেরিয়েছে যার ফলে অপারেশন না করেও একজন শুধুমাত্র নিয়মিত ওষুধ খেয়েই বাকি জীবন কাটিয়ে দিতে পারেন।

আরও পড়ুন: স্বাস্থ্য সাবধান : ফ্যাটি লিভার ও অন্যান্য অসুখ

যে হেতু প্রস্টেট গ্ল‍্যান্ডের সমস‍্যাটা হঠাৎ করে অস্বাভাবিক বেড়ে যায় তাই এই গ্ল‍্যান্ডে ক‍্যানসারের সম্ভাবনা খুব বেশি। এই ক‍্যানসার খুব তাড়াতাড়ি হাড়ে ছড়িয়ে পড়ে যার ফলে মেরুদণ্ড এবং অন‍্যান‍্য হাড়ে খুবই ব‍্যথা হতে পারে। এই ক‍্যানসারের ছড়িয়ে পড়া বা আক্রমণের হার ভারতীয় উপমহাদেশের জনসংখ্যায় সঠিক সংখ‍্যাতত্ত্ব দেওয়া সম্ভব নয়, কেননা আমাদের দেশের অধিকাংশ মানুষই ঠিক সময়ে ডাক্তারের কাছে এসে পৌঁছোন না। এ ছাড়াও আমাদের দেশের এ সব ক্ষেত্রে রেকর্ড করে রাখার মতো পরিকাঠামোও নেই। তবে আফ্রোএশিয়ান জনসংখ্যায় এই ক‍্যানসারের হার সব থেকে বেশি। ইউরোপে রোগাক্রান্তের সংখ্যাও খুব কম নয়। সংখ‍্যাততত্ত্ব অনুযায়ী একটা বয়সের পরে প্রায় আটত্রিশ জন প্রস্টেট রোগীর মধ্যে একজন ক‍্যানসার রোগী পাওয়া যায়। আল্ট্রাসনোগ্রাম, রক্ত এবং প্রস্রাব পরীক্ষা করে এই ক‍্যানসার সম্বন্ধে একটা নির্দিষ্ট ধারণা তৈরি করা যায়।

(লেখক একজন সাধারণ চিকিৎসক)

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here